আজ ২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই জুন, ২০২১ ইং

ব্যাংক কর্মকর্তার করোনায় মৃত্যু, লাশ আসতে বাধা- ছতুরা শরিফ

 

আখাউড়া প্রতিনিধি
মোঃ সুজন হাজারী

আখাউড়া উপজেলার দরখার ইউনিয়নের ছতুরাশরিফ গ্রামের বাসিন্দা ঢাকায় একটি ব্যাংকে চাকরি করতেন এবং সেখানেই বসবাস করতেন। তিনিসহ পরিবারের তিন সদস্যের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। ওই ব্যাংক কর্মকর্তা গতকাল দুপুরে ঢাকায় মারা গেলে সন্ধ্যায় তাঁর লাশ নিয়ে আখাউড়ার উদ্দেশে রওনা হন পরিবারের লোকজন। ওই ব্যক্তির সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত পরিবারের দুই সদস্যও ছিলেন। এ অবস্থায় উপজেলা প্রশাসন সতর্ক অবস্থা অবলম্বন করেন। লাশ আখাউড়ায় না আনার জন্য স্বজনদের অনুরোধ জানায় প্রশাসন। গতকাল রাতেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাহমিনা আক্তার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রসুল আহমেদ ওই কর্মকর্তার গ্রামের বাড়িতে উপস্থিত হন। একপর্যায়ে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানতে পারেন যে ওই ব্যাংক কর্মকর্তার লাশ নিয়ে পরিবারের লোকজন কুমিল্লা পর্যন্ত পৌঁছালে সেখানকার পুলিশ তাঁদের বাঁধা দেন। পরে পরিবারের লোকজন লাশ নিয়ে উল্টো ঢাকার পথে রওনা হন। তবে সতর্কতা হিসেবে গভীর রাত পর্যন্ত প্রশাসনের লোকজন সেখানে অবস্থান করেন। গ্রামের লোকজনও সতর্ক ছিলেন।

ওই কর্মকর্তার নিকটাত্মীয় ও জনপ্রতিনিধি জানান, সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে নিয়মরীতি মেনে গ্রামের বাড়িতে লাশ দাফন করতে চেয়েছিলেন ওই ব্যাংক কর্মকর্তার স্বজনেরা । তবে পুলিশ লাশ নিয়ে আসতে না দেওয়ায় ঢাকাতেই ফিরে যান তাঁরা।

এলাকাবাসীর অনেকের প্রশ্ন করোনা পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে তবে কি সঠিক নিয়ম মেনেও নিজ গ্রামে দাফন সম্ভব নয়? এ নিয়ে আলোচনা, সমালোচনা হচ্ছে৷ মানুষ তাদের কে অসহায় মনে করছেন, এমন নিষ্টুরতা মেনে নিতে পারছেনা।

একি এলাকার কয়েকজন ব্যাংক কর্মকর্তা তাদের ফেইজবুকে এর সমবেধনা জানান এবং আমাদের ফোন আলাপে বলেন, ব্যাংক কর্মকর্তারা দেশের মানুষের এমন খারাপ সময় আমরা সহযোগীতা করে যাচ্ছি নিয়মিত। অথচ, আজকের এ ঘঠনায় মানতে পারছিনা। আমরাও ব্যাংক কর্মকর্তা। আগামী সময়গুলোতে যেন এমন আচরন না করা হয় তারা এলাকাবাসী ও প্রশাসনের কাছে অনুরুধ জানান৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ