আজ ২৫শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

করোনা পরবর্তী পৃথিবী

 

সাবাত আল্ ইসলান

চীন থেকে শুরু,এরপর সারা পৃথিবী ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। নতুন এই রোগে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। ভাইরাস সংক্রামক ঠেকাতে শারীরিক দুরত্বে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে মানুষ। অপ্রয়োজনে ঘড় থেকে বের হওয়া, আড্ডা, জনসমাগমও বন্ধ। এইসবই তাড়িয়ে বেরাবে দীর্ঘদিন। করোনা পরবর্তী পৃথিবীতে বদলে যাবে পুরো বিশ্ব।

প্রভাব পড়বে ব্যক্তি আচরণ, অর্থনীতি, সমাজব্যবস্থা, পররাষ্ট্রনীতিতে। স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপার সচেতনতা তৈরি হবে মানুষের মধ্যে, অন্যদিকে অর্থনৈতিক স্থবিরতার জন্য বাড়বে দারিদ্র্য। অস্ত্র ও জ্বালানির বাহিরে স্বাস্থ্য খাত হয়ে উঠবে প্রভাব বিস্তারের অন্যতম নিরাময়।

জাতীয় নিরাপত্তা এবং গুপ্তচরবৃত্তিঃ
অনেক দিন থেকেই মানুষের একটা আশঙ্কা ছিল যে, সন্ত্রাসীরা বা কোনো গোষ্ঠী হয়তো যে কোনো সময় জীবাণু অস্ত্র ছেড়ে দিতে পারে।বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক গোষ্ঠী হয়তো জীবাণু অস্ত্রের কথা নতুন করে ভাবতে বসবে। ফলে ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য নিরাপত্তার জন্য সংগৃহীত গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষণ করার জন্য যথাযথ দক্ষতাসম্পন্ন লোকের প্রয়োজন হবে।সামরিক বিশেষজ্ঞদের পাশাপাশি গুরুত্ব হবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদেরও।

বর্তমানে করোনাভাইরাস মহামারীতে বিশ্বজুড়ে যে কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে নিশ্চিত করেই বলা যায়, ভবিষ্যতে মানুষের নিরাপত্তায় অনেকখানি মাথাব্যথার কারণ হবে জৈব-অস্ত্র।

নজরদারিতে নিশ্ছিদ্রতাঃ
ইতিহাসবিদ ইউভাল নোয়াহ হারারি ফিন্যান্সিয়াল টাইমসে বলেছেন, এখন পর্যন্ত আপনার স্মার্টফোনের স্ক্রিনে কোনো লিঙ্কে আপনি যখনই আঙ্গুল দিয়ে ক্লিক করেছেন, সরকার শুধু জানতে চেয়েছে, কিসের লিঙ্কে আপনি ক্লিক করেছেন। কিন্তু এই করোনাভাইরাসের কারণে সরকারের ফোকাসটা সরে গেছে অন্যদিকে। এখন সরকার জানতে চায়, আপনার আঙ্গুলের তাপমাত্রা কত, ত্বকের নিচে আপনার রক্তের চাপ কত।শুধু আপনি কী করছেন তা-ই নয়। এমনকি আপনার শারীরিক অবস্থার সম্পূর্ণ তথ্য থাকবে সরকারের কাছে।

রোবটের ব্যবহার বৃদ্ধিঃ
শিল্প-কারখানায় উৎপাদনকাজে ক্রমেই রোবটের ব্যবহার বাড়ছে। ধীরে ধীরে যন্ত্রের দখলে চলে যাচ্ছে শ্রমবাজার। আর এবার করোনার প্রাদুর্ভাবে আরও প্রকট আকার দেখা দিচ্ছে। কারণ মানবকর্মীর কারণে বন্ধ রাখতে হচ্ছে কলকারখানা। মানবসম্পদের ব্যবহার কমে গিয়ে রোবটের ব্যবহার বৃদ্ধির ফলে দেখা দিতে পারে বেকারত্বের।”World Economic Forum “এর মতে ধারনা করে হচ্ছে ২০২৫ সালের মধ্যে শ্রমবাজারের ৫৫ শতাংশ চলে যাবে রোবটের দখলে। ধারনা করা হচ্ছে শ্রমবাজারের দখল রোবটের কাছে চলে গেলে ২০২৫ সাল নাগাদ অর্ধেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে।

অনলাইন শিক্ষাব্যবস্থাঃ
১৯৮৯ সালে সর্বপ্রথম ইউনিভার্সিটি অব ফিওনিক্স-এর মাধ্যমে অনলাইন এডুকেশনের যাত্রা শুরু করে।বিগত কয়েক বছর ধরেই ইন্টারনেটের সহজলভ্যতা আর তথ্যের প্রাচুর্যতার কারণে অনলাইন এডুকেশন ব্যাপারটি মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠতে শুরু করে। এ ক্ষেত্রে তারা সবচেয়ে বেশি আগ্রহী হয়ে থাকেন যাদের জন্য সময়, অর্থ এবং শিক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়ের সব কিছু ইন্টারনেটের মাধ্যমে সহজ থেকে সহজতর হয়ে উঠেছে। করোনাভাইরাসের কারণে অনেক দেশ তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ইতিমধ্যে অনলাইন এডুকেশন চালু করেছে। এটি ভবিষ্যতে আরও ব্যাপকহারে চালু হতে পারে। ব্যবহার বেড়েছে ZOOM এপস এর।

ঘড়ে বসে অফিসঃ
করোনায় সারা বিশ্ব লকডাউন থাকায় ঘড়ে বসে বিভিন্ন ব্যবসায় প্রতিষ্টানের অফিস করতে হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বড় বড় বিজনেস ডিল সম্পাদনা করা হচ্ছে। করোনা প্রকোপ কমে গেলেও বৃদ্ধি পাবে ঘড়ে বসে অফিস করার প্রবনতা। অনলাইন মুখী হয়ে যাবে পুরো বিশ্ব।

এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ঘরে বসে অফিস করলে ১৬.৮ ভাগ বেশি কাজ করতে পারছে মানুষ। বাসায় বসে অফিসের কাজ করলে মানুষের জীবনযাত্রাও অনেক সহজ হয়ে যাচ্ছে। কর্মদক্ষতাও বৃদ্ধি পাবে। মানসিক দিক থেকেও অনেকখানি ভালো থাকতে পারবে মানুষ।

বেকারত্বঃ
করোনার ফলে বৃদ্ধি পাবে বেকারত্বের সংখ্যা। কর্মহীন হয়ে পড়বে অর্ধেক শ্রমশক্তি।প্রতিদিন কারখানার অর্ডার ক্যান্সেল হচ্ছে, সৌদি আরবে তেলের দাম কমে যাচ্ছে। যার প্রভাব পড়বে সরাসরি বিদেশে কর্মরত বাঙালিদের উপর। তাদের বেতন দিতে পারবে না ওই সব কোম্পানি গুলো।রেমিটেন্সের পরিমান কমে যাবে। রপ্তানি মুখি অর্থনীতিতে ধ্বস নামবে।

বাড়বে সচেতনতা, কমবে অর্থহীন কাজঃ
মানুষ নির্দিষ্ট কিছু কাজ করে জীবনধারণ করতে পারে না। তাকে নানা রকম বৈচিত্র্যময় কাজ করতে হয়। এর মধ্যে বিশ্বজুড়ে বহু মানুষ অর্থহীন কাজ করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কভিড-১৯ মোকাবিলায় আমাদের প্রস্তুতির করুণ অবস্থার একাংশের জন্য দায়ী এসব কাজ। এ মহামারী বুঝিয়ে দিচ্ছে যে, অনেক কাজের কোনো দরকার নেই। কিন্তু প্রয়োজনীয় কাজে দক্ষ কর্মীর অভাব রয়েছে। যে সমাজে অর্থনীতির মূল নীতিমালা হচ্ছে বিনিময়মূল্য। যেখানে জীবনযাপনের মৌলিক প্রয়োজন বাজারেই পাওয়া যায় সেখানে মানুষ অর্থহীন কাজ করতে আকর্ষণ বোধ করে। কিন্তু ভবিষ্যতে করোনাভাইরাসের পর মানুষ এসব কাজ থেকে দূরে সরে আসবে। এতে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়বে।

লেখা: সাবাত আল ইসলাম
শিক্ষার্থী, ব্যাংকিং ও ইন্স্যুরেন্স বিভাগ,
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ