আজ ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ ইং

শিশু জিসান হত্যা, লাশ উদ্ধারের ৩ ঘন্টার মধ্যে হত্যাকারী গ্রেপ্তার

সাভার প্রতিনিধি :

ঢাকার ধামরাই শিশু জিসানকে বলৎকারের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার ৩ ঘন্টার মধ্যে হত্যাকারিকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‍্যাব-৪)। হত্যাকারী আল আমিন (২২) জিসান হাসান রাব্বী (৭) কে তারই প্যান্টের রশি দিয়ে পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

মঙ্গলবার ( জুন ) দুপুরে সিপিস-২, র‌্যাব-৪ ক্যাম্পে এক  সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য জানান কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট রাকিব মাহমুদ খান।

নিহত শিশু জিসান হাসান রাব্বি বাবা জুয়েল রানার সাথে  ধামরাইয়ের কালামপুর বাজার এলাকার আব্দুস সালামের ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন। জিসানের বাবা কালামপুর হাজী হোটেলে চাকরি করতেন।

গ্রেপ্তার আল আমিন (২২) মানিকগঞ্জ সদর থানার জয়রা গ্রামের মৃত ইসমাইলের ছেলে। তিনি ধামরাই কালামপুর এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

র‌্যাব-৪ জানায়, গত ৯ই জুন বিকেলে ধামরাই কালামপুর এলাকায় গিয়ে শিশু জিসানের গলায় রুপার চেইন দেখতে পায় আল-আমীন। মাদকের টাকা সংগ্রহের জন্য জিসানকে চকলেট খাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পাশে জঙ্গলে নিয়ে যায়। পরে তাকে বলাৎকার করে তার গলায় থাকা রুপার চেইনটি খুলে নিয়ে। ঘটনা জানাজানি হওয়ার ভয়ে শিশুটির পরিহিত প্যান্টের রশি দিয়ে গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে শিশুটি মাথার অংশ কাদামাটির নিচে চেপে ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

র‌্যাব-৪ এর সিপিস- ২ নবীনগর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান বলেন, নিখোঁজের পর জিসানের পরিবার র‍্যাব-৪ এ অভিযোগ দিলে তদন্ত শুরু করে র‍্যাব। পর দিন জিসানের পরিবার জানায় জিসানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় র‍্যাব। লাশ উদ্ধারের প্রায় তিন ঘন্টার মধ্যে হত্যাকারী আল-আমীনকে ধামরাইয়ের কালামপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আল-আমিন ছিঁচকে চোর হিসাবে পরিচিত। পাশাপাশি সে নিয়মিত মাদক সেবন করতো। সেই মাদকের টাকা সংগ্রহ করতে এধরনের চুরি করতো আল-আমীন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার আল-আমিন হত্যাকান্ডের দায় অকপটে স্বীকার করেছেন। তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ