আজ ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ ইং

শিকল দিয়ে কুকুরের সাথে বেধে নির্যাতন, সেই মামুন গ্রেফতার

সাভার প্রতিনিধি:

সাভারে ৮০০ টাকার জন্য এক রিকশাচালককে কুকুরের সাথে শিকল দিয়ে বেধে নির্যাতন করার দায়ে ভাঙারি ব্যবসায়ী মামুনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৭ মে) রাত ১০ টার দিকে সাভারের হেমায়েতপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার পর থেকে তিনি মোবাইলে নতুন সিম তুলে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পালিয়ে বেড়ান তিনি।

গ্রেফতার সাসুন ওরফে ওরফে সুকান্ত দাশ (৩৪) চট্টগ্রাম জেলার সাতকানিয়া থানার কালিআইশ গ্রামের মৃত মৃত সুনীল বরুন দাশের ছেলে। তিনি হিন্দু ধর্ম থেকে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করে তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের ভরাড়ী এলাকায় হাফিজ উদ্দিনের বাড়িতে ভাড়া থেকে ভাঙারির ব্যবসা করতেন।

ভুক্তভোগী রবিউল ইসলাম (৪০) সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের ঋষিপাড়া এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থেকে রাজধানীর শ্যামলীতে পায়ের রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। এর আগে তিনি বিভিন্ন এলাকা থেকে ভাঙারি ক্রয় করে মামুনের কাছে বিক্রি করতেন।

পুলিশ জানায়, গত ৭ মে ৮০০ টাকার জন্য রবিউল নামের এক রিকশা চালককে সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের কাঁঠালতলা থেকে তুলে এনে বেধড়ক মারধর করে গ্রেফতার মামুন। পরে তাকে কুকুরের সাথে একই শিকল দিয়ে বেঁধে রাখেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ যাওয়ার কথা শুনে তিনি পালিয়ে যান। ঘটনার পর থেকেই তিনি মোবাইলের সিম পরিবর্তন করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পালিয়ে বেড়ান। এঘটনায় ভুক্তভোগী মামলা দায়ের করলে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আজ হেমায়েতপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এব্যাপারে সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রাজিব কুমার সাহা বলেন, কুকুরের সাথে শিকল দিয়ে বেধে রিকশাচালককে নির্যাতন করা সেই ভাঙারি ব্যবসাযীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  শুক্রবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৭ মে ব্যবসার ৮০০ টাকার জন্য রবিউল ইসলাম নামের এক রিকশাচালককে তুলে এনে কুকুরের সাথে একই শিকলে বেঁধে নির্যাতন করে ভাঙারি ব্যবসায়ী মামুন ওরফে সুকান্ত কুমার দাশ। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলে আজ মামুনকে গ্রেফতার করা হয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ