আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা মার্চ, ২০২১ ইং

কাঁশিয়াখালী বেরিবাঁধঃ ইছামতির বুকে শেষ পেরেকের ক্ষত চিহ্ন

 

রানা ভূঁইয়া:

 

যদিও এলাকাকে রক্ষাই ছিলো মুখ্য উদ্দেশ্য- কিন্ত ২০ বছর পার হয়ে যাওয়ার পর ক্ষত মেরামতের উদ্যোগ না নিয়ে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করা হয়েছে। বিশ বছরে একটি বারও উদ্যোগী হয়ে উঠলো না কেউ। বরং নানান প্রকার দোকান পাট বসিয়ে গড়ে উঠছে ব্যবসায়িক কেন্দ্র। বেরিবাঁধ এখন পিচ ঢাকা পথ। দোহার নবাবগঞ্জ হরিরামপুরর সংযোগ রোড। পাকা করার পূর্বে নদীকে ফিরিয়ে দেওয়ার কোন উদ্যোগ চোখে পড়েনি। পদ্মার প্রবল গ্রাসে ইছামতির তীরবর্তী গ্রামকে গ্রাম বিলীন হয়ে যাচ্ছিলো তৎসময়ে।

অনেক স্কুল কলেজ বাজার মসজিদ মন্দির বিলীন হয়ে যায় কয়েক বছরের মধ্যে। এইভাবে দ্রুত উদ্যোগ না লওয়া হলে হয়তো বা আরো এলাকাকে হারাতে হতো। দ্রুততার সাথে বাঁধ নির্মান করা হওয়ার ফলে দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়নি। কিন্তু কথা ছিলো অন্তত একটি সুইন্স গেট স্থাপনের মাধ্যমে ইছামতির দুটি অংশের সংযোগ স্থাপন করা হবে। কিন্তু না কেউ কথা রাখেনি- এক এক কেটে গেলো বিশটি বছর । সরকারের পর সরকার এলো কিন্তু আলোর মুখ দেখালো না । স্থানীয় আশেপাশের তিনটি ইউনিয়নের তরুনদের বিশাল অংশ একত্রিত হয়েছিলো সুইন্স গেটের জন্য। কিন্তু মাঝ পথে ভাগ্য জুটলো তরুনরা নাকি ভিন্ন মতালম্বী। যার অপবাদ আজো শুনতে হয় বেরিবাঁদের বিষয়ে কোন কথা উঠলে। এই অপবাদগুলো যারা ছড়িয়ে ছিলো তারাও যে বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে এমনটিও নজরে আসেনি। ফলে একটি বারের জন্যও ফিরে পাওয়া যায়নি হারানো ইছামতিকে। ইতিপূর্বেও ইছামতির বিভিন্ন জায়গায় পেরেক মেরে মেরে গতি পথকে রুদ্র করা হয়েছে। ইছামতির একটি শাখা নদী ছিলো লৌহজং উপজেলা -আজ তাঁর অস্তিত্ব নেই বললেই চলে। আরো একটি অংশ শ্রীনগর দিয়ে পদ্মার সাথে মিলিত হয়েছিলো। সেখানেও ছুঁড়ি চালানো হয়েছিলো। আরো একটি ছুঁড়ি চালানো হয়েছিলো গালিমপুর গোবিন্দপুর অংশে। সত্তুর দশকের দিকে ছুঁড়ি চালানো হয়েছিলো কার্তিকপুর অংশে- যেখান দিয়ে বড় বড় নৌকা চলাচল করতো।
সর্বশেষ পেরেকের ক্ষতের সাথে আশেপাশের অনেক গ্রামও জড়িয়ে যায় । বাঁধের নির্দিষ্ট স্থানে সুইন্স গেট স্থাপন না করাতে বর্ষা মৌসুম শেষ হওয়ার পরও জয়কৃষ্যপুরের বেশ কিছু অংশ পানিতে তলিয়ে থাকতে দেখা যায়। অর্থাৎ বাঁধের উভয় অংশের ক্ষত এখনো শুকায়নি। একপাশে পানিতে তলিয়ে থাকলেও আরেক অংশ বেশ নীচু। দিনের পর দিন মাটি ভরাট করে করে বাঁধকে উচু করার ফলে বাঁধের নিকবর্তী বাড়ী ঘর অনেক স্কুলও সামান্য পানিতে তলিয়ে থাকতে দেথা যায়। পদ্মার আগ্রাসন শেষ হয়ে যাওয়ার পর বাঁধের উভয় পাশ্বের দৃশ্যের কোন পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়নি। বরং বাঁধ এখন বানিজ্যিক এলাকা হিসাবে উঁকি দিচ্ছে। খন্তিত ইছামতির শেষ অংশ থেকে মূল পদ্মা এখন অনেক ‍দূরে। প্রায় ৪/৫ কিঃমিঃ ধূলশুড়া ইউনিয়নের কাছে। একটি বাঁধ একটি অঞ্চলকে একটি সময় সুরক্ষা করলেও পুরো অঞ্চলটি এখন অনেকটাই শৃংখলাবিহীন করে রেখে গিয়েছি। এই অঞ্চলটিতে পদ্মা ইছামতি হারিয়ে তার স্বকীয়তা। কাঁশিয়াখালী বেরিবাঁধ এর মাঝেখানে দাঁড়ালে ইছামতির দুটি খন্তিত অংশই লক্ষ্য করা যায়। বাঁধের পূর্বে পরিশ্রান্ত দেহ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে ইছামতি। অন্তরে নানা আক্ষেপ থাকলেও বুঝার উপায় নেই একটুকো। আবার আশেপাশের গ্রামগুলো দেখে বিধ্বস্ত নীলিমার মতো মনে হয়। ছোট একটি সুইন্স গেট বর্ষা মৌসুমে পানির গতি থাকলেও শুস্কো মৌসুমে একটু পানিও থাকে না। পানিতে ডুবে থাকা গ্রামগুলো পানিকাউর, কৌঠুরী, তিত্পালদিয়া,আশাইপুর, রায়পুর, পশ্চিম সোনাবাজু, আড় ঘোষাইলসহ আরো অনেক গ্রাম-যাদের ভাবনার শেষে নেই। তাই সংস্কার প্রয়োজন ছিলো তখন যখন বেরিবাঁধটিকে নিয়ে স্থায়ী রোডের কাজ শুরু করা হয়। ইছামতি হত্যার দায় কেউ নিবে না কোনদিন। বেরিবাঁধ রক্ষা করলেও বিশ বছরে পদ্মার পরিবর্তন আমরা লক্ষ্য করেছি- পদ্মা আমাদের অংশ থেকে সরে গিয়েছে বেশ দূরে । তাই ইছামতির দুটি খন্ডকে মেনে নিয়েই উন্নয়ন করছি- যেই সেই উন্নয়ন নয় ডাক সই উন্নয়ন। যেই উ্ন্নয়নের পরিবেশের বিষয়টি উল্টিয়ে রাখা হয়। সরকারের উচিত বিষয়টিকে নিয়ে নতুনভাবে চিন্তা করা। কারন পরিবেশ নিয়ে, ইছামতি নিয়ে কথা উঠলেই বিশেষ শ্রেনীর মতাদর্শীর কথা শুনতে হয়।একটি বাঁধ একটি নদীকে দ্বিখন্ডিত করে থেমে থাকেনি- হারিয়ে ফেলেছি শতেক খানি সংযোগ খালগুলোকেও। তাই সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের নিকট আবেদন ইছামতিকে বাঁচাতে হলে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে-নতুবা বঙ্গোয়া আজ জাগ্রত- কখন পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হবে ইছামতিকে, আর সেই সুযোগে দখল করা হবে প্রায় ৬৮ কিঃমিঃ ইছামতি নদীকে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ