আজ ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১০ই আগস্ট, ২০২২ ইং

চাঁদপুরে বেসরকারি শিক্ষকসহ মধ্যবিত্ত পরিবারে নীরব কান্না

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘমেয়াদি নোবেল করোনা ভাইরাস মহামারী মানুষকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে ফেলেছে।
দুই মাস পার হতে চললো বাংলাদেশে এই মহামারীর প্রাদুর্ভাব।
প্রথম আক্রান্ত জেলা ঢাকা। এরপর বিভিন্ন জেলা। চাঁদপুর জেলায় প্রথম আক্রান্ত ৯ এপ্রিল তারিখে হলেও করোনার সংক্রমণ রোধে কার্যক্রম শুরু হয়েছে অনেক আগ থেকেই। মার্চের শেষ দশক থেকে করোনা প্রতিরোধ কার্যক্রম এই জেলায় বেশ জোড়ালোভাবে শুরু হতে থাকে।
২৪ মার্চ থেকে শুরু হয়ে যায় বলতে গেলে অঘোষিত কারফিউ।
তখন থেকেই সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায় এবং মানুষের চলাচলের উপর বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়। এরপর থেকেই মানুষ অনেকটা বেকার হয়ে পড়ে। সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আরো আগেই বন্ধ হয়ে যায়। সরকারি বন্ধ কয়েক দফা বাড়ানো হয়।

করোনায় আক্রান্ত দেশের দ্বিতীয় শীর্ষ জেলা নারায়ণগঞ্জ থেকে যখন মানুষ দল বেঁধে চাঁদপুর ঢুকতে থাকে, তখন জেলা প্রশাসক চাঁদপুর জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেন।
গত ৯ এপ্রিল থেকে চাঁদপুর জেলা লকডাউনের আওতায় পড়ে যায়। আর এ রাতেই প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় চাঁদপুর জেলায়। করোনাভাইরাসের এই পরিস্থিতিতে নানা পেশার মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে।
বিশেষ করে মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষগুলো পড়ে চরম বিপাকে। সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্বল্প পুঁজির ব্যবসায়ীরা যেমন টানাপোড়েনের মধ্যে পড়ে যান, তেমনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীরাও খুবই দুরবস্থার মধ্যে পড়ে যায়।
ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, কর্মচারীদের কর্মও বন্ধ। তাই বেতনও বন্ধ। বেকার হয়ে পড়ে এই বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী। কোনোরকমভাবে তারা মার্চ মাসটি পার করলেও এপ্রিল থেকেই শুরু হয়ে যায় প্রতিটি পরিবারে অভাব অনটন।

একইভাবে বেসরকারি তথা নন এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক এবং কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষকরা অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পড়ে। তাদের বেতন ভাতা সবই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয় নির্ভর।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্টকালের জন্যে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়ে।
তাদের বেতন ভাতা সব বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি বাসা-বাড়ি, কোচিং সেন্টারে যে প্রাইভেট এবং ব্যাচ পড়াতো, তাও বন্ধ হয়ে যায়। এমন অনেক পরিবার আছে যে শুধুমাত্র প্রাইভেট টিউশনির ইনকাম দিয়ে তাদের সংসার চলে।
কিন্তু, করোনা পরিস্থিতিতে সব বন্ধ। তাদের পরিবারে নীরব কান্না চলছে। তারা মানসম্মান এবং লোক লজ্জার ভয়ে কারো কাছে নিজের অভাব অনটনের কথা বলতেও পারছে না। পরিবারের সদস্য স্ত্রী, সন্তান, বাবা-মার মুখের দিকে তারা তাকাতে পারছেন না।
তাঁরা ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছেন। এ কান্না যে কী কষ্টের, কী অব্যক্ত যন্ত্রণার, তা ভুক্তভোগী ছাড়া অপর কেউ বুঝতে পারবে না। মধ্যবিত্ত পরিবারের এমন কিছু মানুষ কথা বলেন এই আমাদের সাথে।
তখন তারা তাদের কিছু দুঃখ দুর্দশার কথা জানান। জানাতে গিয়ে তাঁরা ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে থাকেন।

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি সহায়তাসহ ধনাঢ্য কিছু ব্যক্তির সহায়তা একটি শ্রেণীর মানুষই পাচ্ছে, যাদের অভাব প্রকাশ্যে দেখা যায়।
কিন্তু, লোকচক্ষুর অন্তরালে থাকা ওই মানুষগুলোর অভাবের কথা অনেকেই জানেন না।
তাই প্রত্যেকটি ননএমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং কিন্ডারগার্টেনের তালিকা অনুযায়ী শিক্ষকদের পাশে দাঁড়ানো এখনই জরুরি হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি একইভাবে অন্য পেশার মানুষ যারা বেকার হয়ে পড়েছে, এলাকাভিত্তিক তাদের একটি স্বচ্ছ তালিকা করে তাদের পাশেও এখনই দাঁড়ানো জরুরি হয়ে পড়েছে। সব ধরনের সাহায্য প্রদানকারী সংস্থা এবং ব্যক্তিকে এই বিশেষ দিকে গুরুত্বের সাথে নজর দেয়া খুবই জরুরি বলে মনে করেন সচেতন মহল।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ