আজ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সমুদ্র মন্হন – সনাতনধর্মের ইতিহাস ও আমাদের শিক্ষণীয় উপাদেয়

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কশ্যপ ঋষির দুই পত্নী- দিতি ও অদিতি। দিতি থেকে জন্মগ্রহণ করল দৈত্যরা আর অদিতি থেকে ইন্দ্র, পবন, আদিত্য, বিষ্ণু, বরুণ, অগ্নি, প্রভৃতি দেবতারা। সৃষ্টির পর থেকেই সৎ ভাইদের মধ্যে সম্পর্ক খুব মধুর ছিল না। নিজের ভাইরাই সুবিধা পেলে ঠকাতে চায়। সৎ ভাইদের তো কথাই নেই।
দুর্বাসার অভিশাপে অহংকৃত দেবরাজ ইন্দ্র হলেন লক্ষ্মীছাড়া। লক্ষ্মীদেবী সাগরের অতলতলে অন্তর্হিত হলেন। ত্রিভুবন হলো অন্নহীন, ঐশ্বর্যশূর্ন, শ্রীবিহীন।
দেবতারা পড়লেন বিপাকে। তাঁরা দৈত্যদের সাহায্য নিতে বাধ্য হলেন। অবশ্য লক্ষ্মীদেবীর অন্তর্ধানে ত্রিভূবনের সকলেই বিপন্ন। পেতে খাদ্য না থাকলে দেহ হয় নির্জীব, মস্তিষ্ক হয় নিষ্ক্রিয়। সুতরাং সমুদ্রমন্হন করে লক্ষ্মীদেবীকে তাঁর আসনে সুপ্রতিষ্ঠাা করাই স্হির হলো। সাগর অনন্ত অসীম অগাধ। তা মন্হন করার ব্যবস্হাও হলো অভিনব। মন্দর পর্বত হলো মন্থনদণ্ড। সহস্র ফণাযুক্ত একশত যোজন লম্বা শেষ নাগকে করা হলো রশি। এই রশির মাথার দিক দেবতারা এবং লেজের দিক দানবরা ধরে মন্হন করে সমুদ্র থেকে লক্ষ্মীদেবী, কৌস্তুুভ মণি, চন্দ্র, পারিজাত, ঐরাবত হাতি, ঘোড়া, অমৃত ও বহু মণিমাণিক্য রত্ন উদ্ধার করলেন। লক্ষ্মীদেবী বৈকুন্ঠে গেলেন, কৌস্তুুভমনি নারায়ণের গলায় শোভা পেলো। পারিজাত, হাতি ও ঘোড়া পড়লো ইন্দ্রের ভাগে।
বিবাদ বাধলো অমৃত নিয়ে। দেবতারা ভাবলেনঃ সর্বনা! দৈত্যরা যেমন গোঁয়ার, তেমনি বলবান। বৃত্র একবার স্বর্গ একবার স্বর্গ লখল করে নিয়েছিল। দধীচি মুনি দয়া করে যোগের দ্বারা দেহত্যাগ করে হাড়গুলো দিতে রাজি হয়েছিলেন বলে বজ্র তৈরি করে বৃত্রকে বধ করা সম্ভব হয়েছে।
আরেক বারের কথা। দৈত্যরাজ বলি সৈন্য-সামন্ত নিয়ে স্বর্গ দখল করে বসলেন। স্তবস্তুুতি করে বিষ্ণুকে প্রসন্ন করা হলো। বিষ্ণু বামনরুপে জন্মগ্রহণ করে কৌশলে স্বর্গ উদ্ধার করে বলিকে পাতালে বন্দী করে রাখলেন।
সুতরাং দানবদের অমৃতের ভাগ দিয়ে অমর হতে দেওয়া চলে না। বিপদে মধুসূদ! বিষ্ণু স্বয়ং মোহিনী মূর্তি ধারণ করলেন তাঁর অপূর্ব সৌন্দর্যে ত্রিভুবন মোহিত হয়ে গেল। তিনি বললেনঃ হাজার হোক দেবতারা বড় ভাই। তাঁরা আগে খেয়ে নিন। তারপর দৈত্যরা ভোজনে বসবেন।
দানবদের দেহ ছিল প্রকান্ড, মাথা ছিল মোটা। অপরুপ রুপবতী নারীমূর্তি দেখে বোকা দৈত্যদের মাথা ঘুরে গিয়েছিল। তারা সহজেই রাজি হলো।
দেবতারা খেতে বসলেন। মোহিনী মূর্তিতে বিষ্ণু স্বয়ং পরিবেশন করতে লাগলেন। এদিকে সিংহিকার পুত্র রাহু বুঝলেন দৈত্যদের বঞ্চিত করার এটা একটা ষড়যন্ত্র। তিনি দেবতার মূর্তি ধরে সকলের সঙ্গে বসে পড়লেন। দেবতারা অমৃতের আস্বাদ গ্রহণে ব্যস্ত ছিলেন। চন্দ্র ও সূর্যের চোখকে কিন্তুু ফাঁকি দিতে পারেননি। তাঁরা বললেনঃ ঐ যে কে একজন দেবতাদের সঙ্গে বসেছে। দেবতার মতো অনেকটা দেখতে হলেও দেবতার দীপ্তি তার মধ্যে নেই। দেবতার ছায়া পড়ে না। দেখুন, দেখুন,তার ছায়া পড়েছে। দেবতারা কখনও ভূমি স্পর্শ করেন না,একটু উঁচুতে থাকেন। এর আসন দেখুন মাটিতে। সঙ্গে সঙ্গে মোহিনী মূর্তিরুপী বিষ্ণু সুদর্শন চক্রকে আদেশ দিলেন – মুন্ডচ্ছেদ কর।
কিন্তু যেটুকু সর্বনাশ তা আগেই ঘটেছে। অমৃত রাহুর কন্ঠ পর্যন্ত স্পর্শ করেছিল। রাহুর দেহ ও মাথা আলাদা হয়ে গেল বটে কিন্তু মুন্ডু ও ধড়ের মৃত্যু ঘটলো না। মাথার নাম হলো রাহু, দেহের নাম হলো কেতু। কাম-মোহিত ক্রৌঞ্চকে বধ করে ব্যাধ অভিশাপগ্রস্ত হয়েছিল। আর রাহুর ভোজনে বাদ সাধার জন্য গ্রহণের সময় সূর্য ও চন্দ্রের উপর ছায়া পড়ে – তাঁরা নিষ্প্রভ হন, তাঁদের তখন কিছু অংশ, কখনও সম্পূর্ণই অন্ধকারে ডুবে যায়।
রাহু ও কেতু নবগ্রহের দুটো গ্রহের সম্মান লাভ করেন । এভাবে এক ভাই অন্য ভাইকে চিরদিন ভাগ বাটোয়ারায় ফাঁকি দিয়েছে, বঞ্চিত করে এসেছে – ফল ভালো হয়নি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ