আজ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

সরাইলের জয়ধরকান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৪ বছর যাবৎ বন্ধ প্রশাসন নীরব

 

হাসনাত কাইয়ূম,সরাইল প্রতিনিধি :

 

সরাইলের পাকশিমূল ইউনিয়নের জয়ধর কান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রটি ৪ বছর যাবৎ বন্ধে প্রশাসনের নীরব ভূমিকা । চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাত গ্রামের প্রায় ১২ হাজার জনগোষ্ঠী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সরাইল উপজেলার পাকশিমুইল ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ও প্রত্যন্ত অঞ্চল জয়ধর কান্দী গ্রামে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রটি অবস্থিত। কেন্দ্রটি চালু হওয়ার পর থেকে গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত মানুষ চিকিৎসা সেবা নিয়মিত ভাবে গ্রহণ করলেও অদ্য ৪ বছর যাবত কেন্দ্রটি বন্ধ থাকায় চিকিৎসা সেবা হতে বঞ্চিত হচ্ছে জয়ধরকান্দী এলাকার রিমপুর, কদরপুর,কাসেমপুর, তেলি কান্দী, শিমূল কান্দী,বাঘী,মহিষবেড় এই সাত গ্রামের জনসাধারণ।

উপজেলার জয়ধর কান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র উপসহকারী মেডিকেল অফিসার বিশ্বনাথ অাচার্য্য ও পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকা জুমা আক্তার নিয়মিত স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে আসলেও দুজনে যথাক্রমে অবসর ও বদলী জনিত কারনে পদ ২ টি শুন্য হলে গত ৪ বছরে কোন দায়িত্বশীল ব্যাক্তি যোগদান করিনি জয়ধর কান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে। তালা ঝুলে আছে ৪ টি বছর। উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে বার বার যোগাযোগ করেও কোন সুফল পাচ্ছেন না গ্রামবাসী। জয়ধরকান্দী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্রে উপসহকারী মেডিকেল অফিসার ও পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকা পদায়ন করে পূনরায় কেন্দ্রটি চালু করে চিকিৎসা সেবা দিতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সু দৃষ্টি কামনা করছেন ভূক্তভোগী গ্রামবাসী।

এব্যাপারে জয়ধরকান্দী গ্রামের ইউপি সদস্য মোঃ সালাউদ্দিন বলেন বিশ্ব ডাক্তার যাওয়ার পর এখানে আর কোন ডাক্তার আসেনাই। ৪ বচর যাবত হাসপাতাল টি বন্ধ। উপজেলায় এ নিয়ে বহু যোগাযোগ করেছি কোন ফল পাইনি। শুনছি একজন ডাক্তার নিয়োগ দিছে কিন্তু কোন দিন আসে নাই। জয়ধরকান্দীর লোকজন অসুস্থ হলে মরা ছাড়া কোন গতি নাই।

এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃমোঃ নোমান মিয়া বলেন কিছু দিন আগে একজন চিকিৎসক এখানে যোগদান করেছে করোনা পরিস্থিতির জন্য সপ্তাহে একদিন ডিউটি করছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ