আজ ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

অচেনা এক মে দিবস

 

ব্যারিস্টার ইমাম হাসান ভূইয়া

আজকে মে দিবস বা ১লা মে যেটা কিনা আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস যা সচরাচর মে দিবস নামে অভিহিত। প্রতি বছর পয়লা মে তারিখে বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হয়। এটি আন্তর্জাতিক শ্রমিক আন্দোলনের উদযাপন দিবস। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শ্রমজীবী মানুষ এবং শ্রমিক সংগঠনসমূহ রাজপথে সংগঠিতভাবে মিছিল ও শোভাযাত্রার মাধ্যমে দিবসটি পালন করে থাকে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ৮০টির বেশি দেশে পয়লা মে জাতীয় ছুটির দিন হিসেবে পালিত হয় ।

কিন্তু ২০২০ সালের এই মে দিবস যেন ভিন্নরকম, না চাইতেও পৃথিবীর প্রায় ২১০ টির বেশি দেশ অনিচ্ছাকৃত ছুটি কাটাচ্ছে। বিশ্বের সব পেশার শ্রমজীবী মানুষ যাদেরকে আমরা ইংরেজীতে “হ্যান্ড টু মাউথ ” পিপল বলি তারা এবং বাংলাদেশসহ বিশ্বের যে সব দেশ রফতানি নির্ভর, সেইসব দেশের শ্রমিকরা যেন জীবিকা ভুলে গিয়ে জীবন বাঁচাতে ব্যস্ত। দু বেলা দু মুঠো আহার এখন সবার একমাত্র মৌলিক অধিকার এবং রাষ্ট্র যন্ত্র থেকে একমাত্র আবদার। আর সেই আবদার ও এখন মিটাতে হিমশিম খাচ্ছে পৃথিবীর সব অর্থনৈতিক পরাশক্তি। শুধু এক যুক্তরাষ্টে প্রায় ৩ কোটি মানুষ বেকার। গত একশো বছরে ধীরে ধীরে প্রস্তুত এই আধুনিক মানব সমাজ যেন এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় ছিল একদম অপ্রস্তুত।

পৃথিবীর অন্য সব দেশের মত বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের ক্ষতির শিকার হচ্ছে কারখানার মালিকগণ, যেটা প্রকারন্তরে ক্ষতি পুরো রাষ্ট্র ব্যবস্থার। এই উভয়সংকটের মুহূর্তে বাংলাদেশ সরকার কিছু গুরুত্বপূর্ন প্রদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু বিশ্বের সকল ক্ষমতাধর রাষ্টের মত কিছুটা কাজে লাগছে কিছুটা আপাদদৃষ্টিতে পর্যাপ্ত মনে হচ্ছে না। শ্রমিকদের জন্য বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ প্রণয়ন হয় বেশ আগেই। এরপর সময়ের সাথে গঠিত হয়েছে অনেক শ্রমিক সংগঠন ও প্রেসার গ্রূপ। কিন্তু যখন রফতানি অদেশের স্বল্পতার শঙ্কার হাতছানি দেখা দিচ্ছে, তখন কোনো টোটকা যেন সামগ্রিক সমাধানের আশ্বাস দিতে পারছে না।

শ্রম আইন ২০০৬ এর ধারা ২০ এ স্পষ্ট বলা আছে যে কোনো শ্রমিককে প্রয়োজনের অতিরিক্ত বলে ছাটাই করা যাবে না। আরো বলা আছে কোনো শ্রমিক যদি নিরবচ্ছিন্নভাবে ন্যূনতম ১ বছর কাজ করে তাহলে সেই শ্রমিককে ছাটাই করতে হলে নিম্নবর্ণিত শর্ত মানতে হবে- (ক) কারণ উল্লেখ পূর্বক ১ মাসের নোটিশ অথবা ১ মাসের মজুরি প্রদান নোটিশের পরিবর্তে নোটিশের মেয়াদ এবং (খ) ক্ষতিপূরণ বাবদ প্রত্যেক বছর চাকুরীর জন্য ৩০ দিনের মজুরি অথবা গ্রাচুইটি যেটা অধিক সেটা দিতে হবে।

শ্রম আইন ২০০৬ এ আরো বলা আছে বিনা নোটিশে শ্রমিক ছাটাই করা যাবে শুধুমাত্র নিম্নোক্ত কারণে- ১) ধারা- ১৬ (৭) অনুযায়ী লে-অফের কারণে, ২) ধারা- ২৩ অনুযায়ী ফোজদারী অপরাধে দ্ণ্ডপ্রাপ্ত হলে, ৩) ধারা- ২৪ অনুযায়ী অসদাচরণ চুরি, ঘুষ গ্রহণ ইত্যাদি।

কিন্তু সারাবিশ্ব যখন ঘরবন্দী এবং আদালতসূমহ যখন বন্ধ তখন এই আইনের বাস্তবায়ন যেন অতীতের যেকোনো সময় থেকে কঠিন হয়ে পড়েছে। মিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল হওয়ার পর যখন মালিকেরা নতুন কাজের সন্ধানে, তখন বসিয়ে শ্রমিকদের বেতন দিতে যেন অনেকের অনাগ্রহ। সরকার এইসব পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিয়েছে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রণোদনার ব্যবস্থা, তারপরেও যেন কিছু, বিশেষ করে যেই সব কারখানা সরাসরি বিজিএমইএ বা বিকেএমইএ সদস্য নয়, তারা যেন সরকারের এই নির্দেশ মানতে নারাজ আর সেই জন্যই শুনা যাচ্ছে কিছু টেলিফোনে শ্রমিক ছাটাই এর ঘটনা ও শ্রমিক অসন্তোষ।

কিন্তু করোনার এই মহামারী যা সকল পেশাজীবীর পেশা পরিচালনা করে দিয়েছে প্রায় অসম্ভব, তৈরী পোশাক কারখানা বহন করছে একটি বিশেষ গুরুত্ব। আর সেই জন্যই সকল শিল্পাঞ্চলে অতি শীগ্রই একটি করে “কমপ্লেইন সেল” ও করোনার মত ২৪/৭ “হটলাইনে নাম্বার” শ্রম পুলিশের নিয়ন্ত্রণে গঠন ও পরিচালনা এই মহামারীর সময়ের জন্য দেশের অর্থনৈতিক চাকাকে সচল রাখতে একটি অতি জরুরি প্রদক্ষেপ। প্রণোদনার পাশাপাশি সরকার যদি অতি দ্রুত এই প্রদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে তাহলে থেমে যাবে অনেক শ্রমিক অসন্তোষের নামে ভাঙচুর, হয়তো বেঁচে যাবে আমাদের অর্থনীতি, হয়তো বেঁচে যাব আমরা সবাই এবং আমাদের বাংলাদেশ।

লেখক: ব্যারিস্টার ইমাম হাসান ভূইয়া, আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ