আজ ২৬শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৯ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

ইমাম, মুয়াজ্জিন, খাদেমদের পাশে হাজী মোশারফ খাঁন

 

এনামুল হক শামীম:

আশুলিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী মোহাম্মদ মোশাররাফ খাঁন নিজ তহবিল থেকে আশুলিয়া ইউনিয়নের ৩ নং ও ৪ নং ওয়ার্ডের ৭ টি গ্রামের প্রায় ২০ টি মসজিদ-মাদ্রাসার ইমাম, মুয়াজ্জিন, খাদেমদের প্রায় ৬০ জনের মাঝে ২৫ এপ্রিল শনিবার ১লা রমজান, রমজান উপলক্ষে বিশেষ খাদ্য সামগ্রী উপহার হিসেবে বিতরণ করেন।

এসময় সারা বিশ্বের বর্তমান করোনা মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত মানবজাতির জন্য ও সারা বাংলাদেশে প্রতীয়মান বর্তমান সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য বিশেষ মোনাজাত পরিচালিত হয়,

এ সময় বিশেষ সাক্ষাৎকারে হাজী মোশারফ খাঁন বলেন, “বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য সারা বাংলাদেশে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে স্কুল-কলেজ মসজিদ-মাদ্রাসা সহ সকল প্রকার অফিস-আদালত, ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ রাখা হয়েছে করোনাভাইরাস মোকাবেলার জন্য, প্রতিরোধ করার জন্য, তারই ধারাবাহিকতায় মসজিদ মাদ্রাসার সকল প্রকার নামাজের জামায়াত সীমিত করা হয়েছে, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে ইমাম সহ পাঁচজন, জুমার নামাজে ইমাম সহ ১০ জন এবং তারাবির নামাজে ইমাম সহ ১২ জন নির্ধারণ করা হয়েছে কিন্তু মসজিদের জুমার নামাজের কালেকশন ও তারাবির নামাজের কালেকশন দিয়ে মসজিদের ইমাম, খতিব, মোয়াজ্জিন ও খাদেমের বেতন সহ মসজিদের বিদ্যুত বিল, পানির বিল পরিশোধ করা হয় যা বর্তমান পরিস্থিতিতে খুবই কষ্টসাধ্য, প্রকৃতপক্ষেই মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন, খাদেমদের দিকে কারো নজর নেই, তারা খুব কষ্টের মাঝে দিনযাপন করছে অনেকেই। আমি সমাজের সকল জনপ্রতিনিধিদের বলবো সরকারি যে কোন বরাদ্দ থেকে তাদের যাতে একটি অংশ বরাদ্দ দেওয়া হয়, দেশের আলেম-ওলামাগণ কষ্টে থাকলে আসলে এটা দুঃখজনক, তাই আমার পক্ষ থেকে এটি তাদের জন্য একটি ক্ষুদ্র উপহার মাত্র, এটি কোন দান-দক্ষিণা নয়”

হাজী মোশারফ খান আরও বলেন, “বর্তমান পরিস্থিতিতে ঈদুল ফিতরের আগ পর্যন্ত এই সমস্ত সকল আলেম-ওলামা ভাইদের সাথে প্রতি সপ্তাহে একবার এভাবেই তাদের উপহার সামগ্রী দিয়ে যাব। এছাড়াও কারো যদি কোন ব্যক্তিগত সমস্যা থেকে থাকে আমাকে জানালে আমি সাধ্যমত চেষ্টা করব তাদের পাশে থাকার জন্য।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ