আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

ববির ক্যাফেটেরিয়ার খাবারে পলিথিন, স্বাস্থ্যঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

আব্দুল্লাহ জাইফ, ববি প্রতিনিধি:

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ক্যাফেটেরিয়ার খাবারে পলিথিন পাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে অভিযোগ দিলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। রবিবার (১৫ জানুয়ারি) সকালে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

সেদিন উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আয়শা সিদ্দিকা ও তার কিছু সহপাঠী ক্যাফেটিরিয়ায় সকালের নাস্তা করতে গেলে তাদের সাথে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলে জানা যায়, সকালের নাস্তা হিসাবে তারা ডাল ও পরাটা অর্ডার দেয়। তাদের সরবরাহ করা পরাটা খেতে গেলে হঠাৎ তারা একটি পরাটাই পলিথিনের একটি অংশ দেখতে পান।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আরো জানান, তারা ক্যাফেটেরিয়ার দায়িত্বে থাকা ঠিকাদারকে বিষয়টি জানালে, তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ বা জবাব দিতে পারেননি।

গতবছরের সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝিতে ঠিকাদার মনির ও পরিচালক জহির দায়িত্ব পায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ার ৷

দায়িত্ব পাওয়ার শুরু থেকেই শিক্ষার্থীরা নানা অভিযোগ আনে তাদের বিরুদ্ধে তন্মধ্যে সিঙাড়া খেতে গিয়ে সিঙাড়ার ভিতরের আলু বাসি, মাংসের ভেতর মাছেঁর কাটা , পরোটা ভাজিতে তেল না দেওয়া, নিম্নমানের খাবার পরিবেশন করা উল্লেখ্য ৷

ক্যাফেটেরিয়ার এসব বিষয় নিয়ে শিক্ষার্থীরা টিএসসির পরিচালক বরাবর প্রতিকার চেয়ে আবেদন করলেও তার ফলপ্রসূ উন্নতি হয় নি।

এ বিষয় সম্পর্কে ক্যাফেটেরিয়ার দায়িত্বে থাকা ঠিকাদার মনির প্রথমে বিষয়টি স্বীকার করেন। কিন্তু খাবারের ভিতরে কিভাবে পলিথিনের অংশ আসল জানতে চাইলে তিনি চুপ থাকেন।

খাবারের পলিথিনের বিষয় উল্লেখ করে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেলের সিনিয়র অফিসার ডা. মো. তানজিন হোসেন বলেন, পলিথিন স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ একটি পদার্থ।

এখন কেউ যদি খাবারের সাথে পলিথিন খেয়ে ফেলে তাহলে তার ডায়রিয়া, পেট ব্যাথা সহ আরো নানাবিধ রোগের সম্ভবনা রয়েছে। আর দীর্ঘদিন যদি এটা চলতে থাকে তাহলে এতে ক্যান্সারের ঝুঁকিও রয়েছে।

এ বিষয়ে ক্যাফেটেরিয়ার ম্যানেজার মোঃ রফিকুল ইসলাম সেরনিয়াবাত বলেন, আমি বিষয়টি সম্পর্কে জেনেছি। বিষয়টি জানার পরে আমরা নতুন ঠিকাদার আনার জন্য কাজ করছি।

বিষয়টি নিয়ে টিএসসির পরিচালক জ্যোর্তিময় বিশ্বাসের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি সাড়া দেননি ৷

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ক্যাফেটেরিয়ার এই অব্যবস্থাপনা আমরা গুরুত্বের সহিত দেখবো ৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো.ছাদেকুল আরেফিনের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি ৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ