আজ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

সাভার পাকহানাদার মুক্ত দিবস অরক্ষিত শহীদ টিটোর সমাধি

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯৭১ সালে ১৪ই ডিসেম্বর পাকিস্থানি পাকহানাদের পরাজিত করে বাংলার মানচিত্রে আরো একটি স্বাধীনভূখন্ডে জন্ম হয় সাভার । সেই দিন পাকসেনাদের গুলিতে গোলাম দস্তগীর টিটোর রক্তে রঞ্জিত হয়ে স্বাধীনতা পায় সাভার-আশুলিয়ার মাটি । সেই শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধার সমাধি অরক্ষিত ও অপরিষ্কারভাবেই থাকছে সারা বছর ।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে শহীদ গোলাম দস্তগীর টিটোর সমাধিতে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ শ্রদ্ধা জানাতে এসে অরক্ষিত ও ময়লার স্তুপ দেখে দুঃখ প্রকাশ করেন ।

শ্রদ্ধা জানাতে এসে কামরুল হাসান নামে এক ব্যক্তি জানান,‘যাদের জন্য আজ দেশ স্বাধীনতা লাভ করেছে । তাদের সমাধীস্থল দেখার লোক থাকলেও অবহেলায় জমে আছে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ’ বলে জানান তিনি ।

অন্যদিকে শ্রদ্ধা আসা অপর ব্যক্তি প্রদীপ জানান ,‘ আজ সাভার হানাদার মুক্ত দিবস । প্রতি বছরের ন্যায় আজ শহীদ গোলাম দস্তগীর টিটোর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছি । কিন্তু শ্রদ্ধা জানাতে এসে অরক্ষিত ও ময়লা আবর্জনার স্তুপ দেখে লজ্জা হচ্ছে বলে’ জানান তিনি ।

তবে দায়িত্বরত সাভার ডেইরী ফার্মের কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে দিবসটি উপলক্ষে কোনও পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি ।

এবিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক সমাধি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য আশ্বাস জানিয়েছেন।

উল্লেখ, ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর এই দিনে সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানাধীন জিরাবো এলাকার ঘোষবাগ মহল্লায় নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর নেতৃত্বাধীন একদল মুক্তিযোদ্ধা পাকিস্থানীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে । র্দীঘ সময় যুদ্ধ চলার পর এ পর্যায়ে পাকিস্থানী সেনার বাঙালী যোদ্ধারের দাপটে পিছু হোটতে শুরু করে । সে সময় বাঙালী যোদ্ধারা বিজয়ের উল্লাসে মেতে ওঠেন । এক পর্যায়ে পাক সেনারা পালাতে শুরু করলে যুদ্ধ অঙ্গণে বিজয়ের প্রফুল্লতায় মুক্তিযোদ্ধা গোলাম দস্তগীর টিটো লাফিয়ে ওঠেন । কিন্তু শেষ মুহূর্তে পিছু হোটা এক পাক সেনার গুলিতে রক্তে রঞ্জিত হয়ে ওঠে তার বুক । শহীদ হন তিনি ।

শত্রুমুক্ত ঘোষণা করা হয় সাভারকে। তার মহান এই আত্মত্যাগের কথা আজোও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে সাভারবাসী ।
পরে তাকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের সাভারের জাহাঙ্গীরনগর ডেইরিফার্ম গ্রেটের কাছে তাকে সমাধিস্থ করা হয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ