আজ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

নভেল করোনাভাইরাসে মাদারীপুরে আটকে পড়া শ্রমিক হেঁটে বরিশালে ফিরছেন

 

খান ইমরান:

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর দেশে প্রথমেই লকডাউন ঘোষণা করা হয় মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা। পরবর্তী সময়ে কালকিনি ও রাজৈর উপজেলাও লকডাউন ঘোষণা করে প্রশাসন। ইতিমধ্যে পুরো জেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এতে আটকা পড়েন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যাওয়া শ্রমিকরা। এর মধ্যে অধিকাংশের বাড়িই বরিশালে। কিন্তু থাকা-খাওয়ার সুষ্ঠু ব্যবস্থা না থাকায় লকডাউন অমান্য করে গোপনে প্রায় ৬০ কিলোমিটার পথ হেঁটে বরিশালে ফিরছেন তারা। এতে বরিশাল সদরসহ আশপাশের উপজেলায় বাড়ছে করোনা ঝুঁকি। শ্রমিকরা বলছেন, লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই তারা ঘরবন্দি রয়েছেন। হাটবাজার বন্ধ থাকায় কাজও নেই। এ অবস্থায় থাকা ও খাওয়া খরচ দিয়ে তাদের পক্ষে লকডাউন করা উপজেলাগুলোয় থাকা সম্ভব হচ্ছিল না। এজন্য করোনা ঝুঁকি জেনেও বাধ্য হয়ে বরিশালে ফিরছেন তারা। মাদারীপুরে ইটভাটায় কাজ করেন শ্রমিক ইব্রাহিম সরদার। তিনি বলেন, গত দুদিন ধরে শুধু পানি খেয়ে বেঁচে আছি। আমার মতো আরো ১০-১২ জন শ্রমিকের অবস্থাও একই। ক্ষুধার যন্ত্রণা আর সহ্য করতে পারছিলাম না, তাই জীবনের ঝুঁকি জেনেও গ্রামের পথে হেঁটে এসেছি। আমরা অন্য জেলার লোক, তাই কেউ ত্রাণ দেয়নি। এদিকে, মাদারীপুরের পার্শ্ববর্তী জেলা বরিশাল হওয়ায় সেখানেও করোনার ঝুঁকি রয়েছে। এজন্য গত সোমবার বরিশালকে লকডাউন ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান। লকডাউন ঘোষণার পর অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীবাহী পরিবহনসহ ছোট ছোট যান চলাচল, সীমান্তবর্তী খেয়া নৌকা বন্ধ রয়েছে। এছাড়াও সড়কপথে দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র প্রবেশপথ গৌরনদী উপজেলার ভুরঘাটা বাসস্ট্যান্ডে বসানো হয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা চৌকি। বরিশালে প্রবেশ করতে এত কঠোরতার পরও থামানো যাচ্ছে না বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়া শ্রমিকদের। প্রতিদিনই করোনার ভয়কে উপেক্ষা করে নদীপথ কিংবা স্থলেপথে গোপনে নিজ বাড়িতে ফিরছেন অসংখ্য মানুষ। গতকাল সরেজমিনে সড়কপথে বরিশাল বিভাগের প্রবেশদ্বার গৌরনদী উপজেলার সীমান্তবর্তী ভুরঘাটা বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকি দেখা গেছে। ওই নিরাপত্তা চৌকি দিয়ে অপ্রয়োজনীয়ভাবে কেউ ঢুকতে না পারলেও ভুরঘাটা ব্রিজের পশ্চিম পাশে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। কেউ গামছা পরে কিংবা লুঙ্গি পরে বাড়ি ফেরার জন্য ভুরঘাটার খাল পাড়ি দিচ্ছেন। ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা এসব ঘরমুখো মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কর্মস্থলে থাকা-খাওয়ার পরিবেশ না থাকায় তারা বাধ্য হয়ে বাড়ি ফিরছেন। শিবচরে একটি ইটভাটায় কাজ করেন উজিরপুর উপজেলার বাসিন্দা মনসুর আহমেদ। তিনি বলেন, দেশে নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর আমরা ঘরবন্দি হয়ে আছি। এ অবস্থায় না আছে কাজ, না আছে টাকা। এতদিন জমানো টাকা দিয়ে চলেছি। কিন্তু এখন আর পারছি না। গত দুদিন ধরে না খেয়ে আছি। এ অবস্থায় করোনায় মরার আগে না খেয়েই মারা যাব। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ক্ষুধার কাছে হেরে এসব শ্রমিক বরিশালে ফিরছেন। ক্ষুধার যন্ত্রণায় করোনার ভয় তাদের মধ্যে নেই। তারা বাড়িতে ফিরে নিজে যেমন বিপদে পড়ছেন, তেমনি আপনজনদের বিপদে ফেলার আশঙ্কা রয়েছে। তবে কর্মস্থলে থাকা-খাওয়ার পরিবেশ থাকলে কেউই ঘরমুখো হতেন না। এসব বিষয়ে জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বলেন, করোনা ঝুঁকি এড়াতে আমরা আগেই লকডাউন ঘোষণা করেছি। আমরা চেষ্টা করছি সাধারণ মানুষকে ঘরে রাখার। তার পরও যদি কেউ লকডাউন লঙ্ঘন করে জেলায় প্রবেশ করার চেষ্টা করেন, তাহলে আমরা ব্যবস্থা নেব। তবে মাদারীপুর থেকে শ্রমিকদের আসার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আপনাদের মাধ্যমে জানলাম। খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ