আজ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

আশুলিয়ায় ককটেল ফুটিয়ে আড়াই লাখ টাকা ছিনতাই

সাভার প্রতিনিধি :

ঢাকার আশুলিয়ায় ফিল্মি কায়দায় ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং রকেটের এক সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভকে অস্ত্র দেখিয়ে টাকার ব্যাগ নিয়ে গেছে ছিনতাইকারীরা। এসময় চারটি ককটেল ফাটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা।

সোমবার (৮ আগস্ট) বিকাল ৩ দিকে আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়নের পাড়াগ্রামে শাখা সড়কে এই ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী হলেন-ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং রকেটের এক সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ ও ধামরাইয়ের কুশুরা ইউনিয়নের শহিদুল ইসলামের ছেলে শাহিন আলম।

ভুক্তভোগী শাহিন বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় আমি এজেন্টদের টাকা রিচার্জ করতে যাই। প্রথম কুশুরা থেকে আমরা টাকা নেই পরে বান্নারখোলা যাই। সেখানে কিছু লেনদেন করে আশুলিয়ার আমতলার দিকে যাই।

সেখানে কাজ শেষ করে পাড়াগ্রামের দিকে রওনা হই। কিছুদুর যেতেই দুটি মোটরসাইকেল এসে আমাদের মোটরসাইকেল গতিরোধ করে ও লাথি দিয়ে আমাদের ফেলে দেয়।

পরে পিস্তল দেখিয়ে আমাদের ভয় দেখিয়ে টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে দুটি ককটেল ফাটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে। এর পর আমতলা স্ট্যান্ডে গিয়ে আবার দুটি ককটেল বিস্ফোরণ করে পালিয়ে যায়। এঘটনায় আমাদের এমডি শেরআলী হোসেন থানায় ইনফর্ম করলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ধামরাই থানা পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, আমার সাথে আরেক সহকর্মী সামাদ হোসেন ছিলেন। তিনিও ভয়ে কিছু বলকে পারেন নি। দুই মিনিটের মধ্যে সিনেমা স্টাইলে আমাদের কাছ থেকে আড়াই লাখ টাকা ছিনতাই হয়ে যায়।

ধামরাই কালামপুরে ডাচ বাংলা ব্যাকের মোবাইল ব্যাংকিং এর রকেট এজেন্টের মালিক শেরআলী বলেন, প্রথমে ধামরাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। তদন্ত করে জানায় ঘটনাটি আশুলিয়া থানার অধীনে। পরে আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

এ বিষয়ে ধামরাই থানার এস আই জসিম হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেছি। পরবর্তীতে ঘটনাটি আশুলিয়া থানার অধীনে হওয়ায় ভুক্তভোগীদের সেই থানায় অভিযোগ করার পরামর্শ দেই।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম বলেন, আমরা বিষয়টি খবর পেয়েছি। ভুক্তভোগীরা অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত করে আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ