আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

লক্ষ্মীপুরে গুচ্ছ গ্রামে এখনও পৌঁছেনি ত্রাণসামগ্রী

 

মোঃ হৃদয় হোসেন লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

লক্ষ্মীপুরের কালিরচর আশ্রায়ণ প্রকল্পে বসবাসরত বাসিন্দাদের জন্য এখনও সরকারি-বেসরকারি কোনো ত্রাণসামগ্রী পৌঁছেনি। এতে কর্মহীন মানুষ গুলো গৃহবন্দী হয়ে মানবেতর জীবন কাটে। এ পল্লীতে ৯০টি পরিবারের প্রায় সাড়ে ৪’শত মানুষের বসবাস।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল বলেছেন পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রী আছে। খুব শীঘ্রহী ত্রাণ পৌঁছে যাবে বলেই মুঠোফোনে এ প্রতিবেদক মোঃ রুবেল হোসেনকে নিশ্চিত করেন।

আশ্রয়ণ প্রকল্পটি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ২১নং টুমচর ইউনিয়নের কালিচর গ্রামে অবস্থিত। ২০১২ সালে বাংলাদেশ সরকার সেনাবাহিনী তত্ত্বাবধানে এ আশ্রম কেন্দ্রটি নির্মিত হয়।

এতে গৃহহীন ও নদী ভাঙা মানুষ গুলো এ গুচ্ছ গ্রামে বসবাস করতে শুরু করে।

গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ৮ বছর ধরে জনপ্রতিনিধিদের প্রতিশ্রুতি চারদিক থেকে আমাদেরকে ঘিরে রাখছে। কখনও সরকারি-বেসরকারি সাহায্য সহযোগী এ পল্লীতে আসেনি। টেলিভিশন খুললে দেখি সবদিকে সরকার ত্রাণ দেয় । জীবনে আরকত ভাগ্যপরীক্ষা আল্লাহ আমাদেরকে দিবে। অভাব আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। এ পল্লীর প্রায় ২০’জন নারী ভিক্ষা করতেন গ্রামে-গ্রামে। এখন করোনা-ভাইরাসের কারণে কেউ আর ভিক্ষা দেয় না। মানুষের বাড়িতে গেলে ভিক্ষা থাক দূরের কথা অশ্লীল আচারণ ও মারধর করে।

ইতিমধ্যে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বর গন তালিকা করেছে। সামাজিক দূরত্ব ও মানছেন না এখনকার জনগণ।

জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু তাহের বলেন, গুচ্ছ গ্রাম বাসিন্দারদের তালিকা করা হয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যে তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হবে।

টুমচর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ নরুল আমিন লোলা বলেন, সীমিত বরাদ্দ তাই এ ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে হিমশিম খেতে হয়। আশাকরি এবার গুচ্ছ গ্রামবাসীর মাঝে ত্রাণ পৌঁছানো হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ