আজ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই আগস্ট, ২০২২ ইং

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে দাড়াতে ট্রফি নিলামে

সাজন বড়ুয়া সাজু:

শাহেদা আলম রিপা,বলা চলে বাংলাদেশ নারী ফুটবলের নবজাগরণের এক অগ্রদূত, এই তো সেদিন মাঠের গন্ডি পেরিয়ে দেশের হয়ে বিদেশের মাটিতে লাল সবুজের জার্সি গায়ে দেশকে এনে দিয়েছিল অনন্য এক কীর্তি।

বাংলাদেশ অর্জন করেছিল সাফ অনুর্ধ-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপ কাপ,নিজের প্রতিভার জানান দিয়ে লুফে নিয়েছিল টুর্নামেন্ট সেরা ও সেরা গোলদাতার পুরস্কারও,, এখন পর্যন্ত জীবনে যা কিছু অর্জন তারমধ্যে রিফার সবচেয়ে বড় অর্জন এটিই।

তবে এবার সাফজয়ী খেলোয়াড় শাহেদা আক্তার রিফা তার ব্যাক্তিগত ফেইজবুক পেইজে জানালেন তার অর্জন সেরা গোলদাতার ট্রফিটা নিলামে তুলবে।যেখানে সে নিলামে যা পাবে তার সব অর্থ ব্যায় করবে সিলেটে বন্যায় কবলিত মানুষের জন্য।

তিনি নিজ ফেইজবুক পেইজে বলেন উক্ত সেরা গোলদাতার ট্রফিটি আমি নিলামে তুলতে চাই। যার সম্পুর্ণ অর্থ ব্যায় হবে সিলেটের বন্যার্ত মানুষের পাশে। কোনো দয়াবান ব্যাক্তি যদি এই মহৎ কাজের অংশীদার হোন তাহলে আমরা কিছুটা হলেও বন্যার্ত মানুষের পাশে থাকত পারবো।

আমার এই ট্রফিটা আমার বাড়িতে সৌকেছে রাখা আছে, হয়তো সারাজীবন থাকবে। কিন্তু কোনো মানুষের কাজে আসবে না।

এই মূহুর্তে সিলেটের সবচেয়ে বেশি যেটা দরকার সেটা হল সবার সহযোগিতা। আমি যদি সিলেটের পাশে একটু হলেও দাড়াতে পারি তাহলে তাহলে আপনাদের সবার প্রতি চির কৃতজ্ঞ থাকিব।

সাংবাদিক ভাইদের সহযোগিতা কামনা করছি।
বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে রিপার বড় ভাই ফারুক হোসেন বলেন, আমি আর আমার বোন রিপা মিলে এই সিদ্ধান্তটি নিয়েছি,এইক্ষেত্রে বিত্তবানদের সহযোগীতা কামনা করছি।

আশাকরি সবাই পাশে থাকলে সিলেটে বন্যায় কবলিত মানুষের জন্য সহযোগীতাপাব। এছাড়া রিপার ট্রফিটি বাড়ির শো-কেসে রাখা আছে বলেও জানান তিনি।

রিপার সে স্ট্যাটাসে দেয়ার সাথে সাথে তার এমন মহৎ এবং মানবিক উদ্যোগকে উদ্যোগ কে সাধুবাদ জানিয়ে অনেকেই মন্তব্য করেছেন।

স্ট্যাটাসের কমেন্টে সাংবাদিক আহসান সুমন লেখেন চমৎকার উদ্যোগ, তুমার বড় মনের পরিচয় প্রকাশ পেলো। পাশে আছি…
মোঃ আলাউদ্দিন নামে আরও এক যুবক লেখেন তুমি প্রত্যন্ত এলাকার একজন সাধারণ মেয়ে,কথায় আছে গ্রামের মানুষরা নাকি সহজ সরল।

যেটা তুমি পরিচয় করিয়ে দিলে,গর্ববোধ করি তোমার সুন্দর চিন্তার মহৎ এই উদ্যোগকে। শিক্ষা নেওয়া উচিত আমাদের,অর্জন বলতে যদি কিছু থেকে থাকে সেটি হচ্ছে ব্যক্তিত্বের মাধ্যমে মানুষের ভালোবাসায় মানুষের মাঝে হাজার বছর বেঁচে থাকা।

তোমার এই উদারতা,মানবিকতা,সুচিন্তা এবং মহৎ কৃতকর্মগুলো অনন্তকাল বাচিয়ে থাকুক।যে মহৎ কাজ চাইলে যে কেউ করতে পারেনা সেই কাজ তুমি করার উদ্যোগ নিয়েছ।তোমার এই সুচিন্তা এবং সঠিক পথে পথচলা সাফল্যময় ও দীর্ঘায়ু হউক।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ