আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ওমান প্রবাসীর কোটি টাকার বাগান বেদখল  হত্যার হুমকি

এইচ এম হুমায়ুন কবির, মাস্কাট ওমান।

জীবনের সব স্বাধ আহ্লাদ বিসর্জন দিয়ে প্রায় দুই যুগ ধরে ওমানে নিজের শ্রম বিক্রি করে জমানো টাকায় খাগড়াছড়িতে করেন নিজের শখের বাগান। স্থানীয় একটি চক্রের জবর দখলের কারণে বাগানটি হারিয়ে নিঃস্ব প্রায় তৌহিদুল আলম নামে এক ওমান প্রবাসীর।

কষ্টার্জিত অর্থ দেশে পাঠিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি নিজের জীবনকেও গোছানোর স্বপ্নে বিভোর ছিলেন এই প্রবাসী। কিন্তু স্থানীয় বনদস্যু শামসুল আলম ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচার বিষিয়ে তুলেছে এই অসহায় প্রবাসীর জীবনকে। সম্পদ হারানোর পাশাপাশি নিজের জীবনের নিরাপত্তা নিয়েও চরম উৎকণ্ঠা আর জীবননাশের ভয়ের মধ্যে দিন পার করছেন এই প্রবাসী।

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির রাংগামাটিয়া গ্রামের ওমান প্রবাসী তৌহিদুল আলম বর্তমান সরকার প্রবাসী বান্ধব সরকার হওয়া সত্ত্বেও একজন প্রবাসী হিসেবে দেশের প্রচলিত আইননুসারে সহায় সম্পদ রক্ষায় সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে সুবিধা পাওয়ার কথা থাকলেও, তা থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন।

খাগড়াছড়ি জেলার লক্ষীছড়ির পাহাড়ি বন থেকে তৌহিদুল আলমের প্রায় কোটি টাকার গাছ কেটে নিয়ে যায় স্থানীয় বনদস্যু শামসুল আলম ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। নিজের কোটি টাকার সম্পদ হারিয়ে ভুক্তভোগী বাংলাদেশ দূতাবাস ওমান ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় ও স্থানীয় থানায় অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি।

অবশেষে কোর্টের দ্বারস্থ হয়ে মামলা করেন বনদস্যু সামসুল আলমের বিরুদ্ধে। মামলার বিচারের রায় ঘনিয়ে এলে সন্ত্রাসী বাহিনী মামলা তুলে নিতে নানা ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে এমন অভিযোগ উঠেছে। মামলা না তুললে প্রাননাশেরও হুমকি দিচ্ছে বলে এমন অভিযোগ করে চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানায় আরও একটি সাধারণ ডায়েরী করেন ভুক্তভোগী।
পরিচয় গোপন রাখার শর্তে স্থানীয় পাহাড়ি বাসিন্দারাও এর সত্যতা স্বীকার করেন এবং সুবিচার পেতে সাংবাদিকদের এই অসহায় প্রবাসীর পাশে থাকার অনুরোধ জানান।

স্থানীয়রা জানান সামসুল আলম এলাকার খুবই প্রভাবশালী। বিভিন্ন অপকর্মের কারণে ইতোপূর্বে জেল ও খেটেছেন বেশ কয়েকবার। এব্যাপারে লক্ষীছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবীরের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমরা খোজ-খবর নিচ্ছি এবং আমরা এ বিষয়ে তৎতপর আছি। এব্যাপারে অভিযুক্ত সামসুল আলমের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কোনো সাড়া মেলেনি।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তৌহিদুল আলম বলেন-আমি ওমান কেন্দ্রীয় যুবলীগের আহ্বায়ক বংশগত ভাবেই আমরা আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত । দলের জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে আমাকে কিন্তু আজ জীবনের সব উপার্জিত অর্থ ব্যয় করে একটি বাগান করেছিলাম। কিন্তু একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আমার এই বাগানটির সব গাছ কেটে নিয়ে আমাকে নিঃস্ব করেছে। আমি আমার বিচারের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছি কিন্তু কোন বিচার তো পাচ্ছি না বরং জীবননাশের হুমকি কাঁধে নিয়ে কাটছে আমার প্রত্যেকটি মুহূর্ত। আমি একজন প্রবাসী হিসেবে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে এই ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে বিচার দাবি করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ