আজ ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

সাভারের জিনজিরা এলাকায় ত্রাণের দাবিতে রাস্তায় খেটে খাওয়া মানুষ ; খাদ্য সংকট চরমে

এইচ এম হুমায়ুন কবির (বিশেষ প্রতিনিধি)

 

খাদ্য সঙ্কটে সাভারের জিনজিরা এলাকার সাধারণ খেটে খাওয়া হতদরিদ্র মানুষ। ত্রাণের দাবিতে রাস্তায় নেমে এসে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ । অনেকেই বলছেন না খেয়ে আছে,আবার কারো কারো অভিযোগ ঘরে খাদ্য নেই দু’দিন। কেউ বলছেন স্থানীয় বিরুলিয়া ইউনিয়নের সুজন চেয়াম্যানের কাছে সাহায্যের জন্য গিয়ে তিন দিন ঘুরে ফেরত আসছি কিন্তু কোন সহযোগিতা পাইনি । ভুক্তভোগী এসব মানুষদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে এলাকার সামাজিক সংগঠন “আমরাও পারি” যোগাযোগ করলে জনপ্রতিনিধিরা কোন সদুত্তর দিতে পারেনি বলে জানান সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক কায়সার আহমেদ।

জানা যায় সাভারে জিনজিনরায় শনিবার বিকালে খাবারে জন্য বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসি। এবং অবরুদ্ধ হয়ে আছে গ্রামটি । টহল পুলিশেরর কারণে বাড়ি থেকে বের হতে গেলেও নানা ধরনের ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে সেখানকার বাসিন্দাদের ।

৩দিন ধরে সাভারে বিরুলিয়ার ইউনিয়নের স্থানীয় চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান সুজনের কাছে ত্রানের জন্য ভীর করলে খাবার পাঠানো হবে বলে ফিরেয়ে দেয় অভিযোগ করছে এলাকাবাসি ।
বর্তমানে সেখানে খাবারের তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। রবিউল ইসলাম বলেন, মুদির দোকান দিয়ে সংসার চালান। দোকানে শাক-সবজিও বিক্রি করেন। কিন্তু কয়েকদিন ধরে আর বিক্রি করছেন না। কারণ, যে পরিমাণ সবজি এবং অন্যান্য শুকনো খাবার তার দোকানে রয়েছে, আরেক মাস কোয়ারেনটাইন চলতে থাকলে নিজেদেরই খাবার সঙ্কট দেখা দেবে। সে কারণে দোকানের মালামাল বিক্রি করে ঝুঁকিতে পড়তে চান না। যেখানকার সবাই অনেকটাই বন্দি জীবন পার করছে।

হোম কোয়ারেনটাইনের ফলে অনাহারে মারা যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর । খাদ্যের দাবিতে রাস্তায় নেমে আসা নহেছা বেগম বলেন, আমি জানি না যে ঘরে থাকা এই খাবারটুকু শেষ হলে সন্তানদের জন্য কোন জায়গা থেকে খাবার পাবো।
একজন সাহায্য প্রার্থি বলেন, নিজের দেশে এখন নিজেকে শরণার্থী মনে হচ্ছে। কবে নাগাদ এই অবস্থা থেকে মুক্তি মিলবে, সে ব্যাপারে কোনো ধারণা নেই তার ।

খাদ্য সংকটে নাকাল জিনজিরা এলাকাবাসীর অভিযোগের ব্যাপারে বিরুলিয়ার ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে ব্যস্ততার অজুহাতে পরে যোগাযোগ করতে বলে ফোন কেটে দেন।
অন্যদিকে সাভার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজুর রহমান বলেন সাভারে কোন মানুষ না খেয়ে থাকবে না। খাবারের সঙ্কট হবে না । বিষয়টি আমি দেখছি ।

করোনার প্রাদুর্ভাবে নাকাল বিশ্ববাসী। চলমান এই পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মহামারী ঘোষণা করেছে বেশ কিছুদিন হলো। এই সময়ের মধ্যে গোটা দেশেই খাদ্যসামগ্রীর কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। মানুষের কর্মসংস্থান বন্ধ হয়ে গেছে। কোন কারনেই যাতে খেটে খাওয়া হতদরিদ্র মানুষ গুলো কষ্টের সম্মুখীন হতে না হয় সেজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রয়েছে কড়া নির্দেশনা। প্রধানমন্ত্রী তার দলের নেতাকর্মীসহ সমাজের বিত্তবানদের জাতির এই দুঃসময়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে গোটা দেশব্যাপী খাদ্য সামগ্রী গরীব অসহায় মানুষের মধ্যে বিতরণ অব্যাহত থাকলেও ব্যতিক্রম ঘটেছে শুধু সাভারের এই জিনজিরা এলাকায়।

সামান্য ত্রাণের জন্য স্বাধীনতার এত বছর পরে মানুষকে রাস্তায় নেমে আসতে হবে এমনটি কল্পনায়ও ভাবেননি বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্টদের কাছে এলাকাবাসী দাবি কোন রকম কালক্ষেপণ ছাড়াই বাংলাদেশের একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে তাদের খাদ্যসামগ্রীর ব্যবস্থা করে তাদের বাঁচার অধিকার নিশ্চিত করতে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ