আজ ২৪শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

কাঁচা রাস্তা ২ কিলোমিটার, ভোগান্তি ৪ হাজার মানুষের 

কে এম নজরুল ইসলাম : 
ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৬নং গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের খাজুরিয়া, হামচাপুর, হুগলি গ্রামের প্রায় দুই কিলোমিটার কাঁচা রাস্তার খবুই বেহাল দশা। বর্তমান সরকারের আমলে বহু বহু সড়ক পাকা করা হলেও এই সড়কটি আগের মতোই রয়ে গেছে। বর্ষাকালে রাস্তাটি চলাচলের পুরোপুরি অনুপযোগী হয়ে পড়ে। যার কারণে আশেপাশের এলাকার প্রায় ৪ হাজার মানুষকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়।
সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, লতিফগঞ্জ-উটতলি রাস্তার খাজুরিয়া গ্রামের ডা. ছফিউল্যা মীর সাহেবের বাড়ির দক্ষিণ পাশ হতে হুগলি ধোপা বাড়ি হয়ে ফরিদগঞ্জ ব্রহ্মপাড়া রাস্তা অভিমুখে প্রায় এই দুই কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা।
বর্ষাকালে বৃষ্টি শুরু হলে পায়ে হেটে যাওয়াও দুষ্কর হয়ে পড়ে। গ্রামগুলোতে প্রায় ৪ হাজারের অধিক মানুষ বাসবাস করেন। নানা প্রয়োজনে প্রতিদিনই মানুষকে ঘর থেকে বের হতে হয়। কিন্তু রাস্তার এমন অবস্থা হওয়ায় স্বাভাবিক চলাফেরা ব্যাহত হচ্ছে।
স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, এই গ্রামগুলোতে দুটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি হাই স্কুল ও একটি মাদ্রাসা ছাড়াও খাজুরিয়া, হামচাপুর, হুগলি গ্রামের হাজারও মানুষের প্রধান সড়ক হিসেবে এটি ব্যবহৃত হয়ে আসছে।
স্থানীয় শিক্ষার্থীরা জানায়, ‘আমাদের চলাচলের রাস্তাটা কাঁচা হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে স্কুলে যাওয়ার সময় পোশাক কাদায় নষ্ট ম হয়ে যায়। নির্দিষ্ট সময়ে বিদ্যালয়ে পৌঁছানো সম্ভব হয় না। যদিও করোনা পরিস্থিতির কারণে আমাদের বিদ্যালয় বন্ধ এতদিন বন্ধ ছিল, কিন্তু এই বর্ষাকালেই আবার স্কুল খুলে গেছে। বিগত বছরগুলোর ন্যায় ভোগান্তিতে পড়তে হবে এবছরও। রাস্তা পাকাকরণের দাবি জানাচ্ছি।’
স্থানীয় গণপরিবহন চালকরা জানান, ‘কাঁচা রাস্তার কারণে যাত্রাপথে অটোভ্যানের যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে অনেক দুর্ঘটনা ঘটছে। এতে আমাদের আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে এবং সময়ও নষ্ট হচ্ছে। এসব গ্রামের মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে খুব দ্রত রাস্তাটি মেরামত করা প্রয়োজন।’
স্থানীয় কৃষকরা জানান, ‘রাস্তার বেহাল দশার কারণে আমাদের কৃষি জমি থেকে উৎপাদিত ফসল বাজারে নিতে বেশি টাকা গাড়ি ভাড়া দিতে হয়। এতে করে আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। রাস্তাটি পাকা করা হলে এই অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নতি হবে।’
স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী শরীফ হোসেন বলেন, ‘রাস্তাটি খাজুরিয়া, হামচাপুর ও হুগলি গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার মানুষের প্রধান সড়ক হিসেবে দীর্ঘদিন ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বর্ষা মৌসুমে গ্রামের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের নানামুখী সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই আমি একজন সংবাদকর্মী হিসেবে মানুষের কথা চিন্তা করে অতি দ্রুত এই রাস্তাটি সংস্কারের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’
স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলার জন্য মোবাইলে কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তাদের ফোন বন্ধ থাকায় কোনো বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ