আজ ২৪শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

ঝালকাঠিতে সত্তরার্ধ স্বামীহারা বৃদ্ধাকে ইউএনও’র খাদ্য, বস্ত্র সহায়তা

ইমাম হোসেন, ঝালকাঠি প্রতিনিধি :

ঝালকাঠিতে সাংবাদিকের দেয়া পোষ্ট দেখে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ইউ এন ও ) সাবেকুন নাহার সত্তরার্ধ এক বৃদ্ধাকে খাদ্য ও বস্ত্র দিয়ে সহায়তা করেন। রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর দুপুর উপজেলা পরিষদ ভবনের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তার কার্যালয়ে ডেকে এনে তাকে এ সহায়তা করেন।

এ বিষয় ঝালকাঠি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেকুন নাহার জানান, ১৯ সেপ্টেম্বর সকাল আনুমানিক ১১ টায় ঝালকাঠির সাংবাদিক মো: মনির হোসেন কলেজ খেয়াঘাট এলাকা থেকে সত্তরার্ধ বৃদ্ধার ঘরে খাবার নেই বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে একটি পোষ্ট দেয়।

সাংবাদিকের দেয়া পোষ্টটি আমার নজরে আসলে আমি তাৎক্ষনিক ভাবে আমার দপ্তরের কর্মচারি দ্বারা বৃদ্ধাকে নিয়ে আসতে বলি। বৃদ্ধা আমার কার্যলয় আসলে তার সাথের লোকজনের কাছে জানতে পারি তিনি স্বামী হারা নিসন্তান এক নারী।

খেয়াঘাট এলাকায় এক দিনমজুরের বাসায় তিন বছর ধরে আশ্রয়ে থাকেন। তার শরীরে একটা ভিজা কাপড় দেখে জিজ্ঞসা করলাম আপনি ভিজা কাপড়ে কেন এসেছেন তিনি বললেন তার একটাই কাপড় আর নেই।

বিষয়টি জানতে পেরে আমি আমার কার্যালয়ের একজন কর্মচারিকে বাজারে পাঠিয়ে একটি কাপড় কিনে আনতে বললাম। কাপড় নিয়ে আসার পর তার হাতে খাদ্য সামগ্রী ও কাপড়টি তুলে দিলাম।

এ বিষয় ঝালকাঠির অক্সিজেন যোদ্ধা তথা সাংবাদিক মোঃ মনির হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, আজকে সকাল থেকেই শহরে বৃষ্টি হচ্ছিলো।

হঠাৎ সকাল আনুমানিক ১১টার সময় এই বৃষ্টিতে ভিজে বৃদ্ধা আমার দোকানের সাহমনে এসে আমার কাছে তার খুদা লেগেছে সকাল কিছু খেতে পারেনি বললে আমি তার জন্য নাস্তার ব্যবস্থা করে খেতে দিলাম।

নাস্তা শেষে তাকে জিজ্ঞাস করলাম আপনার আর কি লাগবে ? সে চালের কথা বললে আমি তাকে ১০ কেজি চাল দিলাম একই সাথে তার কথা শুনলাম এবং ফেইসবুকে লাইভ করলাম। আমার দেয়া লাইভ দেখে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহদ্বয় ঐ বৃদ্ধাকে নিয়ে উপজেলা পরিষদ ভবনে তার কার্যলয় দেখা করতে বললে।

আমি স্থানীয় অক্সিজেন যোদ্ধা রায়হান, সাংবাদিক ইমাম বিমান, অক্সিজেন যোদ্ধা আব্দুর রহমানকে সহ সত্তরার্ধ বৃদ্ধা ও তার আশ্রয়দাতাকে নিয়ে ইউএনও কার্যালয় পৌছে যাই।

পরে ইউএনও’র কার্যালয় গেলে সদর উপজেলা ইউএনও সাবেকুন নাহার তার কার্যালয় নিয়ে তার বৃদ্ধাকে নাস্তা করালেন পরে তার হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দিলেন।

খাদ্য সামগ্রী তুলে দেবার সময় তার ভিজা কাপড় দেখে তাকে নিজ অর্থায়নে একটি কাপড় কিনে দিলেন একই সাথে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে বলে বিধবা ভাতার ব্যবস্থা করে দিলেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ