আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

প্রকল্পের নামে নদী দখল, নেপথ্য আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতা

ধামরাই প্রতিনিধি

ধামরাই নদী দখলদারের রাজত্ব দিন দিন বেড়েই চলেছে। সাভার ও ধারাইয়ের বেশীর ভাগ অঞ্চলে দখলদারিত্বে বংশী নদী মৃতপ্রায়। দখল করা নদীর জায়গা উদ্ধারের কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় বালু দিয়ে ভরাট করে নদী দখল করেই যাচ্ছে একটি কুচক্রী মহল। তারা বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজনকে ম্যানেজ করেই এই নদী দখলে উঠেপড়ে লেগেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নতুন করে প্রকল্পের নামে তারা দখল করছে নদী।

মহলটি কোন রকম আইনের তোয়াক্কা না করেই মনগড়া বালু দিয়ে ভরাট করছে নদী। উচ্ছেদসহ কাউকে আইনের আওতায় না আনায় দখলদারের দৌরাত্ব লাগামহীন। আইনে জনগণের আশ্রয়স্থল রক্ষা ও অগ্নিনির্বাপণে সহায়তা করতে খাল-বিল, পুকুর-নালাসহ প্রাকৃতিক জলাশয় ভরাট করা অপরাধ হলেও তারা কোন অপরাধই মনে করছেন না। আর আইনত নদীর পার্শ্ববর্তী ৩’শ ফুট জায়গা নদীর হলেও নিজের মনে করছেন প্রভাবশালী মহল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বংশী নদীর একটি শাখা নদী ধামরাইয়ের কুল্লা ইউনিয়ন দিয়ে প্রবাহিত হয়ে সাভার নামাবাজার দিয়ে বয়ে গেছে। এই নামাবাজার ব্রিজের ডান পাশে বদিউজ্জামান বদি ও যুবরাজ ও খোকন নামের তিন প্রভাবশালী ব্যক্তি বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে দখল করে নিয়েছে নদীর জায়গা। বালু দিয়ে ভরাট করে ফেলেছে নদীর বিশাল এক জায়গা। প্রকল্পের নামে এই জায়গা বিএনপি নেতা ভরাট করেছে বলে জানা গেছে।

প্রকল্পেরে নামে নদী ভরাট করা খোকনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এই প্রকল্পের মালিক তারা তিনজন। নদীর পার্শ্ববর্তী ৩’শ ফুট জায়গা ছেড়ে দিয়ে বালু ভরাট করা হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, বিষয়টি কিভাবে ম্যানেজ করতে হবে বলেন। পরে এই প্রতিবেদকের সাথে দেখা করে বিষয়টি ম্যানেজ করবেন বলে জানান তিনি। প্রতিবেদক সম্মত না হওয়ায় তিনি সাভার পৌর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক যুবরাজ নামের এক নেতার মাধ্যমে ফোন করান। যুবরাজ তিনি ও ভরাট কাজে যুক্ত।
সাভারের বদিউজ্জামান বদির মুঠোফোন কল করা হলে বন্ধ পাওয়া যায় তাই তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।
এব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান কালিপদ সরকাল বলেন, তাদের বাঁধা দিলে নানা রকম হয়রানী ও ভয়-ভীতি দেখান। তারা খুব প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পায় না। এ ব্যাপারে যথাযথ কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি।

ধামরাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সামিউল হক বলেন, বিষয়টি আমরা ইতমধ্যে জেনেছি, ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে দখলকারীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ