আজ ২৮শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই জুন, ২০২১ ইং

অরুয়াইল কে বার বার অশান্ত করে তুলছে রানীদিয়ার কতিপয় বকাটে

হাসনাত কাইয়ূম,সরাইল প্রতিনিধি: 

 

অরুয়াইল কে বার বার অশান্ত করে তুলছে রানীদিয়ার কতিপয় বকাটে মটর সাইকেল চালক। গত প্রায় ১৫ দিন পূর্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের রানীদিয়া ও কাকরিয়া গ্রামের সিএনজি ও মটর সাইকেল চালনা কে কেন্দ্র করে রানীদিয়ার কতিপয় বকাটে মটর সাইকেল চালক রানীদিয়ার ব্রীজের গোড়ায় সন্ধায় কাকরিয়া গ্রামের বর্তমান মেম্বার মোঃ সুম্দর আলীকে পরিকল্পিত ভাবে মারধর করে রাতে আবার তাকেই আসামী করে সরাইল থানায় মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে সুন্দর আলী মেম্বারের লোকজন ও পাল্টা মামলা দায়ের করেন উভয় পক্ষে মামলা দাড়ায় এক হালি।চলে দুই গ্রামের মধ্যে দফায় দফায় মিটিং। চরম উত্তেজনা ভাব। অবশেষে গত ১৯ মার্চ প্রায় ৩ ঘন্টা ব্যাপী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হয় রানিদিয়া ও রাজাপুর কাকরিয়া গ্রামবাসী। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন সরাইল সার্কেল মোঃ মাসুদ রানা ও সরাইল থানা অফিসার ইনচার্জ শাহাদাত হোসেন টিঠো। ঐ দিনই সন্ধায় অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যানসহ উভয় পক্ষের সাহেব সরদার পনের উপস্থিতিতে মিমাংশা করা হয় দুই গ্রামের বিরোদ। রাত পেড়োতেই সকাল প্রায় ১১ টায় কাকরিয়া গ্রামের বেলাল( ১৩) ও রিয়াদ(১৪) রানিদিয়া গ্রামের নিচে রাস্থা দিয়ে অরুয়াইল বাজারে আাসার পর মেরে দেয় রানিদিয়া গ্রামের কতিপয় এক যুবক। এতে ফোসে উঠে রাজাপুর ও কাকরিয়া গ্রামের যুব সমাজ। আবার ও টান টান উত্তেজনা ভাব। খবর পেয়ে সরাইল থানা অফিসার ইনচার্জ চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন দুই গ্রামের সাহেব সরদার গনকে। বহু চেষ্টায় গত ২৮ মার্চ চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্তে অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদে দুই গ্রামের সাহেব সরদার সহ ইউনিয়নের সরদার নিয়ে শালিশি সভা বসেন পরিষদে।সরাইল থানার ওসি তদন্ত নুরুল হকের উপস্থিতিতে রানীদিয়া গ্রামকে কঠোর হুশিয়ারী প্রদান করে মিমাংশা করা হয় বিরোধ।আবারও রাত পেড়োতেই ২৯ মার্চ সকাল ১২ টায় কাকরিয়া গ্রামের রবি মিয়ার ছেলে কাওসার অরুয়াইল থেকে রানিদীয়া পথে কাকরিয়া নিজ বাড়ীতে যেতে চাইলে রানিদিয়া গ্রামের শাহজাহানের ছেলে মটর সাইকেল চালক সোহাগ মিয়া(২৫) কাকরিয়া গ্রামের রবি মিয়ার বড় ছেলে মানিক মিয়ার হাড় ভেঙে গুড়া করে ফেলার হুমকি দেয়।পাশাপাশি গতকালের শালিশি সভার শালিশ কারকদের অকথ্য ভাষায় গালিগাজ করেন।বললেন রবি মিয়ার ছেলে কাওসার। বিষয়টি জানানো হয় প্রথমে রাজাপুর কাকরিয়া দুই গ্রামের সাহেব সরদার গনকে। পরে দুই গ্রামের পক্ষে সুন্দর আলী মেম্বার ও সাবেক দুলাল মেম্বার বিষয়টি মৌখিক ভাবে অবগত করেন অরুয়াইল পুলিশ ফাড়ির আইসি এস আই কামরুজ্জামান ও অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূইয়া, অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি হাজী আবু তালেব,সাধারণ সম্পাদক এড গাজী মোঃ শফিক সহ ইউনিয়ন বাসীকে। এভাবে একের পর এক ঘটনা করছে রানিদীয়ার লোক এতে আবার ও উত্তেজনা বিরাজ করছে রাজাপুর কাকরিয়া যুব সমাজের মধ্যে। ঘটতে পারে যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা।

এব্যাপারে কাকরিয়া গ্রামের মেম্বার মো সুন্দর আলী বলেন অরুয়াইল কে বার বার অশান্ত করে তুলছে রানীদিয়ার কতিপয় বকাটে মটর সাইকেল চালক। আমরা আমাদের যুব সমাজ কে বলে দিয়ছি শান্ত থাকতে,আমরা চেয়ারম্যান, পুলিশ ফাড়ির আইসি সহ ইউনিয়ন বাসীকে জানিয়েছি উনারা যা করে আমরা মাথা পেতে নিব।আমরা কোন ঝগরা করবনা।

এব্যাপারে কাকরিয়া গ্রামের কয়েকজন অভিবাবক ( নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন স্কুল কলেজ খোললে আমাদের মেয়ে ছেলেরা কিভাবে রানিদিয়ার রাস্তা দিয়ে অরুয়াইল স্কুল কলেজে যাবে চিন্তাই আছি।

এব্যাপারে অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এড গাজী মোঃ শফিক বলেন রানিদিয়ার লোকজন এবাবে একের পর এক ঘটনা করবে তা সত্যিই দুঃখজনক । আমরা ওসি সাহেবকে বলব ওদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য।

এব্যাপারে অরুয়াইল পুলিশ ফাড়ির আইসি এস আই কামরুজ্জামান বলেন আমাকে সুন্দর আলী মেম্বার সহ কয়েকজন মৌখিক ভাবে অবগত করেছে, আমি ওসি স্যারকে বিষয়টি জানিয়েছি। খোজ খবর নিচ্ছি, আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং রানিদিয়া গ্রামের রইছ মেম্বার ও সায়েদ মেম্বারের সাথেও এ ব্যাপার কথা হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ