আজ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

অক্ষত থাকছে রানাপ্লাজার নিহত শ্রমিকদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভটি

বিশেষ প্রতিনিধি

ঢাকার সাভারে রানা প্লাজা ধ্বসে নিহত শ্রমিকদের স্মরণে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভটি সংরক্ষণের দাবিতে সমাবেশ করেছে প্রতিবাদ প্রতিরোধ শ্রমিক শহীদ বেদী রক্ষা মঞ্চ।

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) বিকেলে ধ্বসে পড়া রানা প্লাজার পরিত্যক্ত জায়গার সামনে এই সমাবেশের আয়োজন করেন প্রতিবাদ প্রতিরোধ শ্রমিক শহীদ বেদী রক্ষা মঞ্চের নেতা কর্মীরা।

খোজঁ নিয়ে জানা যায়, সাভারে সওজের উদ্যোগে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দুই পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে। তবে রানা প্লাজা ট্রাজেডির নিহতদের স্মরণে নির্মিত স্তম্ভটি সড়ক ও জনপথের স্থানে নির্মিত হওয়ায় এটিও উচ্ছেদের শঙ্কা রয়েছে। সেই শঙ্কা থেকেই এটি রক্ষার দাবি জানিয়ে আসছেন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা। পরে এটি রক্ষার জন্য ‘প্রতিবাদ প্রতিরোধ শ্রমিক শহীদ বেদী রক্ষা মঞ্চ’ নামে একটি কমিটি গঠন করেন। সেই কমিটির ব্যানারে আজ তারা সমাবেশ করছেন।

এদিকে উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্বে থাকা সড়ক ও জনপথের অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবু্বুর রহমান ফারুকীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যেহেতু এটি নিহত শ্রমিকদের স্মরণে স্থাপন করা হয়েছে, ব্যক্তিগতভাবে এটি নির্মান করা হয়নি, তাই এই স্মৃতিস্তম্ভটি অক্ষত রাখা হবে।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির তাসলিমা আক্তার লিমা, শাহ আলম,স্বাধীন বাংলা গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের আল কামরান, বাংলাদেশ গার্মেন্টস এন্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের রফিকুল ইসলাম সুজন, ইসমাইল হোসেন ঠান্ডু, বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের আনিসুর রহমান, বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের অরবিন্দ বেপারী বিন্দু , গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরামের কবির হোসেন মনির সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী ও পোশাক শ্রমিকরা।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিলে বিশ্বের পোশাক খাতে বড় একটি শিল্প দুর্ঘটনা হলো রানা প্লাজা ধস। সেদিনের সেই ট্যাজেডিতে রানা প্লাজার ১ হাজার১৩৬ জন পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় দুই সহস্রাধিক শ্রমিককে। ঘটনার ৬ মাস পর ১০ আগস্ট রানা প্লাজার সামনে ল্যাম্প পোষ্ট ও আরো ৭ সংগঠন মিলে এই অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান করে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ