আজ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

পাওনা টাকা আদায়ের জন্য মৃতদেহ নিয়ে অবস্থান

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, কুয়াকাটা(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি:

মৃত্যুতে যখন পাঞ্জা লড়ছে, তখনো পাওনা টাকা পরিশোধ করার কোন সাড়া দেয়নি দেনাদার, শেষে চিকিৎসা ছাড়াই মৃত্যু হয়েছে পাওনাদারে। কুয়াকাটার মৎস্য বন্দর আলীপুরে সুনীল দাস (৫৭) নামের এক লন্ডি ব্যবসায়ীর মৃত্যুদেহ দেনাদারের বসত ঘরের দরজার সামনে ফেলে রেখে প্রতিবাদ এবং পাওনা টাকা দাবি করেছে তাঁর স্বজনরা।

মৃত সুনীল দাসের স্ত্রী মাদুরী (৫২) দাসের দাবি, তাঁর স্বামী স্থানীয় ইউসুফ মুসুল্লীর নিকট থেকে ১২ লাখ টাকায় (একটি ভিটি) তিন শতক জমি ক্রয় করেন। কিন্তু দীর্ঘ একযুগেও জমি বুঝিয়ে দেয়নি। এরপর থেকে টাকা ফেরৎ চেয়ে আসছিল সুনীল। ইতোমধ্যে সুনীল দাস অসুস্থ হয়ে পড়লে টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় শুক্রবার রাতে নিজের বসতঘরে তার মৃত্যু হয়। মাধুরী আরো বলেন অসুস্থ হওয়ার পরেও বারবার তার কাছে টাকা চাইতে গেলে সে নিজে ক্ষমতা দেখি এবং রাগারাগি করে তাড়িয়ে দেয়।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে মৃত সুনীলের মরদেহ ইউসুফ মুসুল্লীর ঘরের সামনে এনে রাখা হলে আশেপাশের শতশত মানুষ ভীড় করেন। এবং মুহূর্তের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়া এবং মহিপুর থানার ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে মহিপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান এবং ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা বিষয়টি সমাধানে তৎপর হন। কিন্তু ইউসুফ মুসুল্লী এবং তার পরিবারের লোকজন ঘর ছেড়ে পালালে প্রায় একঘন্টা পেরিয়ে গেলেও কোন সমাধান হয়নি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ