আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

কিংবদন্তী গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর এর বর্ণাঢ্য জীবনাবসান

রনজিত কুমার পাল (বাবু)নিজস্ব প্রতিবেদক :

একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা, কিংবদন্তী গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীর শুক্রবার রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭১ বছর।
করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ১৫ জুলাই থেকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন ফকির আলমগীর। এরমধ্যে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ১৯ জুলাই তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়।
গণসংগীতের কিংবদন্তিতুল্য শিল্পী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকির আলমগীর এর মৃত্যুতে শোকাহত ও মর্মাহত।
ফকির আলমগীর ১৯৫০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার কালামৃধা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।বাংলাদেশের সকল ঐতিহাসিক আন্দোলনে তিনি তাঁর গান দিয়ে মানুষকে উজ্জীবিত করেছেন। ষাটের দশকের আন্দোলন সংগ্রামে এবং ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে গণসংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও ৯০ এর স্বৈরাচার বিরোধী গণআন্দোলনে তিনি গান নিয়ে শামিল হয়েছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী ফকির আলমগীর সাংস্কৃতিক সংগঠন ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা,সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহ সভাপতি সহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক সংগঠনের দায়িত্ব পালন করেছেন। সংগীতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ একুশে পদক, শেরেবাংলা পদক,ভাসানী পদক,সিকোয়েন্স অ্যাওয়ার্ড অব অনার,তর্কবাগীশ স্বর্নপদক,জসীম উদ্দিন স্বর্নপদক,কান্তকবি পদক,গণনাট্য পুরস্কার, পশ্চিমবঙ্গ সরকার কর্তৃক মহাসম্মাননা,বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপে ভূষিত হন।
স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে দেশজ সুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপ গানের বিকাশে ভূমিকা রাখেন ৭১ বছর বয়সী শিল্পী ফকির আলমগীর। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে তার কণ্ঠে বেশ কিছু গান তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। এর মধ্যে ও সখিনা, নাম তার ছিলো জন হেনরি সহ আরো কিছু গান মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

ফকির আলমগীর ১৯৬৬ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সক্রিয় সদস্য ছিলেন। রাজপথে বিভিন্ন আন্দোলনে তাকে বহুবার দেখা গেছে। তিনি ষাটের দশক থেকে গণসংগীতের সঙ্গে যুক্ত। ক্রান্তি শিল্পী গোষ্ঠী ও গণশিল্পী গোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে শামিল হন এ গণসংগীত শিল্পী। এরপর ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে। তিনি একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা হিসেবে পরিচিত।
স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে দেশজ সুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপ গানের বিকাশে ভূমিকা রাখেন এ শিল্পী। সংগীতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সরকার ১৯৯৯ সালে ফকির আলমগীরকে একুশে পদক দেয়।

জগন্নাথ কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি নিয়ে পরবর্তী পর্যায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করা ফকির আলমগীর গানের পাশাপাশি নিয়মিত লেখালেখিও করেন। ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও বিজয়ের গান’, ‘গণসংগীতের অতীত ও বর্তমান’, ‘আমার কথা’, ‘যারা আছেন হৃদয় পটে’সহ বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ হয়েছে তার।
বীর মুক্তিযোদ্ধা কিংবদন্তী গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে দেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মানণীয় প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার,মন্ত্রী মহোদয় সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল,সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন সহ সুশীল সমাজ এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ