আজ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

লকডাউনে অসহায় মানুষের পাশে SRFC চেয়ারম্যান মোঃ সোহেল রানা

রানীশনকৈল প্রতিনিধি মোঃ সবুজ রানা :

মানুষ মানুষের জন্য বাংলাদেশ করোনার এই অন্ধকার সময়ে। দেশের অসংখ্য মানুষ কর্মহীন হয়ে গেছে কাজ বন্ধ এই করনার সংকটকালে। অনেকেই খাদ্যের অভাবে অসহায় জীবনযাপন করছেন। বিশেষ করে এলাকার গরিব মানুষরা। মানবতার এই করুণ পরিস্থিতিতে বসে মোঃ সোহেল রানা । শুক্রবার সকাল ৫০০ শত পরিবার কে তেল, সাবান,আলু হুইল পাউডার দিয়ে সাহায্য করেন। এবং অনেকেই যে যার মত করে সাহায্য করে যাচ্ছেন অসহায় মানুষদের। তবে চাহিদার তুলোনায় সেগুলো অনেক কম। সেই সাথে এসব অবহেলিত মানুষে পাশে দাঁড়িয়েছেন ৬ নং কাশিপুর উনিয়ান এর SRFC চেয়ারম্যান মোঃ সোহেল রানা ।

করোনার এই ক্রান্তিকালে বিভিন্ন সময়ে নিজের চেষ্টায় যতটুকু সম্ভব অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। মানুষ এর ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছেন তিনি মানুষদের হাতে হাতে তুলে দিয়েছেন আথিক টাকা । করোনা মহামারিতে অসহায় গরিব মানুষ মাঝে খুশি ছড়িয়ে দিতে তার এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। নিজের উপজিত টাকা থেকে এবং কিছু মানুষের সহযোগিতার অহায় গরিব দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করেছেন এই সমাজ সেবক ।

এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার সব থেকে জিবনে বড় কাজ ছিলো- গ্রামের অসহায় গরিব মানুষ মূখে হাসি ফুটানো তিনি বলেন। আমরা বাসায় সকলে ভালো খাবার খাই। তাই চেষ্টা করেছি গরিব মানুষ এর জন্যও ভালো এবং ভিন্ন ধরনের খাবার দিতে। এই মানুষগুলোর মুখে এক বেলা হাসি ফুটা তে একটু তৃপ্তি দিয়ে খাবার খাওয়ানোই ছিলো আমার উদ্দেশ্য। আর এইভাবেই সবার সহযোগিতা নিয়ে আমি সামনে এগিয়ে যেতে চাই।’
সোহেল রানা বলেন, ‘মানুষ এর সেবার সাথে জড়িত থাকার ইচ্ছাটা আমার অনেক ছোটবেলা থেকেই ছিল। তবে মনের ইচ্ছা থেকে কর্মক্ষেত্রে আমার রাস্তাটা এতটা সহজ ছিল না। আর তা যদি হয় বেস্ত জিবনে, তবে পরিস্থিতি আরো বেশি কঠিন। তবুও সব বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে সমাজ`সেবার সাথে জড়িত আছি ৮ বছর ধরে। প্রয়োজনের ভিত্তিতে কাজ করেছি। সব সময় ছুটে চলেছি অসহায় মানুষের পাশে। কাজ করেছি অনেক গরিব ঘরের ছেলে মেয়ের জন্য ! পড়াশোনা করতে না পাড়া ছেলে মেয়ের জন্য । কখনো বই, কখনো খাবার কিংবা কখনো বস্ত্র নিয়ে এগিয়ে গিয়েছি। অনেক আগে থেকেই !

তিনি বলেন, ‘করোনার শুরুটা আমাকে অনেক নাড়া দিয়েছিলো, কারণ রানা প্লাজা ধ্বংসের সময় আমি দেখেছি মানুষ এর কষ্ট । তাই করোনাকালীন সময়ে বিপদগ্রস্ত মানুষকে কিভাবে সাহায্য করা যায় । এ জন্য তিনি সব সময় অসহায় দের পাশে দারান!

তিনি অসংখ্য ধন্যবাদ দেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন ক্ষমতায় এসে ছিটমহল সমস্যার সমাধান, সীমানা চুক্তি, সমুদ্রসীমা জয়, দারিদ্র্য বিমোচন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূর করা, বিভিন্ন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে পৌঁছে দিয়েছেন শেখ হাসিনা। অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে সাধারণ জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতাকে পরিপূর্ণতা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা।

তিনি আরো ধন্যবাদ জানান রানিশংকেল থানার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সকল সদস্য কে । জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনার এই মহামারী সময় রানিশংকেল থানার । সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মানুষকে নিরাপত্তা দিয়ে আসছে তারা মানুষকে ঘরে থাকতে বলছে এবং মক্স পরিধান করতে বলছে দরকার হলে নিজের অর্থ দিয়ে অসহায় মানুষদের মাক্স ক্রয় করে দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এলাকায় অসংখ্য গরিব দুঃখী মানুষকে সহযোগিতা করেছে কোরোনার এই মহামারী সময় !
তিনি বলেন, হাসিনা অতীতে অনেক দুর্যোগ মোকাবেলা করেছে আওয়ামী লীগ! জীবন জীবিকার সমন্বয় করে করোনার প্রথম ধাপ শেখ হাসিনা অনেক সফলভাবে মোকাবেলা করেছেন | সকেলর এবং “নিজেদের কল্যাণের কথা ভেবে সকলে ঘরে অবস্থান করুন ।

বলেছেন আমি আমার সর্বোচ্চ দিয়ে অসহায় গরীব মানুষের সহযোগিতা করার চেষ্টা করব এজন্য তিনি সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন মোঃ সোহেল রানা !

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ