আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

মাশরুম একটি সম্ভবনা, কিন্তু জনপ্রিয় করতে পারিনি: কৃষি মন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :

কৃষি মন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, কৃষি মন্ত্রণালয় ও কৃষি অধিদপ্তরের একটি প্রতিষ্ঠান। এটির নাম হলো মাশরুম উন্নয়ন ইনস্টিটিউট। এই ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে এখানে মাশরুম উৎপাদনের গবেষণা এবং এর উন্নয়ন চাষী পর্যায়ে নিয়ে এর আবাদ করা ও এটিকে একটা লাভজনক ফসল হিসেবে বাজারজাত করার ব্যাপারে এই ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। সেগুলো বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আমি শুরুতেই বলবো এটার যে সম্ভাবনা সেই সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে যেভাবে এটাকে জনপ্রিয় করার দরকার ছিলো ততটা আমরা করতে পারিনি। এজন্য আমি এটা দেখতে এসেছি।

রোববার (০৬ জুন) বেলা ১২টার দিকে সাভারের মাশরুম উন্নয়ন ইনস্টিটিউটে পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের সাথে এসব কথা বলেন।

কৃষি মন্ত্রী বলেন, কীভাবে সুযোগ সুবিধা আরো বৃদ্ধি করে ব্যাপকভাবে আমরা মাশরুম চাষ করতে পারি। সারা পৃথিবীতে মাশরুমের চাহিদা অনেক বেশি। আমরা বিভিন্ন মিডিয়া পত্রপত্রিকা ও লিটারেচার থেকে জানি মাশরুম খাদ্য হিসেবে খুবই পুষ্টি সম্মত। এরমধ্যে যথেষ্ট প্রোটিন আছে, অনেক ভিটামিন ও এনজাইম আছে, যেহুলো শরীরের জন্য খুবই উপকারী। বাংলাদেশেও আমরা দেখি বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে ফাইভ স্টার হোটেলগুলোতে ব্যাপকভাবে মাশরুমের খাবার পরিবেশন করা হয়। সেটা বিবেচনায় ও পৃথিবীর অনেক দেশ মাশরুম রপ্তানি করে ব্যাপক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে। এটি বিবেচনা করেই আমরা এই প্রতিষ্ঠান করেছিলাম। প্রতিষ্ঠানটি বেশ ভালো কাজ করছে। এখানে আধুনিক মডার্ন অনেক যন্ত্রপাতি রয়েছে। যেখানে ডিএনএ আ্যনালাইসিসও করা সম্ভব। মাশরুমের মধ্যে কোন হেভি মেটাল আছে কি না, শরীরের জন্য অনিরাপদ ও ঝুঁকিপূর্ণ কিছু আছে কি না সেগুলোও টেস্ট করা হয়। এটাকে আরো উন্নত করা যায় কীভাবে তা দেখা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মাশরুম চাষে বাংলাদেশে বিরাট একটি সম্ভাবনা রয়েছে। মাশরুম হয় এমন জায়গায় যেখানে বেশি পানি থাকে ও স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে। এটা বাংলাদেশে খুব সহজেই হয় এটা আমরা জানি বিশেষ করে বর্ষাকালটা ৬-৭ মাস তো সবকিছুই আমাদের স্যাঁতসেঁতে থাকে। আমি মনে করি সরকার ক্ষমতায় আসছে ২০০৮ সালে, তৃতীয় মেয়াদেরো প্রায় আড়াই বছর হতে যাচ্ছে। আমাদের নির্বাচনী ইশতেহার এবং ভিশন ২০২১ রুপকল্প-২১ এর মাধ্যমে জাতিকে আমরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম আওয়ামী লীগ যদি ক্ষমতায় আসে বাংলাদেশকে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করবো, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করবো, বিশেষ করে নানা জাতীয় খাদ্য যেমন চাল, গম, ভুট্টা উৎপাদন করবো।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে স্বাধীনতার পর ১ কোটি দশ লক্ষ টন ধান হতো, এখন হয় ৩ কোটি সাতাসি লক্ষ টন। গম এবং ভুট্টাসহ এটা প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টন দানা জাতীয় খাদ্য উৎপাদন করছি। অনেকটাই আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। মূল খাদ্য ভাত নিয়ে কোন হাহাকার নাই। কোন অভাব বা দুর্যোগ নাই ১২-১৩ বছরে। এখন আমরা চাচ্ছি কৃষিকে লাভজনক করা। কৃষিকে আধুনিকীকরণ করা। এবং আমরা মনে করি মাশরুম একটা অত্যন্ত সম্ভাবনাময় ফসল অর্থকরী ফসল, এটার পুষ্টি অনেক বেশি। এটা ঔষধ হিসেবেও সারা পৃথিবীতে চাহিদা রয়েছে। আমাদের চাষিরা শুধু ধান করে, ধানের প্রতি তাদের আগ্রহ বেশি। কারণ তাদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। কিন্তু তার সাথে সাথে ঘরের মধ্যেই মাশরুম চাষ করা সম্ভব। মহিলারা কাজ করতে পারবে। তেমন কোন লেবার লাগে না। আমরা তাদেরকে যদি প্রযুক্তি শিখিয়ে দিতে পারি।তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিতে পারি, তাদেরকে যদি আমরা বীজ দিতে পারি, ব্যাপকভাবে এটা চাষ করা সম্ভব।

কৃষি মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা বলছি মানুষের আয় বাড়াতে হবে, কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে, জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে হবে। মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার জন্য মাশরুম একটা সম্ভাবনাময় ফসল। আমরা একটি প্রকল্প প্রণয়ন করেছি। একনেকে পাঠানো হয়েছে। আমি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আশাবাদী এই প্রকল্প মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও একনেকে অনুমোদন হবে। হলে এটা বাস্তবায়ন করে সারা দেশে মাশরুম উন্নয়ন করা সম্ভব হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: আসাদুল্লাহ, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো: হাসানুজ্জমান কল্লোল ও সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মুঞ্জুরুল আলম রাজীব, সাভার পৌর মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল গনি ও সারাদেশ থেকে আশা মাশরুম চাষীরা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ