আজ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

করনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেই মৃত্যু নয়

রাশিম মোল্লা

 

নবাবগঞ্জে এখন পর্যন্ত কোনো ব্যক্তি বা প্রবাসী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত ৫৪৫ জন প্রবাসী বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছে। এরমধ্যে বর্তমানে ৩১৮জন প্রবাসী হোমকোরেন্টিনে আছেন। ২২৭ জনের সফলভাবে হোমকোরেন্টিন শেষ করায় তাদেরকে ডিসচার্জ করা হয়েছে। কাউকে কোন ভাইরাস আক্রান্ত করলেই তার মৃত্যু হবে বিষয়টি তেমন নয়। তবে করোনাভাইরাস অত্যন্ত ছোঁয়াচে একটি রোগ। বিশ্বে করোনা ভাইরাস আগেও ছিল। তবে নভেলা করোনা ভাইরাস বিশ্বে নতুন করে আবির্ভূত হয়েছে। তাই কেউ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসা নিতে হবে। সুস্থ্য হওয়ার সুযোগ রয়েছে। বয়স্কদের ক্ষেত্রে মৃত্যুহারটা একটু বেশি। এমন তথ্য জানান নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা কন্ট্রোল কর্নার ফোকাল পার্সন ডা. হরগোবিন্দ সরকার অনুপ। সাক্ষাৎকারে করোনা ভাইরাসের নানা বিষয় উঠে এসেছে।

প্রশ্নঃ করোনা ভাইরাস কিভাবে ছড়ায়?

ডা.অনুপঃ নভেলা করোনা ভাইরাস অত্যন্ত ছোঁয়াচে একটি রোগ। এই রোগ আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি, কাশি, মলের মাধ্যমে অন্যের দেহে ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে হ্যান্ডশেক, করমর্দন ও আলিঙ্গন করার মাধ্যমে রোগটি সংক্রমিত হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃ হোম করেন্টিন মানে কি?

ডাক্তার অনুপ : হোম কোরেন্টিন এর বাংলা সংগনিরোধ।
ছোঁয়াচে রোগের সংক্রমণ প্রতিরোধে সংগ নিরোধ করা হয়। কারো সংগে মিশবে না। কোনো বাড়িতে বা কক্ষে সংগ নিরোধকে হোম কোয়ারানটাইন বলে। একটি রুমের মধ্যে অন্যর সংস্পর্শ ছাড়া ১৪ দিন অবস্থান করতে হয়। এই সময়ের মধ্যে বাড়ির কোনো লোকজন তিন ফিট দূরত্বে থেকে খাবার-দাবার সরবরাহ করতে হবে। ভিন্ন টয়লেট ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে কারো বাসায় এটাচ বাথরুম না থাকলে কোরেন্টিন থাকা ব্যক্তিটি কমোড ব্যবহার করতে পারেন।

প্রশ্নঃ হোম কোরেন্টিন শেষ হলে করণীয় কি?

ডা. অনুপঃ এক্ষেত্রে শারীরিক কোন সমস্যা হলে কার্ডে দেওয়া মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। আমরা তাদেরকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা প্রদান করব। এক্ষেত্রে আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। চিকিৎসার মাধ্যমে করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হওয়ার রেকর্ড রয়েছে।

প্রশ্নঃ কেউ যদি সফলভাবে হোম করেন্টিন শেষ করে তাহলে তিনি আগের মত চলাচল করতে পারবেন কিনা?

ডা.অনুপঃ অবশ্যই আগের মত চলাচল করতে পারবেন। এতে কোনো বিধিনিষেধ নেই। তবে এখন বাহিরে যাওয়া কারো জন্যই নিরাপদ নয়। এছাড়া সরকারি বিধি নিষেধ তো রয়েছেই। তাই প্রয়োজন ছাড়া কারোরই বাসার বাইরে যাওয়া যাবে না।

প্রশ্ন : মশা মাছির মাধ্যমে করনা ভাইরাস ছড়ায় কিনা?

ডা. অনুপঃ নভেলা করোনাভাইরাস মশা মাছির মাধ্যমে ছড়াতে পারে না।

প্রশ্নঃ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আমাদের করণীয় কি?

ডা.অনুপঃ প্রত্যেক নাগরিককে হাঁচি-কাশির শিষ্টাচার মানতে হবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। যখন কেউ হাসি দিবে হাতের কনুই নাকের সামনে নিয়ে হাচিঁ দিবেন। প্রয়োজন ছাড়া কারো বাড়ি বা বাহিরে যাবেন না। জনসমাগম এড়িয়ে চলবেন। কারো সামনে গেলে ১ থেকে ৩ মিটার দূরত্ব বজায় রেখে চলবেন।

প্রশ্নঃ যারা বাড়িতে থাকবেন তাদের জন্য এ সময় করণীয় কি?

ডা. অনুপঃ যারা বাড়িতে তাদের জন্য করোনা প্রতিরোধে ৫ টি উপদেশ ঃ
১.সুষম ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করুন।
২. প্রতিদিন কমপখ্খে ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন।
৩. সারাক্ষণ করোনা নিয়ে সংবাদ না দেখে চিত্ত বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান দেখুন

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ