আজ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ ইং

জামালপুরে যুবলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যা, আটক-৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :

জামালপুরের মেলান্দহে ধান খেতে পানি দেয়াকে কেন্দ্র করে যুবলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। এ ঘটনায় ৪জন আটক করেছে মেলান্দহ থানা পুলিশ।
গতকাল সোমবার (৩এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে সাত টায় জেলার মেলান্দহ উপজেলার নয়ানগর ইউনিয়নের সাধুপুর মধ্যপাড়া এলাকায় ধান খেতে পানি দেয়াকে কেন্দ্র করে ৫নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি বাবুল শেখ (৩৫) কে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) জেলার মেলান্দহ উপজেলার সাধুপুর এলাকায় ধান খেতে পানি দেয়াকে কেন্দ্র করে বাবুল শেখের সাথে ঝগড়া হয় লাল মিয়ার লোকজনের। ঝগড়ার এক পর্যায়ে তাদের মাঝে হাতাহাতি ঘটনা ঘটে। পরে বাবুল শেখের লোকজন বিষয়টি নিয়ে মিমাংসার প্রস্তাব দিলে লাল মিয়ার লোকজন তা প্রত্যাক্ষান করে।
সেই ঘটনার জের ধরে বাবুল শেখের বাড়িতে ঢুকে তালো, শরাফত ওরফে ফেকু, আশি, আনিছসহ ৩০-৩৫জনের সংঘবদ্ধ দল রড, শাবল, লাটিসহ দেশীয় অস্ত্র দিয়ে বাবুল শেখ, শহিন, হৃদয়, মুক্তি, সিয়াম, রশিদ ও সোহেলকে পিটিয়ে আহত করে।
পরে আহত বাবুল শেখ, শাহিন, হৃদয় ও মুক্তিকে জামালপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আর সিয়াম,রশিদ ও সোহেলকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করা হয়েছে। আহত বাবুল শেখ ও হৃদয়ের শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রেরন করেন। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য আহত বাবুল শেখকে ময়মনসিংহ হয়ে ঢাকা নেয়ার পথে তিনি মারা যায়। নিহত বাবুল সাধুপুর মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত মুনছব শেখের ছেলে।
এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই মুক্তি বাদী হয়ে লাল মিয়া (৩৫) পিতা-মৃত নন্দ আলী শেখ, শরাফত আলী ফেকু পিতা মৃত তয়েজ মন্ডল, বাদশা শেখ পিতা- শরাফত আলী, ছফুরা খাতুন স্বামী- সরাফত আলী ৫। শেফালীসহ (৩৫) স্বামী- লাল মিয়া ১৬জনকে আসামী করে মেলান্দহ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। পরে মেলান্দহ থানা পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে শরাফত আলী ফেকু পিতা মৃত তয়েজ মন্ডল, বাদশা শেখ পিতা শরাফত আলী, ছফুরা খাতুন স্বামী- সরাফত আলী, শেফালী (৩৫) স্বামী- লাল মিয়াকে আটক করেছে।
নিহত বাবুল শেখের স্ত্রী আসমা আক্তার লাকী জানান, বাড়িতে লোকজন তেমন ছিলো না। লাল মিয়া, তালো ও সরাফত আলীসহ ৩০-৩৫জন বাড়িতে ঢুকে আমাদের সাবাইকে মারধর করে। আমার স্বামীকে রড, শাবল দিয়ে মারধর করে। যারা আমার স্বামীকে মেরে ফেলেছে আমি তাদের শাস্তি ফাঁসি চাই।
নিহত বাবুল শেখে মেয়ে বর্ষা জানান, ধান পানি দেয়া নিয়ে আমার বাবাকে চোখের সামনে রড, শাবল দিয়ে পিটিয়ে মারছে। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাই।
নিহতের ভাতিজা সিয়াম জানান, গত শুক্রবারে ধান খেতে পানি দেয়া নিয়ে চাচার সাথে লাল মিয়ার লোকজনের ঝগড়া ও হাতাহাতি হয়। সেই ঘটনা মিমাংসার জন্য লোক পাঠানো হয়ছিলো। কিন্তু তারা তা মানে নাই। সেই ঘটনার জের ধরে সকালে আমাদের দলবল নিয়ে ঢুকে। সকালে বাড়ির সবাই যার যার মত কাজে গেছে। ছোট চাচা একাই বাড়িতে ছিলো। তাকে একা পেয়ে রড শাবল দিয়ে পিটিয়ে মারছে লাল, সরাফত আলী ফেকুর লোকজন। আমরা এ হত্যার সঠিক বিচার চাই।
নিহতের ভাতিজি রোকসানা আক্তার জানান, আমার চোখের সামনে চাচাকে লাল মিয়ার লোকজন মারছে। চাচার মাথায় রড দিয়ে আঘাত করলে মাটিতে পড়ে যায়। তাকে বাঁচতে অনেক চেষ্টা করছি। মাটিতে পড়ে যাওয়ার পর অনেক টানছি নিয়ে আসতে পারি নাই। ওরা আমার মরা চাচাকে লাঠি দিয়ে গুতাইছে, পাড়াইছে। আমার চাচার মৃত্যুর বদলা চাই। আমি ওদের ফাঁসি চাই।
মেলান্দহ উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক শাহীন বাঘা জানান, নয়ানগর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ছিলেন বাবুল শেখ। তিনি এ হত্যাকারে সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার এবং দৃষ্টান্তমূলক শান্তির দাবি জানান।
মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম.এম. ময়নুল ইসলাম জানান, ধান খেতে পানি দেয়াকে কেন্দ্র করে গতকাল সকালে মারামারি ঘটনা ঘটে। সেই ঘটনায় আহত বাবুল শেখ চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সন্ধ্যায় সে মারা যায়। এ ঘটনায় ১৬ জনকে আসামি করে বাবুল শেখের বড় ভাই মুক্তি বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেছে। রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৪জন আসামিকে আটক করেছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ