আজ ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই মে, ২০২১ ইং

শাহজাদপুরে গলায় ফাঁস নিয়ে নববধুর আত্মহত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে গলায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস নিয়ে সারমিন খাতুন (১৪) নামের বাল্যবিয়ের শিকার এক নববধুর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। শারমিন খাতুন রতনকান্দি উত্তরপাড়া গ্রামের ভ্যান চালক সানোয়ার ফকিরের মেয়ে।

জানা যায়, শাহজাদপুর উপজেলার রতনকান্দি উত্তর পাড়ার ভ্যান চালক সানোয়ার ফকিরের মেয়ে ও একই গ্রামের মো: রাকিবুল ইসলামের স্ত্রী শারমিন খাতুন বুধবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে বাবার বাড়ির শয়ন কক্ষের তীরের সাথে গলায় ওড়না পেছিয়ে আত্মহত্যা করে।

পরিবারের সদস্যরা ঘরের দরজা খুলে শারমিন খাতুনের দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়, তাদের আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তার নিথর দেহ নামায়। পরে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষে শারমিনকে মৃত ঘোষনা করেন।

প্রতিবেশীরা জানায়, ৮ম শ্রেণীর নিয়মিত ছাত্রী মোছা: সারমিন খাতুনের তারই চাচাতো ভাই প্রাইভেটকার চালক মো: রাকিবুল ইসলামের সাথে দুই মাস পূর্বে বিয়ে হয়। নাবালিকা মেয়ের বিয়ে হওয়ার ফলে মেয়েটি বেশী আবেগ প্রবন ছিল।

নিহত শারমিন খাতুনের পিতা সানোয়ার ফকির জানান, মেয়ে ও জামাই আমাদের বাড়িতেই ছিল। মেয়েকে শশুরবাড়ি পাঠানোর বিষয়ে আমাদের গ্রামে কিছু উপঢৌকন দেওয়ার রীতি রয়েছে। আমি সামান্য ভ্যানচালক তাই উপঢৌকন দিতে ব্যার্থ হই। এজন্যই হয়তো আমার মেয়ে অভিমান করে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে।

পরে খবর পেয়ে বুধবার বিকেলে শাহজাদপুর থানার উপ-পরিদর্শক আসাদুজ্জামানের নেতৃ্ত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। পরে শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান ও ওসি (অপারেশন এন্ড কমিউনিটি পুলিশিং) আব্দুল মজিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহিদ মাহমুদ খান জানান, আমরা খবর পেয়েই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। শাহজাদপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল হোসেনের নির্দেশে নিহত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ