আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

জাতীয় স্মৃতিসৌধে নেই এবার জনতার ঢল

নিজস্ব প্রতিবেদক :

স্বাধীনতা দিবস বাঙ্গালীর বিজয় গাঁথা অহঙ্কারের দিন। এই দিনে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে নামে জনতার ঢল। দলে দলে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন সাধারণ মানুষ। ফুলে ফুলে ভরে যায় বেদী। তবে জনসাধারণের প্রবেশে কিঞ্চিৎ সময় নিয়ন্ত্রণ হওয়ায় এবার এ চিত্র চোখে পড়ে নি। নেই চিরায়ত জনতার সেই ঢল।

দিবসটি ঘিরে নেওয়া হয়েছিলো কয়েক স্তরের নিছিদ্র নিরাপত্তা। এই স্মৃতিসৌধেই লুকিয়ে রয়েছে বাঙ্গালীর বিজয় গাঁথা স্বাধীনতা। যেখানে জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তানদের শ্রদ্ধা জানান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান। প্রতি বছরে স্বাধীনতার প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সাধারন জনতার জন্য উম্মুক্ত করা হলেও এবার বেঁধে দেওয়া হয়েছে সময়। এই সময়ের মধ্যেই আপামর জনসাধারণের শ্রদ্ধায় সিক্ত হওয়ার হয় বাংলার দামাল ছেলেরা।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) দুপুর ২ টার দিকে জাতীয় স্মৃতিসৌধে গিয়ে দেখা যায়, দ্বিতীয় দফায় জনসাধারণের জন্য জাতীয় স্মৃতিসৌধের ফটক উম্মুক্ত করা হলে কিছু সংখ্যক মানুষকে ভিতরে প্রবেশ করছে। তবে প্রতিবারের ন্যায় এবার তেমন জনসমাগম নেই। প্রতিবছর এসময় সৌধ প্রাঙ্গণে নামে জনতার ঢল। সে তুলনায় আজ প্রায় ফাঁকা জাতীয় স্মৃতিসৌধ।

স্মৃতিসৌধের ভিতরে প্রবেশ করা কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, এবার বিদেশি সরকার ও রাষ্ট্র প্রধান স্মৃতিসৌধে আসায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। ব্যাপক নিরাপত্তার বেষ্টনীতে জনসমাগম এবার অনেক কম হয়েছে। এখন যারা আসছে সাভার ও এর আশেপাশের লোকজন ছুটির দিন হওয়ায় বেড়াতে আসছেন।

এমন একজ হলেন নাসিম। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমি আমার ছোট ছেলেকে নিয়ে এখানে ঘুরতে এসেছি। তাকে জানাতে চাই আমাদের দেশের ইতিহাসের কথা। পরিচয় করে দিতে চাই দেশের গৌরব গাঁথা স্বাধীনতার সাথে। সকালে এসে আবার বাসায় ফিরে গিয়েছিলাম। প্রবেশ করতে দেয় নি। পরে শুনলাম ১ টা থেকে ভিতরে প্রবেশ করা যাবে। আবার বাসা থেকে চলে আসলাম। প্রতি বছরে অনেক লোকজন আসেন এখানে কিন্তু এবার অনেক কম লোক এসেছে।

ঘুরতে আসা আরেকজন হলেন পোশাক শ্রমিক হালিমা। তিনি জানান, প্রতি বছরই আমরা সকালে আসি বিকেলে চলে যাই। কিন্তু এবার সকালে আসতে পারি নাই। বাসা থেকেই দেড়িতে বের হয়েছি। আগে তো লোকজনের জন্য ভিতরে ঢোকা কষ্ট হয়ে যেতো। গেট দিয়ে ঢুকতে হতো কষ্টে। কিন্তু এবার লোকসমাগম অনেক কম। গেট তো ফাঁকা। এবার লোকজন কম হওয়ায় ঘুরতেও তেমন ভাল লাগছে না। দ্রুতই চলে যাবো বাসায়।

এব্যাপারে জাতীয় স্মৃতিসৌধের উপসহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান জানান, জাতীয় স্মৃতিসৌধে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। তাই নিরাপত্তার স্বার্থ্যে ও স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিতে সৌধ প্রাঙ্গণে সর্ব সাধারণের প্রবেশের উপর কিছুটা বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। দুপুর ১ টায় সর্বসাধারণের জন্য দ্বিতীয় দফায় স্মৃতিসৌধের ফটক উম্মুক্ত করা হয়। ধীরে ধীরে লোকজন আসছে।  সকালে প্রথম ধাপে লোকসংখ্যা বেশী ছিল। তারা শ্রদ্ধা নিবেদন করে চলে গেছেন।

প্রসঙ্গত, দিবসটির প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সকাল ৭ টা থেকে ৯ টা পর্যন্ত জনসাধারণের জন্য উম্মুক্ত করা হয় জাতীয় স্মৃতিসৌধ। পরে ভারতের প্রাধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শ্রদ্ধা জানাতে আসায় ৯ টা থেকে দুপুর ১ পর্যন্ত জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। ১ টায় আবার উমুক্ত করা হয় স্মৃতিসৌধের ফটক।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ