আজ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

গল্প 🇧🇩 🇧🇩৫২থেকে ৭১ এর দিনগুলো🇧🇩

মোঃ নাফিউল্লাহ (অন্ত):

এখন আমার বয়স মাত্র ৭ । দিন বুধবার ১৯৪৭ সাল -ভারত ও পাকিস্তান নামে দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র জন্ম নেয় ।আমাদের মাতৃভূমি পাকিস্তানের একটি প্রদেশে হিসাবে অন্তর্ভুক্ত হওয়া এর নামকরণ করা হয় পূর্ব পাকিস্তান। কিন্তু মূলত পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তারা চেয়েছিল আমাদের মাতৃভূমিকে তাদের আওতাভুক্ত করে নিতে। আর সেই প্রভাব সর্বপ্রথম স্পষ্ট ভাবে বুঝতে পারা যায় ১৯৪৮ সালে, যখন তারা আমাদের মাতৃভাষার উপর প্রভাব বিস্তার করেছিল এবং আমাদের মায়ের ভাষা কেড়ে নিতে চেয়েছিল। আর তখনি ১ বছর পর জাতির জনকের পরামর্শে গঠিত হয় আওয়ামী মুসলিম লীগ ১৯৪৯ সাল।

১৯৫২ – সাল দিনটি ছিল রবিবার, তখন আমার বয়স ছিল মাত্র ১২ বছর। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আমার মায়ের ভাষা কেড়ে নিতে চেয়েছিল চূড়ান্ত পর্যায়ে তখন শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমার বাবা গ্রামের সকলকে নিয়ে চলে যায় রাজপথে আমার মায়ের ভাষাকে রক্ষা করতে। বাবা চলে যাওয়ার পূর্বে আমাকে বলে গিয়েছিল খোকা কাদিস নি, আমি কাল ফিরে আসবো। আমাদের মাতৃভাষাকে রক্ষা করে নিয়ে আসবো, আমরা স্বাধীন ভাষায় কথা বলবো।

খোকা কাদিস নি! আমি তো কাল সকালেই চলে আসব তাই না ? এখন বাপ ব্যাটার ভালোবাসার থেকেও মাতৃভাষার গুরুত্ব টা অনেক বেশি। এটা বলে বাবা গ্রামের সকলকে নিয়ে চলে যায় রাজপথের উদ্দেশ্যে , সঙ্গে নিয়ে যায় আমার খেলার বন্ধু আমার চাচাতো ভাই ওহিউল্লাহকে তার বয়স ছিল ৯ বছর।।

সেই মাতৃভাষার মিছিল থেকে বাবা আজও ফিরে আসেনি! আমি আজও অপেক্ষায় বসে থাকি সেই রাস্তায় দিকে পথ চেয়ে। কবে সেই সকাল হবে যখন আমার বাবা আবার ফিরে আসবে আমার কাছে।

বাবার অপেক্ষায় পথ চেয়ে বসে থাকতে-থাকতে কেটে যায় আমার ১৯ বছর । সেই ১৯ বছর শুধু পথ চেয়ে বসে থাকেনি! মনের মত পোষণ করতে ছিলাম বাবা চলে যাবার পূর্বে বলে যাওয়া আদর্শের কথাগুলো । তিনি আমাকে বলেছিলেন, খোকা জানিনা আর দেখা হবে কিনা!

তবে যদি বেঁচে থাকি তাহলে কাল সকালে ফিরে আসবো আবার।

নয়তো আর দেখা হবে না। খোকা আমাদের মায়ের ভাষা কে, যে করেই হোক রক্ষা করতে হবে, হুম যে করেই হোক। নয়তো মা মাঠির সঙ্গে বেইমানি করা হবে।

তিনি আরো বলেছিলেন যতদিন বেঁচে থাকবি ততদিন সৎ সাহস এবং আদর্শ বুকে নিয়ে বেঁচে থাকবি। যদি কোন অন্যায় দেখিস তাহলে ঝাপিয়ে পরবি। আমাদের দেশকে রক্ষা করার জন্য জীবন বাজিও যদি রাখতে হয় তাহলে তাতেও পরোয়া করবি না।

১৯৭১ সাল আমার বয়স প্রায় ~ ২৩ এর এপার – ওপার হবে। বাবার কথা গুলো আমার হ্রদের খড়া নাড়াচ্ছিল,, ঠিক তখনই হঠাৎ করে দাঁড়িয়ে গেলাম দৌড়ে গিয়ে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করিলাম, বুকের ভিতর প্রবল সাহস নিয়ে মাকে বললাম আমি এবার যুদ্ধে যাবোই। মা রাজি হলেন যদিও তার পূর্বে অনেক বার বলেছি কিন্তু রাজি হয়নি। আমার কল্পনায় শুধু যুদ্ধের চিএ ভেসছে, কল্পনা করতে-করতে ঘুমিয়ে পড়লাম ।<(সংলিপ্ত) > | সকাল হলো দিনটি ছিল ১৫-ই ডিসেম্বর, আমি সারাদিন শুধু আমার কল্পনায় জল্পনায় চারদিকে মরীচিকার মত শুধু আমি যুদ্ধ করতেছি সেটা দেখতে পারছি।পরদিন রাতের বেলা আমার বড় চাচা এসে বললেন তোমার সকল কিছু ঠিক করা হয়েছে, কাল সকালে তুমি ক্যাম্পে যাবা এবং একটি দলের সঙ্গে তুমি যুদ্ধ করতে যাবে। আমারতো মহানন্দ পরদিন ভোর চারটায় মায়ের দু”পায়ে সালাম করে বেরিয়ে গেলাম ক্যাম্পের উদ্দেশ্যে, সেই ক্যাম্পটি ছিল বাইপাস মোরের কাছে,(বর্তমানে ঐ স্থানটিতে 💞 নটরডেম কলেজ ময়মনসিংহের আবস্থাতান)💞। যুদ্ধে যাওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করিছি তারপর কুয়াশা চন্ন সকালে রওনা হবো দূরে একটি জায়গায় যুদ্ধ করার জন্য কিন্তু সেই জায়গায় উদ্দেশ্যে ক্যাম্প থেকে বের হওয়ার আগেই আনুমানিক তখন ভোর ৭” টা বাজে, তখন একজন বলে উঠে আমাদের কাছে হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে।ক্যাম্পের মেইন গেটে থেকেই ফিরে আসলাম বিজয়ের আনন্দের উল্লাস নিয়ে।

কিন্তু আমি এখন খুব বেশি মিস করতেছি আমার বাবাকে আমার হারানো খেলার বন্ধু ওহিউল্লাকে আমার দুটি চোখ বেয়ে পানি পড়ছে, (এখন আমার বয়স প্রায় ৭১) । ঠিক তখনই আমার পিছন থেকে গুটি গুটি পায়ে কে যেনো দৌড়ে এসে আমার হাত থেকে পতাকাটি নিয়ে বলছে বড় দাদুভাই তুমি কান্না করছো কেন ?

এখন চেয়ার থেকে উঠো তো ! পায়ের জুতা গুলো খুলে রাখ ; আর এই তাজা গোলাপ ফুল টা ধরো ! আজ তো

একুশে ফেব্রুয়ারি তোমার বাবা – ভাইয়ের এবং আরো হাজারো ভাষা শহীদের সেই জীবনের বিনিময়ে আজ আমরা বাংলা ভাষায় ফিরে পেয়েছি তো চলো তাদের প্রতি সম্মান জানাতে যাব প্রভাতফেরী। এরপর শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে বাসায় ফিরে আসি। কিছুক্ষণ পর আমি ছোট্ট দাদুভাই-কে ডাক দিয়ে বলি,শুন ছোট দাদুভাই মাতৃভাষা যেমন একদিনে প্রতিষ্ঠিত হয়নি ঠিক তেমনি ভাবে সেই ভাষা শহীদের প্রতি একদিন সম্মান প্রদর্শন করলেই যথেষ্ট নয়। জ্বী,! বড় দাদুভাই প্রতিটি ভাষা শহীদদের সম্মানার্থে প্রতিটি মিনারের মধ্য দিয়ে আমি তাদের প্রতি সম্মান জানাই প্রতিনিয়ত। আমি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি শহীদ হয়ে যাওয়া ভাষা আন্দোলনে তুমার ৯ বছরের বড় ভাই ওহিউল্লাকে, তোমার বাবাকে এবং সম্মান জানাই সেই সাথে সকল ভাষা শহীদদের প্রতি।

হে একুশে ফেব্রুয়ারি !

আমি কী তুমার সৃতি ভুলতে পরি ?

হে একুশে ফেব্রুয়ারি !

তুমি আমাদের অন্তরের অন্তস্তলে, চিরকাল অমর হয়ে থাকবে তুমি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ