আজ ২৫শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

ধামরাইয়ে একুশের প্রথম প্রহরে পৌর মেয়রকে সাথে নিয়ে তরঙ্গ ক্লাবের শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ

রনজিত কুমার পাল (বাবু)নিজস্ব প্রতিবেদক :

ঢাকার ধামরাই পৌরসভার ঐতিহ্যবাহী সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সংগঠন তরঙ্গ ক্লাব এর উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস উপলক্ষে
২১ ফেব্রুয়ারি মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে রাত সাড়ে এগারো
ঘটিকায় ধামরাই বড় বাজার গোলচত্তরে জমায়েত এবং ধামরাই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার (ধামরাই সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ) অভিমুখে পদ যাত্রা ও ভাষা শহীদদের স্মরণে তরঙ্গ ক্লাব পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রনজিত কুমার পাল (বাবু), সহ-সভাপতি সঞ্জীব চৌধুরী মন্টু, সুব্রত পাল, শিশির পাল সহ সংগঠন এর অন্যান্য সদস্যসহ ধামরাই পৌরসভার মেয়র ও পৌর আ’লীগের সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম কবির মোল্লা মহোদয়কে সাথে নিয়ে ৫২ভাষা শহীদদের স্মরণে একুশের প্রথম প্রহরে (রাত ১২টা ১ মিনিটে) পুষ্প স্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন।

এ’সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ধামরাই পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আরিফুল ইসলাম আরিফ সহ বিভিন্ন কাউন্সিলরবৃন্দ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগন।

আরো উল্লেখ্য এ’সময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রনজিত কুমার পাল বাবু জানান বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব এর কারণে সরকারের স্বাস্থ্য বিধি মেনে মাস্ক পড়ে আসার জন্য আহবান জানানো হয়েছিল এবং করোনার কারণে সংগঠন এর ২১ জনকে ভাষা শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধার্ঘ জানানোর জন্য প্রস্ততি সভায় নির্ধারণ করা হয়েছিল।
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক রনজিত কুমার পাল বাবু বলেন একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদদের রক্তস্নাত পথে উন্মেষ ঘটে বাঙালির জাতীয় চেতনা। বাঙালি খুজে পায় তার জাতিসত্তার আত্মপরিচয়ের দিশা। একুশ মানে মাথা নত না করা।১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি হাজার হাজার ছাত্র জনতার শান্তিপূর্ণ মিছিলে গুলিবর্ষণ করে হত্যা করে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার সহ নাম না জানা অনেককে! জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় বাঙালির আত্ম পরিচয় বিনির্মাণ শুরু হয় স্বাধিকার আন্দোলনের অভিযাত্রা। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম আর লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় বাংলার স্বাধীনতা। আজকের এইদিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সকল ভাষা শহীদ সহ গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহত সকল শহীদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই। কৃতজ্ঞতা জানাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি, তিনি বাংলাকে আন্তর্জাতিক সম্মান এনে দিয়েছেন। একুশ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে পালন করার স্বীকৃতি দিয়েছেন। বাংলা কে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। মাতৃভাষার সম্মান, জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার অবদান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ