আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

কে হতে যাচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ের পৌর মেয়র চলছে বিশ্লেষণ

গৌতম চন্দ্র বর্মন, ঠাকুরগাঁওঃ

আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ ধাপে ঠাকুরগাঁও পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তাই নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচারে পিছিয়ে নেই কোনো প্রার্থী। পৌরসভা জুড়ে ব্যানার, পোস্টার ও লিফলেটের ছড়াছড়ি।

প্রচণ্ড শীত উপেক্ষা করে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা চষে বেড়াচ্ছেন ভোটারের বাড়ি বাড়ি। পাড়া-মহল্লা, চায়ের স্টলে আড্ডাসহ সবখানে এখন নির্বাচনী আলাপ। পৌরবাসীর মুখে-মুখে নির্বাচনই যেন একমাত্র আলোচনার বিষয়। এবার এ জেলায় একদিনে দুটি পৌরসভা নির্বাচন। একটি ঠাকুরগাঁও, অন্যটি রাণীশংকৈল। ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে ও রাণীশংকৈলে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোট হবে।

গত ২৭ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। এরপর থেকে প্রচারে এগিয়ে ঠাকুরগাঁও পৌরসভা। এখানে মোট ভোটার ৬০ হাজার ৭২৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২৯ হাজার ৭১২ ও নারী ৩০ হাজার ১৫ জন।

২০১৬ সালে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তাহমিনা মোল্লাকে পরাজিত করে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার মেয়র হন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ছোট ভাই মির্জা ফয়সাল আমীন। তবে তিনি পৌর এলাকার উন্নয়নমূলক কাজ করতে ‘ব্যর্থ’ হয়েছেন। সেই ব্যর্থতার দায়ও স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি। তাই এ বারের নির্বাচনে মির্জা ফয়সাল লড়াই করছেন না।

ঠাকুরগাঁওয়ে মেয়র পদে লড়ছেন তিনজন। তারা হলেন- কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য আঞ্জুমান আরা বেগম বন্যা (নৌকা), বিএনপির জেলা অর্থবিষয়ক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ (ধানের শীষ) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আনোয়ার হোসেন (হাত পাখা)। এছাড়া ১২ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৬ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে নয় জন প্রার্থী। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি, দিচ্ছেন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। এ দিকে ভোটারদের মধ্যে চলছে হিসাব-নিকাশ।

শহরের হলপাড়া এলাকার ভোটার সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘পূর্বে পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীদের ব্যক্তি ইমেজের একটা প্রভাব কাজ করত। তবে এবার ঠাকুরগাঁও পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী না থাকায় ব্যক্তি ইমেজের প্রভাব থাকছে না।’

শান্তিনগর এলাকার ভোটার কামরুন নাহার জানান, বিগত সময়ে পৌরবাসী উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তাই এবার পৌরসভার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে যোগ্য প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে ভোট প্রদান করবেন তিনি।

কলেজপাড়া এলাকার তরুণ ভোটার সোহেল রানা জানান, এই প্রথম ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ করা হবে। তাই তারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে ভোট দেওয়ার জন্য।

আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী আঞ্জুমান আরা বেগম বন্যা জানান, উন্নয়নে নৌকার বিকল্প নেই। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

উল্লেখ্য, ৩০ জানুয়ারি ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডে একজন কাউন্সিলর প্রার্থী মৃত্যুবরণ করায় এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ