আজ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

ঝালকাঠিতে তথ্য সংগ্রহ করার সময় সাংবাদিকের মোবাইল ছিনিয়ে নেয় কৃষি কর্মকর্তা

ইমাম হোসেন :

ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা জুবায়েত হোসেন ১ম স্ত্রীর বিনা অনুমতিতে পুনরায় বিবাহ করেন এবং ২য় স্ত্রীর রাজাপুরের একটি ক্লিনিকে একটি ছেলে সন্তান জন্মদেন। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে জুবায়েদ হোসেনের ১ম স্ত্রীর রেশমা বেগম রাজাপুরের স্থানীয় সাংবাদিক মো: রফিকুল ইসলাম মাসুমের নিকট মৌখিক ভাবে অভিযোগ জানান। উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সাংবাদিক মাসুম গতকাল ২৩ জানুয়ারী ২০২১ সন্ধ্যায় রাজাপুরের স্থানীয় সোহাগ ক্লিনিকের মালিক সোহাগ হাওলাদারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে জানতে পারেন যে, জুবায়েদ হোসেনের স্ত্রী তার ক্লিনিকে ভর্তি আছেন একই সাথে ক্লিনিকে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করবেন বলে জানান। পরে সাংবাদিক মাসুম ক্লিনিকে গিয়ে জুবায়েত ও তার স্ত্রীকে দেখতে পেয়ে ঘটনার সত্যতা দেখতে পান। এ সময় সাংবাদিক জুবায়েতের একটি ছবি তোলেন । পরে তাদের কাছে মাসুম সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ১ম স্ত্রীর অভিযোগ সর্ম্পকে জানতে চাওয়ায় রাজাপুরে কর্মরত উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত)জুবায়েত হোসেন সাংবাদিকের মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে সাংবাদিক মাসুমের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দেন। সাংবাদিক মাসুম তার মোবাইলটি ফেরত চাইলে জুবায়েত মোবাইল ফোন দিবেন না বলে মোবাইল ফোন নিয়ে ঘটনা স্থান ত্যাগ করেন। বিষয়টি ক্লিনিকের মালিক সোহাগ হাওলাদারকে জানালে তিনি মোবাইলের বিষয় জুবায়েতের সাথে কথা বলবেন বলে জানান। অপর দিকে বিষয়টি ঝালকাঠি সাংবাদিকরা জানতে পেরে জুবায়েতের কাছে তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে কল দিয়ে সাংবাদিকের মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনা জানতে চাইলে তিনি ছিনিয়ে নেয়ার কথা শিকার করেন। কেন ছিনিয়ে নিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি জানান , আমার অনুমতি না নিয়ে আমার ছবি কেন তুলল এ জন্য আমি মোবাইল নিয়েছি। অপরদিকে তারকাছে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর কথা জানতে চাওয়া হলে তিনি দ্বিতীয় বিবাহের কথা শিকার করে বলেন সাংবাদিক আমার ও আমার স্ত্রী-সন্তানের ছবি তুলেছে। ১ম স্ত্রী আমার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করেছে আমাকে জেল খাটিয়েছে। আমি আমার ১ম স্ত্রীর ও সন্তানদের ভরন পোষনের খরচ দিয়ে যাচ্ছি। মোবাইলটি ফেরতের বিষয় জানতে চাওয়া হলে তিনি প্রথমে ফোনটি না দেয়ার কথা বললে ক্লিনিকের মালিক স্থানীয় সাংবাদিক সোহাগ হাওলদোরের সহযোগীতায় ঘটনার পরের দিন সকালে সাংবাদিক মাসুমকে তার মোবাইল ফোনটি ফিরিয়ে দেন। এ বিষয় সাংবাদিক মাসুম জানান, আমি সোহাগ ভাইয়ের অনুমতি নিয়ে ক্নিনিকের ভিতরে যাই। সেখানে গিয়ে জুবায়েদ হোসেনের সাথে তার প্রথম স্ত্রীর অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাই একই সাথে তার একটি ছবি তোলার অনুমতি চাইলে সে উত্তিজিত হয়ে ওঠেন এসময় আমি আমার মোবাইল তার উত্তিজিত হওয়ার দৃশ্য ধারন করি। বিষয়টি তিনি বুঝতে পেরে আমার হাত থেকে আমার মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেন। ঘটনার সময় আমি আমার মোবাইল ফোনটি ফেরৎ চাইলে তিনি ফেরৎ না দিয়ে উল্টো আমাকে গালাগাল করে এবং মামলা করার হুমকি দেয়। আজ সকালে সোহাগ ভাই আমাকে আমার মোবাইল ফোনটি ফিরিয়ে দেন । মোবাইল ফোন হাতে পেয়ে আমি আমার ফোনে ধারনকৃত ছবি পাই নাই। এ বিষয় অনুসন্ধানে জানাযায় , রাজাপুরের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা জুবায়েদ হোসেনের (সাময়িক বরখাস্ত) বিরুদ্ধে তার প্রথম স্ত্রীর দায়ের করা দুটি মামলা চলামান রয়েছে। যার একটিতে জুবায়েতকে বেশ কিছুদিন জেলহাজতে থাকতে হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ