আজ ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ওমানে জরুরি কাগজপত্র নিয়ে পলাতক ধরিয়ে দিলে পুরস্কারের ঘোষণা

এইচ এম হুমায়ুন কবির,বিশেষ প্রতিনিধি

কেরানীগঞ্জের কদমতলীর ফারুক মিয়া দীর্ঘদিন যাবত সুনামের সাথে ওমানে ব্যবসা বানিজ্য করে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করতে ভূমিকা রেখে চলেছেন। ফারুক মিয়ার প্রতিষ্ঠিত ওমানের আল মোদাইবি ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি (এলএলসি) ও ঢাকা সার্ভিস এলএলসি কোম্পানিতে যথেষ্ট পরিমাণে বাংলাদেশি শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন। সম্প্রতি তিনি ছুটিতে আসলে পরিচয় হয় ‌কুমিল্লা জেলার দেবীদ্বার থানার রাজামেহার গ্রামের আব্দুল আউয়াল কাজীর ছেলে মোঃ হারুন কাজী সাথে ।

পরবর্তীতে হারুন কাজী শ্রমিক হিসেবে ওমানে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করলে ফারুক মিয়া বর্তমানে বাংলাদেশীদের এমপ্লয়ি ভিসা বন্ধ থাকায় হারুন কাজীকে তার কোম্পানিতে কাজ করার জন্য ভিজিট ভিসায় নিয়ে যায়। কিছুদিন ভালোভাবে কাজ করার পরে হারুন কাজী ফারুক মিয়ার কোম্পানির কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়,এতে করে ফারুক মিয়ার প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি এবং সেখানে কর্মরত শ্রমিকদের কাগজপত্র নবায়ন অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

কোম্পানির চেয়ারম্যান ফারুক মিয়া এই প্রতিবেদককে বলেন বাংলাদেশ থেকে ভিজিট ভিসায় ওমানে গিয়ে হারুন কাজী ছাড়াও অনেক বাংলাদেশিকে পালিয়ে যেতে দেখা গেছে আর সে কারণেই ওমানিরা বাংলাদেশিদেরকে ভিজিট ভিসা দিতে সবসময় গড়িমসি করে থাকে। একজন বাংলাদেশিকে ভিজিট ভিসা পেতে হলে অনেক শক্ত ও কঠিন নিয়ম কানুন এর বেড়াজাল ব্যাধ করতে হয়। অন্যদিকে ভারতীয় কিংবা পাকিস্তানিরা ভিজিট ভিসা পেয়ে যান অতি সহজেই। ফারুক মিয়া হারুন কাজীকে খুঁজে পেতে সহযোগিতা করে যথাযথ নিয়ম অনুযায়ী ভিসা রিনিউ কিংবা বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে ওমানে বাংলাদেশীদের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে এগিয়ে আসার জন্য সকল প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রতি অনুরোধ জানান।

ইতিমধ্যে পলাতক হারুন কাজীকে খুঁজে বের করে বাংলাদেশী এই কোম্পানিটিকে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচাতে ‌বিষয়টি বাংলাদেশ দূতাবাস ওমানকেও অবহিত করা হয়েছে। উক্ত প্রতারককে ধরিয়ে দিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ কোম্পানিটিকে সহযোগিতা করতে হারুন কাজীকে কোথাও দেখা গেলে নিম্নোক্ত নাম্বারে ফোন করে তথ্য দিলে উপযুক্ত পুরস্কার প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন কোম্পানির চেয়ারম্যান ফারুক মিয়া। যোগাযোগ-90666642

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ