আজ ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

শিউলি আচার্য্য” র কবিতাগুচ্ছ ১

নিজস্ব প্রতিবেদক :

“পোড়া হৃদপিণ্ড”

তুমিতো জানতেই

কাঁচা হৃদপিণ্ডের পোড়া গন্ধ
আমার সহনশীলতার বাইরে!

নিজেকেও কেমন যেন প্রেতাত্মা মনে হয় তখন
মনে হয়, অশরীরী এই আমি বসে
নিজেই নিজেকে পোড়াচ্ছি।

শরীর থেকে গলে গলে পড়া মাংস গুলো
মুক্তি চাইছে
বয়ে যাওয়া রক্তের ধারা কেমন বাষ্পে উড়ে যাচ্ছে আগুনের স্পর্শে।

হৃদপিণ্ডটা তখনো কাঁচা!
সে-কি ছটফটানি তার
তৎক্ষনাৎই আমি আগুনটা নেড়ে দিয়ে
হৃদপিণ্ডটা জ্বলন্ত কয়লায় চাপা দিয়ে দিই।

সে মরতে চায় না, বাঁচতে চায়
ভালোবাসাহীন এই পৃথিবীতেও সে
বাঁচার আকুতি করে আর্তচিৎকারে ;

আমি আবার তার উপর শুকনো কাঠ দিই
ঘি,কেরোসিন ছিটিয়ে দিই, গঙ্গা দিই
বলো হরি, হরি বোল ধ্বনি দিই।

তুমি তো জানোই পোড়া হৃদপিণ্ডের গন্ধ
আমি একদম সইতে পারি না।

২.
“তুমি বিনে”

বহুদিন তোমার সাথে কথা বলা হয় না
আর কথা হয় না বলেই
ইনিয়ে-বিনিয়ে তোমাকে বলা হয়না
কতোটা ভালো আছি।

বলা হয়না, ডাইনিংএ না গিয়েও
ডিনার টা একটু বেশিই হয়ে গেছে আজ।
সুতি ওড়নায় আঙুল চেপে ধরে
বলা হয়না, তোমার দেয়া গোলাপে একটাও কাঁটা ছিল না।

তোমার সাথে কথা বলা হয় না বলেই হয়তো,
মিছি মিছি আর ভালো থাকাও হয়না।
আকাশের মেঘগুলো
এখন মেঘেই রয়ে যায় রংধনু আর হয়না।

হাসিতে আমার কুঁচকে যাওয়া
চোখের ঐ কোনে, কতদিন
তোমার ঠোঁটের আলতো স্পর্শে
আদরের প্রলেপ লাগানো হয় না।

কথা হয়না বলেই
১০৫ ডিগ্রি জ্বর, মাথা ব্যাথা, নিম্ন রক্তচাপ নিয়েও তোমায় মিথ্যে সান্ত্বনা দিয়ে
“আমি খুব, খুব, খুব ভালো আছি”
সে কথাটি আর বলা হয়না।

তোমার নিঃশ্বাসের গরম বাস্পে
আমার চোখ বন্ধ হয়ে আসে না বহুদিন
বহুদিন, তোমার হৃৎস্পন্দনের কম্পনটা
আমার শরীর স্পর্শ করেনা ।

বহুদিন তোমার সাথে কথা বলা হয় না।
আর হয় না বলেই,
মিছি মিছি মিথ্যে ভালো থাকার
প্রয়োজনটাও আর হয় না।

৩.
“শেষ ভালোবাসা”

প্রথম প্রেম বলতে আমার জীবনে কখনো কেউ আসেই নি,
যে বা যারা এসেও হয়তো ছিল, কালবৈশাখী ঝড়ের মতো ছিল।

আসবে আসবে বলে চোখ খুলে দেখি
কখন যে সব কিছু তচনচ করে ফিরে গেলো আবার!

এবার গুছানোর পালা, নতুন করে আবার শুরু সব।
গোছানো প্রায় মাঝপথে, ঘরদোর,হৃদয় কেপে ভুমিকম্প আবার!
সব বিধ্বস্ত;

একটু হেসে বলি সবকিছু একটু গুছিয়ে নিতে দিতিস্
তাহলে ধ্বংসের আনন্দটা হয়ত আরেকটু বেশি উপভোগ করতে পারতিস্।

থাক তবে সব এমনই,অগুছালো কাদা মাটি,
এমন সময় অপরিচিত এক পথিক কাঁধে ঝুলানো একটা ছেঁড়া থলে।
এসে বললো “আমি ও বাঁচি আশাহীন আপনারই মতো, যদি একটু আশ্রয় পেতাম”
চলুন না, এবার নাহয় দু’জন একসাথে সব শুরু করি আবার।

পথিকের মুখটা বড্ড মায়াবী, চোখে ভালোবাসার আকুতি
ভাবার মতো মন ছিলোনা আমার
তাও নয়-ছয় ভেবে
হুট করেই মনে এলো, পথিকের একটা ঘর দরকার।

আবার শুরু হয় গড়ার খেলা আবার সেই মাঝপথ।
পথিক এখন আমার বড্ড আপন,
বৃক্ষের শেকড়ের মাটির মতো একজন আরেক জনকে আঁকড়ে ধরে বাঁচি।

আমাদের ভালোবাসার বৃক্ষটা বিস্তৃত হতে থাকে শাখা প্রশাখায়
নতুন কুঁড়ি আর ফুলে-ফলে বৃক্ষের যেনো ভরা যৌবন।

ইচ্ছে হলেই আমরা শিশিরে পা ভেজাই জোনাকিদের সাথে নির্ঘুম রাত কাটাই
পদ্মের মতো ভাসি মাঝ পুকুরে
উজ্জ্বল দুপুরের সূর্যমূখী হয়ে ফুটি,
রাতে জোছনা স্নান করি একসাথে।

পথিক একদিন আমার হাতটা শক্ত করে চেপে ধরে বলে, “ঐযে চাঁদটা দেখছো.. সে ছিলো আমার প্রথম প্রেয়সী তুমি দ্বিতীয়”..

আমি লাজে রাঙা হয়ে দুহাতে মুখ ঢাকি
যতক্ষণে চোখ খুলি দেখি,
দেখি, চারদিকে সব তচনচ হয়ে আছে
আমার পথিক কোথাও নেই!

পড়ে থাকা একটা চিরকুটে লেখা
“সংসারের মায়া ত্যাগ করে আমি বৈরাগ্য নিচ্ছি ”
সেই বলে পথিক আমার কোথায় যে হারিয়ে গেলো
এ জন্মে তার দেখা মিলেনি আর।

ফেলে রাখা পথিকের থলেটা বুকে জড়িয়ে
এই প্রথমবার চিৎকার করে কাঁদলাম।

পথিক,
প্রথম প্রেম বলতে আমার কেউ ছিলোনা
শুধু শেষ প্রেমে তোমার নাম লেখা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ