আজ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

আত্রাইয়ে ওসি’র সহযোগীতায় পাবনার অসহায় মেয়ের বিয়ে সম্পূর্ণ

মোঃ শিফাত মাহমুদ ফাহিম, বিশেষ প্রতিনিধি

 

নওগাঁ জেলার, আত্রাই উপজেলায় বিয়ের দাবিতে পাবনার মেয়ে মোছাঃ সাজেদা আক্তার (২৩) গত ১৪।০৩।২০২০ তারিখ রোজ রবিবার আসেন আত্রাইয়ের ছেলে মিঠু কাছে।

খোঁজ নিয়ে জানাযায়, মিঠুর সাথে পরিবারের সাথে সাজেদার পরিবারের আত্মীয়ার সম্পর্ক ছিলো এবং আছে।সেখান থেকে তাদের মাঝে দীর্ঘ দিনের চেনা পরিচয় ও প্রেম ভালোবাসার সম্পর্ক তৈরী হয়।এবিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী সাথে কথা বলে জানাযায়,মিঠু পেশায় রাজমিস্ত্রী সে কাজের সুবাদে উপজেলার জামগ্রাম নামক স্থানে আসেন ও কাজ করেন।

ইতিমধ্যে মেয়েটি বিয়ের দাবিতে খোঁজতে খোঁজতে মিঠুর কাছে চলে আসে এবং এসে বিয়ের দাবি করেন।এ নিয়ে এলাকায় নিমিষেই ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা সহ থমথমে অবস্থা বিরাজ করলে কেউ একজন থানায় খবর দেয়।তাৎক্ষনিক থানা থেকে এসআই প্রদীপ বাবু সহ নেতৃত্বে একদল পুলিশ এসে মেয়েটিকে উদ্ধার করে থানা নিয়ে জান।

এবিষয়ে এসআই প্রদীপ বাবুর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে উনি বলেন,আমরা খবর পেয়ে সেখানে যেয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি।সেই সাথে তাৎক্ষনিক মেয়ের পরিবারের কাছে বিস্তারিত জানিয়ে খবর পৌঁছায়।গতকাল মেয়ের পরিবার ও ছেলের পরিবারের উপস্থিতে বিয়ের কাজ সম্পূর্ণ করা হয় আমাদের ওসি স্যারের নির্দেশে।

এ বিষয়ে আত্রাই থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ মোসলেম উদ্দিনের সাথে কথা বলা হলেও উনি বলেন,
অসহায় মেয়েটির জীবন কাহিনী ও তাদের প্রেম ভালোবাসার কাহিনী শুনে আমরা তাদের পরিবারের উপস্থিতে কাজী ডেকে ইসলামের বিধান অনুযায়ী শরিয়ত মোতাবে বিয়ে দিয়ে দিয়েছি।কারণ মেয়েটি অনেক অসহায় সে ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকুরী করে ইতিমধ্যে ছেলের পরিবারকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা দিয়েছে।মেয়েটির মা নেই তারা ৬ বোন ৩ ভাই বাবাও একজন দারিদ্র মানুষ তাই সকল দিক ভেবে চিন্তে তাদের সম্মতিতে পরিবারের উপস্থিততে গতকাল রাতে আমরা বিয়ে দিয়ে দিই।

সেই সাথে উনি আরও বলেন,ছেলেটি আত্রাই উপজেলার মালিপুকুর গ্রামের মোঃ মানিক হোসেন(৫৫) ছেলে মোঃ মিঠু হোসেন (২৫) আর মেয়েটির থানা ও জেলা পাবনা,সাং পাইকেল, পিতা আব্দুস সাত্তার (৬০) এর তৃতীয় মেয়ে মোছাঃ সাজেদা আক্তার (২৩)।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ