আজ ২৫শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

সরাইলে কোটিপতি চৌকিদার সুমনের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

হাসনাত কাইয়ুম, সরাইল( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) 
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার চুন্টা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের কোটিপতি চৌকিদার (গ্রামপুলিশ) সুমন মিয়ার বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছেন সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার চৌকস সদস্যরা। ইতোমধ্যে তদন্তের সিংহভাগ কাজ তাঁরা শেষ করেছেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে তা নিশ্চিত হওয়া গেছে।  তদন্ত টিমের একজন সদস্য এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা চৌকিদার সুমনের কোটি টাকার আলিসান বাড়ি সরেজমিনে দেখে বিস্মিত হয়েছি। তার অন্যকোনো পেশা নেই, শুধু চৌকিদারী চাকুরী করে সে এতো টাকা পেল কোথা থেকে? তার দু’তলা বাড়ির ছাদ পর্যন্ত দামী টাইলস লাগানো রয়েছে। এছাড়াও চৌকিদার সুমনের রয়েছে আরও স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি।
উল্লেখ্য, গত বছরের জুলাই মাসের শেষ দিকে চৌকিদার থেকে কোটিপতি বনে যাওয়া সুমনের বিরুদ্ধে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ হয় বিভিন্ন অনলাইন পোর্টাল ও প্রিন্ট পত্রিকায়। পরবর্তীতে বিষয়টি আমলে নেন যথাযথ কর্তৃপক্ষ।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চুন্টা ইউপির নতুনহাটি গ্রামের আঃ ছাত্তারের ছেলে সুমন মিয়া। আঃ ছাত্তার আগে এ ওয়ার্ডের চৌকিদার ছিলেন। চৌকিদারী চাকুরির পাশাপাশি তিনি রাষ্ট্রীয় বয়স্কভাতা গ্রহণ করেন নিয়মবর্হিভূতভাবে। পরে বেশ কয়েকবছর পর এ নিয়ে তদন্ত হলে তিনি চাকরিচ্যুত হন। অভাব-অনটনের সংসারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় আঃ ছাত্তারের চৌকিদারী চাকরিটা পান ছেলে সুমন মিয়া।
অভিযোগ আছে, চৌকিদারী চাকরি পাবার পর সুমন বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। সংশ্লিষ্ট ইউপি দফতরে তিনি সময় না দিয়ে থানার বিভিন্ন দারোগার সোর্স হিসেবে দিনরাত কাজ শুরু করেন। পরিষদের খাতায় নিয়মিত হাজিরা দিলেও তিনি চৌকিদারী পোশাক পড়তেন না। সবসময় পুলিশের সঙ্গে থাকাতে পরিষদের জনপ্রতিনিধি কেউ তাকে কিছু বলার সাহস করতেন না। কয়েকবছর আগে সরাইল থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করেন আলী আরশাদ নামে এক দাপুটে পুলিশ অফিসার। সেই ওসির সঙ্গে গড় ওঠে চৌকিদার সুমনের সখ্যতা। পেয়ে যান আলাদীনের চেরাগ। সেই থেকে আর পেছনে ফিরে থাকাতে হয়নি চৌকিদার সুমনকে। রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যান সুমন।
সরাইল উপজেলায় বিভিন্ন স্পটে প্রকাশ্যে বিক্রি শুরু হয় নানা প্রকার মাদক। দিনরাত চলে জুয়ার আসর। বিভিন্ন অপরাধ স্পট থেকে নিয়মিত তোলা হয় মাসোহারা। আর এসব থেকে থানার ক্যাশিয়ার হিসেবে টাকা তুলতেন চৌকিদার সুমন। এলাকায় চাউর আছে, তৎকালীন ওসি আলী আরশাদ ও চৌকিদার সুমনের প্রভাব ও নানা কর্মকাণ্ডের ফলে সরাইলের একাধিক স্থানে মাদকের ডিপো গড়ে উঠে। এসব ডিপো থেকে উপজেলার মেঘনা নদী তীরবর্তী পানিশ্বর এলাকা হয়ে নৌপথে মাদক পাচার হতো ভৈরব, নরসিংদী ও কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন মাদক স্পটে।
সরাইল থানায় চাকরি করে গেছেন এমন কয়েকজন অফিসারের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, চৌকিদার সুমন ছিল তৎকালীন ওসি আলী আরশাদের খুবই বিশ্বস্ত। ওসির সকল লেনদেন সুমনের মাধ্যমে হতো। একদিন ওসি আলী আরশাদের অফিসের টেবিলের বক্স থেকে নগদ তিন লক্ষ টাকা চুরি হয়। সেই চুরিটা করেছিল চৌকিদার সুমন। ওসি তাকে হাজতে ঢুকিয়ে মারধর করলেও সুমন টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করেনি। ঘুষের টাকা, মানুষ জানাজানি হলে অসুবিধা হতে পারে, এই ভেবে ওসি আলী আরশাদ চৌকিদার সুমনকে ছেড়ে দেন এবং সেই থেকে আলী আরশাদের সঙ্গে সুমনের দূরত্ব বেড়ে যায়। পরবর্তীতে সেই ওসি আলী আরশাদ জেলার বিজয়নগর থানায় মাদক কেলেঙ্কারিতে ধরা পড়েন এবং তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেন পুলিশ বিভাগ।
এদিকে স্থানীয় লোকজন ও একাধিক জনপ্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, চৌকিদার সুমন শুধু মাদক ব্যবসার টাকা দিয়েই কোটিপতি বনে গেছেন। তার এই কোটিপতি বনে যাওয়ার পেছনে রয়েছে অতীতে এখানকার থানায় চাকরি করে যাওয়া কিছু অসাধু পুলিশ অফিসার। এখনও সুমন তার ঘরে ওসি আলী আরশাদের ছবি দামী ফ্রেমে সাঁটিয়ে রেখেছে। চৌকিদার সুমন যেই খাটে ঘুমান এর মূল্যে দুই লক্ষাধিক টাকা। প্রায় ৯ মাস কয়েকজন মিস্ত্রি দিনরাত কাজ করে এ খাট তৈরি করেছেন। সুমনের দুটি মোটরসাইকেল। একটি হাং কোম্পানির, অন্যটি হিরো স্প্যালেন্ডার। দুটি মোটরসাইকেলই কাভার দিয়ে ডেকে রাখা হয়েছে। ঘরে দুটি ফ্রিজ, একটি ডিফ ফ্রিজ। এছাড়াও রয়েছে দামী সোফা, ষ্টীলের আলমারি, কাঠের নরমাল একাধিক খাট, দামী কাঠের কেবিনেট সহ অন্যান্য মালামাল।
সরাইল সদরের প্রাতঃবাজার এলাকায় ফরিদ মিয়ার বাড়ির দুটি ফ্ল্যাট চৌকিদার সুমন ১৫ লক্ষ টাকায় বন্ধক (দায়সুদি) নিয়ে একটিতে তিনি থাকেন, অন্যটি ভাড়া দিয়েছেন। কোটি টাকা খরচ করে বাড়ি বানিয়েছেন। শুধু বাড়ি-ই নয়, মেঘনা নদীর স্থানীয় আজবপুর ঘাটে চৌকিদার সুমনের তিনটি ষ্টীলের নৌকা রয়েছে। একেকটি নৌকার মূল্য ২০ লক্ষ টাকার বেশি। সেই হিসেবে তিনটি নৌকার মূল্য অন্তত ৬৫ লক্ষ টাকা।
নতুনহাটি গ্রামের সাবেক এক ইউপি সদস্য জানান, সুমনের বাবা আঃ ছাত্তার এই ওয়ার্ডের-ই চৌকিদার ছিলেন। পারিবারিকভাবে তাদের আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না। পরে পিতার চৌকিদারী চাকুরিটা ছেলে সুমন পায়। তিনি আরও জানান, সুমন এত টাকা কোথায় পেল ? এই প্রশ্ন শুধু আমার নয়, এখানকার প্রতিটি মানুষের। তবে চৌকিদার সুমনের প্রতি থানাপুলিশের নেক নজর আছে।
এলাকার অনেকে জানান, সুমনের চৌকিদারী চাকুরি ছাড়া আর অন্য কোনো পেশা নেই। তার একমাত্র ছোট ভাই রাজন মিয়া, সুমনের কেনা ষ্টীলের নৌকাগুলো দেখভাল করেন। তবে চৌকিদার সুমন জিরো থেকে হিরো হয়েছেন পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করে। আসলে পুলিশের আশির্বাদে আজ সুমন অন্তত দুই কোটি টাকার বেশি সম্পদের মালিক বনে গেছেন। বর্তমানে চৌকিদার সুমন উপজেলা সদরে প্রভাবশালী এক রাজনৈতিক নেতার আশ্রয় ও প্রশ্রয়ে আছেন। বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চৌকিদার সুমন সেই নেতাকে ৮ লাখ টাকা দেন এবং এই টাকার কথা সুমনই গর্ব করে অনেকের কাছে বলে বেড়িয়েছে। ফলে তার যেকোনো আপদবিপদ সেই নেতাই ঠেকাবেন বলেও চৌকিদার সুমন জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে চৌকিদার সুমন মিয়া দাবি করেন, আমি বহু আগে থানার ক্যাশিয়ারের দায়িত্ব পালন করেছিলাম, এখন আমি এসবের মধ্যে নেই। মাঝেমধ্যে থানায় যাই, মানুষের জন্য কিছু তদবির করি। কোটিপতি হওয়ার নেপথ্যের কারণ জানতে চাইলে সুমন মিয়া জানান, আমি এসব টাকা-পয়সা বুদ্ধির জোরে কামিয়েছি, চুরি-ডাকাতি করে নই। এখন আমি বৈধ পথে ব্যবসা করার কথা ভাবছি

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ