আজ ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুলাই, ২০২৪ ইং

তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অ্যাম্বুলেন্স থাকলেও নেই চালক“সেবা বঞ্চিত জরুরী ও মুমূর্ষ রোগীরা

 

তানভীর আহমেদঃ তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ

জনবল সংকটসহ নানান সমস্যার মধ্য দিয়েই চলছে সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কার্যক্রম। জানাযায়, চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোঁড়ে নিশ্চিতকরণ প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উপহার হিসেবে ৫০ শয্যায় উন্নতি করনকৃত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নতুন এ্যাম্বুলেন্স প্রদান করা হয়। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর হাওর বেষ্টিত এই উপজেলাবাসী একটি এ্যাম্বুলেন্স পাওয়ার পরে প্রথমে চালক থাকলেও বর্তমানে প্রায় ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও নিয়োগ হয়নি চালকের। এতে সেবা বঞ্চিত হচ্ছেন উপজেলার মুমূর্ষ রোগীরা। ড্রাইভারের অভাবে গর্ভবতী মহিলা, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রোগীসহ হাসপাতালে আসা মুমূর্ষ রোগীদের কাজে আসছে না নতুন মডেলের আধুনিক ও শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত সরকারি এ এ্যাম্বুলেন্সটি। এ কারণে এ্যাম্বুলেন্স সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন উপজেলাবাসী।

আবার,অপরদিকে, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ্যাম্বুলেন্স আছে এমন বিষয় জেনে উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জরুরি রোগীদের নিয়ে আসা হয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। কিন্তু ড্রাইভার না থাকায় এ্যাম্বুলেন্স সেবা না পেয়ে জরুরি রোগীদের পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। বিশেষ করে আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল রোগির পরিবারকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার এই এ্যাম্বুলেন্স আসার পর হাসপাতালের আউটসোর্সিং থেকে কায়সার আহমদ নামে প্রথমে চালক ছিলেন। পরে করোনা মহামারি কারনে তাকে প্রেষণে জেলা সদরে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে অ্যাম্বুলেন্সটি চালকশূণ্য।

স্থানীয় এলাকাবাসীরা জানান, ‘এ্যম্বুলেন্স পাওয়ার অর্ধবছর পেরিয়ে গেলেও কার গাফলাতিতে এ্যম্বুলেন্স চালক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না, তা আমদের বোধগম্য হচ্ছে না। হাসপাতালের মত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় এমন খামখেয়ালী মেনে নেয়া দুঃখজনক। আমরা চাই হাওরপারের মানুষের কথা চিন্তা করে অতিদ্রুত যেন এ্যাম্বুলেন্সের চালক নিয়োগ দেয়া হয়।

মাসুক মিয়া নামে রোগীর এক স্বজন জানান, ‘আমি দিন আনি দিন খাই, আমার স্ত্রী একজন গর্ববতী রোগী। আজ তার প্রসব হবে। আমাদের হাসপাতালে একটি এ্যাম্বুলেন্স রয়েছে জেনে আমার স্ত্রীকে এখানে নিয়ে আসছি। যাতে কোনো সমস্যা হলে সাথে সাথে ব্যবস্থা করা যায়। এখন আমার স্ত্রীকে বিভাগীয় শহরের একটি হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইবার না থাকায় বিপাকে পড়ে গেছি। তাছাড়া অন্য একটা গাড়ী যে ভাড়া করে নিবো সে পরিমান টাকাও নাই।
এসময় তিনি আরো জানান, প্রধানমন্ত্রীর উপহারকৃত এই এ্যাম্বুলেন্সটি আমাদের হাওরবাসীর জন্য সোনার হরিণের মত। কিন্তু এই হরিন আমাদের কাছে থাকার পরও আমরা তা ব্যাবহার করতে পারছি না।আমরা চাই অতিদ্রুত যেন এর সমাধান ঘটে।
এছাড়াও ড্রাইভার না থাকায় প্রায় সময় বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখিন হতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। সেই সাথে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পর্যাপ্ত চিকিৎসক, নার্স, ঔষধসহ প্রয়োজনীয় জনবলেরও অভাব রয়েছে বলেও অভিযোগ আছে।

টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের গোলাবারি গ্রামের আমিন মিয়া জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ্যাম্বুলেন্স আছে এমন বিষয় জেনে জরুরি এক রোগী নিয়ে হাসপাতালে হাজির হই। কিন্তু ড্রাইভার না থাকায় এ্যাম্বুলেন্স সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়ে সিএনজি করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে যেতে হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: ইকবাল হোসেন জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জনবল সংকট সহ এ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার নিয়োগের বিষয়ে দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। আশা করছি শীঘ্রই এসব সমস্যার সমাধান হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ