আজ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জুন, ২০২২ ইং

ধামরাইয়ে দুর্গাপূজার মহাসপ্তমী পূজো সীমিত পরিসরে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকায় পালিত হচ্ছে

 

রনজিত কুমার পাল ( বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক :

সনাতনধর্মী হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ এড়াতে সরকারের স্বাস্থ্য বিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকার মধ্য দিয়ে ধামরাই উপজেলায় ১৬৩টি মন্দির ও পূজা মন্ডপে গতকাল মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে।
করোনার কারণে উৎসব বিহিন জৌলসহীন আয়োজন তবুও,ঢাক-ঢোল কাসর ঘন্টা আর বাদ্যের সাথে শংখ ধ্বনি ও আগত ভক্ত নারীদের উলু ধ্বনিতে এবারের দূর্গা পূজা মন্ডপে মন্ডপে দেবী দূর্গা আগমনে সনাতনধর্মী হিন্দু সম্প্রদায়ের ভক্তবৃন্দের মাঝে আনন্দ বইছে। তবে করোনার কারনে এবার উৎসব আমেজহীন পরিবেশ বিরাজ করছে প্রতিটি পূজা মন্ডপে। তেমন কোনা উৎসব মূখরতা নেই।
পুজারী ভক্ত আরতি রাণী পাল ও সন্ধ্যা রাণী পাল বলেন করোনার জন্য এবার আমরা পুজা করছি বড় কোনো আয়োজন নেই। মা দুর্গা কাছে আমরা প্রার্থনা করছি মা যেনো আমাদের দেশ ও সারা বিশ্ব থেকে এই অদৃশ্য শক্তি করোনা নামে অসুর করোনাসুরকে বিনাশ করে শান্তি ফিরিয়ে দেন। সবাই যেনো স্বাভাবিক জীবনে সুখ শান্তিতে ফিরতে পারি তার জন্য মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা জানিয়েছি।
করোনার কারনে শুধুমাত্র ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানাধীর মধ্য দিয়ে দেবী সপ্তমী পুজা অনুষ্ঠিত হয়েছে বলেন জানান ধামরাইয়ের বড় বাজার ঐতিহাসিক সার্বজনীন শ্রী শ্রী দূর্গা মন্দিরের পুরোহিত মানিক লাল গোস্বামী।
ধামরাইয়ের বড় বাজার সার্বজনীন দূর্গা মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক রনজিত কুমার পাল (বাবু) বলেন কারোনা মহামারীর কারনে এবার পুজা করছি উৎসব নয়। সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দিরের পক্ষ থেকে আগত সকল ভক্তদের মাঝে মাক্স বিতরন করা হচ্ছে।

সপ্তমী পূজায় দেবী দূর্গাকে ভক্তি ভরে প্রার্থনা করে ভক্তরা মা ভক্তদের শুভাশিষ প্রদান করে। উপচে পড়া ভক্ত দর্শনার্থীদের ঢল ও মহা আনন্দ উৎসব নেই এখন ধামরাইয়ের প্রতিটি পূজা মন্ডপে।
ভক্তের বক্তব্য—-
আর প্রবাহমান কালের গতিতে ও ঋতুচক্রের আর্বতে প্রতিবছরের ন্যায় এবারো শরৎ পেরিয়ে মল মাসের কারনে হেমন্তে মা এসেছেন ভক্তদের মাঝে।এসেছে আগমনী বার্তা নিয়ে । মা এবার দোলায় গমন আগমন ও গজে গমন করবেন।

আসুরিক শক্তি যখন মানবিক শক্তিকে পদদলিত করে.তখনই সর্ব শক্তিমান বিশ্ব স্রষ্টা আর্বিভূত হন ঈশ্বর রূপিণী মা দূর্গা রূপে। সেই ধরা ধামে সন্তানেরা কাছে পেয়ে হয়ে যায় আত্মহারা।সবার কন্ঠে ধ্বনিত হয়“যা দেবী সর্বভূতেষু মাতৃরূপেণ সংস্থিতা,নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমোঃ নমোঃ”।

মাতৃ পূজার এই আয়োজনকে ঘিরে ধামরাইয়ের সকল পূজারী ভক্তরা করোনা থেকে মুক্তি পেতে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় এবার পূজায় ব্রতি হয়েছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ