আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

দুই শিশুর কান্না,প্রান কেরে নিলো ছিনতাইকারী

অনলাইন ডেক্স

 

কোনো দিন ঢাকা শহর দেখা হয়নি শাহরিয়ার ও তামিমার । সিলেটের বাড়ি থেকে ফরিদপুর বেড়াতে যাওয়ার সুযোগে তাদের ঢাকা দেখা হয়। বাবা মাকে নিয়ে তারা ওঠে ঢাকার এক আত্মীয়ের বাসায়। গতকাল শনিবার(২৯ শে ফেব্রুয়ারি) সকালে ট্রেনে চড়ে সিলেটে যাওয়ার কথা ছিল তাদের। ঝকমকে এই ঢাকা শহরের ছিনতাইকারীরা জীবিত ফিরতে দেয়নি গৃহবধূ কে। গতকাল শনিবার ভোরে মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটে রাজধানীর কমলাপুরের টিটিপাড়া এলাকায়। নিহত তারিনা বেগম লিপা (৩৮)। গতকাল সকালে ট্রেনে থাকার কথা ছিল সেই শিশুদের থাকতে হয়েছে ঢাকা মেডিকেলের মর্গের সামনে। মাকে হারিয়ে মর্গের সামনে দুই শিশুর কান্নায় অন্য রকম এক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে শাহরিয়ার। পরীক্ষা শেষে ছেলেকে নিয়ে বেড়াতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তাদের বাবা গোলাম কিবরিয়া। গত মঙ্গলবার তিনি তার স্ত্রী তারিনা বেগম ছেলে শাহরিয়ার ও মেয়ে তামিমাকে নিয়ে ফরিদপুরে এক আত্মীয়ের বাড়ির উদ্দেশ্যে বের হন। সেখান থেকে তারা প্রথমে ঢাকার সবুজবাগের রাজারবাগের কদমতলা এলাকার আবু তাহের ইয়াসিনের বাড়িতে আসেন। ফরিদপুরের আত্মীয়র বাড়ি বেড়াতে গিয়ে এক রাত থেকে ফরিদপুর থেকে আবারো সিলেটে যাওয়ার জন্য রওয়ানা দিয়ে কিবরিয়া পরিবার। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে ঢাকায় ইয়াসিনের বাড়িতে আসেন। সেখান থেকে শনিবার ভোর সোয়া পাচটার দিকে তারা সিলেটের পারাবত ট্রেন ধরার জন্য রওয়ানা হন। সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ট্রেন ছাড়ার সময় ছিল। দুটো রিকশায় ওঠেন তারা। সামনের রিকশাতে ছিলেন নিহত লিপা ও তার ছেলে শাহরিয়ার। পেছনের রিক্সায় ছিলেন গোলাম কিবরিয়া ও তার তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া কন্যা তামিমা।

তাদের বহনকরী রিকশা দুটো কমলাপুর স্টেশনের আগে টিটিপাড়া এলাকা পার হওয়ার সময়ই পেছন থেকে একটি সাদা প্রাইভেটকার এসে তারিনা ও শাহরিয়ারকে বহনকারী রিকশার পাশে গতি কমিয়ে প্রাইভেট কারের জানালা দিয়ে তারিনার কাধে ঝুলানো ব্যাগ ধরে টান দিয়ে নিয়ে যায়। কিছু বুঝে উঠার আগেই তারিনা রিকশা থেকে পরে যায় নিচে। মাথা, নাক মুখে আঘাত পেয়ে রক্তাক্ত হন। বাবা ও ছেলে তারিনাকে কাধে তোলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা সময় উপস্থিত হয় পুলিশ। পুলিশের সহযোগিতায় তারিনা বেগমকে মুগদা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে চিকিৎসকরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন। ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা মেডিকেল মর্গের সামনে গিয়ে দেখা যায় তামিমা ও শাহরিয়ার পাশাপাশি বসে কাদছে। তাদেরকে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করছে তাদের এক আত্মীয়।

শাহিরায়ার জানায়, জীবনের প্রথমবার তার মা, বোন ঢাকায় এসে মাকে হারালাম। বাবা গোলাম কিবরিয়া সিলেটের মোগলাবাজার জালালপুর এলাকার বাসিন্দা। তিনি এক সময় বিদেশে ছিলেন। কয়েক বছর আগে দেশে ফিরে ব্যবসা করছে। আমাদের এই ঢাকা শহর কি এভাবেই চলবে? কেউ কি নিরাপদে চলতে পারবে না? ছোট্ট শিশুটিকে কি দিয়ে বুঝাবো। ছিনতাই ও হত্যা ঘটনায় মুগদা থানায় মামলা দায়ের। মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার সাহা জানায় নিহত নারীর স্বামী বাদী হয়ে মামলা করেন। তিনি আরও বলেন ছিনতাইকারী চক্রটি কে গ্রেপ্তার করার জন্য তাদের একাধিক টিম মাঠে রয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ