আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

সাভার ও আশুলিয়ায় পৃথক ধর্ষণের শিকার ৪ শিশু, গ্রেফতার ২

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ধর্ষণের সর্বোচ্চ বিচারের দাবিতে যখন দেশ উত্তাল, ঠিক তখনও সাভার ও আশুলিয়ায় বিভিন্ন এলাকায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটেই চলেছে। গণধর্ষনের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই সাভার ও আশুলিয়া পৃথক স্থানে আবারও চার শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম ও আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক জয়ন্ত সাহা। জিয়াউল ইসলাম জিয়ার বিরুদ্ধে তারই অসুস্থ কন্যা সন্তানকে ও হেলাল উদ্দিনকে একই সময়ে ৩ শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পৃথক থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) বিকেলে সাভারের নামাগেন্ডা মাদ্রাসার মোড় এলাকা থেকে জিয়াউল ইসলাম জিয়া (৩৫) ও রাত ১২ টার দিকে আশুলিয়ার তৈয়বপুর এলাকা থেকে হেলাল উদ্দিন শেখ (৫৭) কে গ্রেফতার করে সাভার ও আশুলিয়া থানা পুলিশ।

গ্রেফতার হেলাল উদ্দিন শেখ ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থানার ছোয়ানী রসুলপুর গ্রামের মৃত ময়েজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি ওই এলাকায় বাড়ি নির্মাণ করে পোশাক শ্রমিকদের বাসা ভাড়া দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। অপরজন জিয়াউল ইসলাম রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার চৌধুরীপাড়া ভক্তিপুর এলাকার খলিল উদ্দিনের ছেলে। সে নেশাগ্রস্ত বলে জানা গেছে

ভুক্তভোগীর বাবার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, জমজ দুই কন্যা শিশুসহ ওই এলাকায় হেলাল উদ্দিন শেখের বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে স্থানীয় পোশাক কারখানায় কাজ করতেন ভুক্তভোগীর বাবা মা। পোশাক কারখানায় কাজ করায় শিশু সন্তান দিনে বাসাতেই একাই থাকতো। প্রতিদিনের মত গত ৬ অক্টোবর সন্তানদের বাসায় রেখে কাজে যায় ভুক্তভোগীর বাবা মা। বাসায় না থাকার সুযোগে কোমল পানীয় মজো কিনে দেওয়ার কথা বলে জমদ দুই শিশুসহ প্রতিবেশী আরও এক শিশুকে তার নিজ ঘরে ডেকে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে কাজ থেকে ভুক্তভোগী শিশুর বাবা মা ফিরে আসলে কান্নাকাটি শুরু করে। কান্নার কারন জানতে চাইলে বাবা মার কাছে ঘটনা খুলে বলে তারা। পরে ঘটনা ধামাচাপা দিতে নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করে ভুক্তভোগীদের। একই সাথে ভয়ে দুই দিন মুখ খোলার সাহস পায় নি ভুক্তভোগী পরিবার। পরে সচেতন এলাকাবাসী ‘৯৯৯’ এ কল করে ঘটনা খুলে বললে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

অন্যদিকে সাভারের ওই এলাকায় ভুক্তভোগীর মা গত ৫ অক্টোবর অসুস্থ শিশু (১২) কে বাসায় রেখে কারখানায় কাজে যায়। এ সময় সুযোগ বুঝে তার স্বামী জিয়াউল ইসলাম মেয়েকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণ করে। বিকেল ৫ টার দিকে কাজ থেকে মা বাসায় ফিরে এলে কান্নাকাটি করে ঘটনা খুলে বলে। পরে থানায় অভিযোগ দিলে ৮ অক্টোবর বিকেলে তাকে আটক করা হয়। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীর মা বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক জয়ন্ত কুমার জানান, গত ৬ অক্টোবর এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও স্থানীয়ভাবে বিষয়টি ধামাচাপা দেয় দুই দিন। তবে দুই দিন পরে হলেও ৯৯৯ এ কেউ ফোন করে ঘটনা খুলে বললে রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ