আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ ইং

কালীগঞ্জে ভিক্ষুদের মাঝে নগদ অর্থ ও গরু বিতরণ অনুষ্ঠিত

কালীগঞ্জে ভিক্ষুদের মাঝে নগদ অর্থ ও গরু বিতরণ অনুষ্ঠিত

ভিক্ষুকমুক্ত করতে এবং ভিক্ষাবৃত্তিকে নিরুৎসাহিত করতে পুনর্বাসনের কাজ শুরু করেছে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসন। এ লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ভিক্ষুক মুক্ত করার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তারই অংশ হিসেবে ভিক্ষুক পুর্নবাসন কর্মসূচীর আওতায় জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নে ভিক্ষুক পুনর্বাসন ও বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে ৩৫ জন ভিক্ষুককে নগদ ৪৫০০ টাকা, ১০০ কেজী চাল ও গরু অনুদান হিসেবে দেয়া হয়েছে।
জেলা প্রশাসনের আর্থিক সহায়তায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী দুপুর সাড়ে ১২ টায় তুষভান্ডার আরএমএমপি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ অনুদান বিতরণ করা হয়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফেরদৌস আহমেদ এর সঞ্চালনায়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফর।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম, রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ,জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক অনিরুদ্ধ কুমার রায়,উপজেলা সমাজসেবা অফিসার সুকান্ত সরকার,কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কমল কৃঞ্চ সরকার, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজনীন রহমান,তুষভান্ডার ইউপি চেয়ারম্যান নুরইসলাম আহমেদ,প্রেসক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আমিরুল ইসলাম হেলাল।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবিউল হাসান জানান,ভিক্ষাবৃত্তি একটি স্বাধীন জাতির জন্য মর্যাদাহানিকর। ভিক্ষুকদের স্বাবলম্বি করে গড়ে তুলতে সরকার বিশেষ কর্মসূচি গ্রহন করেছে। কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নে ইতোমধ্যে ৬৫ জন নারী ও পুরুষ ভিক্ষুকের তালিকা তৈরী করা হয়েছে। তার মধ্যে ৩৫ জনের মাঝে অনুদান বিতরন করা হয়। বাকীদের পর্যাক্রমে পূনার্বাসন করা হবে।

লালমনিরহাটের জেলা প্রসাশক আবু জাফর বলেন, এই জেলায় যারা ভিক্ষাবৃত্তির সাথে জড়িত। তাদের তালিকা তৈরী করা হয়েছে। এদের ভিক্ষুবৃত্তি বন্ধ করতে বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরী করা হবে। তাই অর্থপ্রাপ্তির স্বাপেক্ষে এই জেলার ৫টি উপজেলা হতে ভিক্ষুক নির্মূলে কাজ শুরু হয়ে গেছে। এই প্রকল্পে লালমনিরহাট জেলার সরকারি কর্মচারীগণ একদিনের বেতন অনুদান হিসেবে দিয়েছে। এছাড়াও
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তহবিল হতে ও সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সহায়তা পাওয়া গেছে। পর্যাক্রমে এই জেলা ভিক্ষুক মুক্ত করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ