আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

নিউ ক্যাশিনো সম্রাটের নেপথ্যে রাজশাহীর সিটি হাট কলুষিত

 

লিয়াকত/জিয়াউল রাজশাহী ব্যুরো:

নগরীর শাহমুখদুম থানাধিন খিরশিন টিকর এলাকার সিটি হাট লাগোয়া পিছন সাইডে চলছে রমরমা নিউ ক্যাশিনোর আসর। দীর্ঘদিন ধরে এই জুয়ার আসরটি চলে আসলেও অজ্ঞাত কারনে তা কখনই বন্ধ হয়না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রভাবশালী মিলন ও রমজান দুই পার্টনানের নিয়ন্ত্রনে চলে এই জুয়ার আসর। প্রত্যেকদিন দুপুর ১২ পর থেকে শুরু করে এই জুয়ার আসর চলে গভির রাত পর্যন্ত।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে একাধিক স্থানীয়রা বলেন, জুয়ার আসরে গিয়ে শতশত পরিবার সর্বশান্ত হলেও মিলন আর রমজানের পকেট হয় ভর্তি নিয়মিত নগরীর শাহমুখদুম থানা পুলিশ টহল দিলেও অজ্ঞাত কারণে তাদেরকে ধরা হয়না বলে স্থানীরা জানিয়েছ। জুয়ার আসরের সর্দার মিলন ও রমজানের সাথে সাক্ষাত করা পর্যন্তই অভিযানের সমাপ্তি বলে অনুসন্ধানে উঠে আসে। স্থানীয়দের ভাষ্যমতে জানা যায় সকল প্রশাসনকে ম্যানেজ করে পরিচালনা করা হয় জুয়ার আসর।
স্থানীয়দের কারো বুকের পাটা নাই যে, প্রকাশ্যে মিলন ও রমজানের বিরুদ্ধে কথা বলে। যদি কেউ মুখ ফসকে বলেই ফেলে তাহলে তার উপর চলে নির্যাতন। এই রকম নজির আছে বলেও জানায় স্থানীয়রা।

তারা দুই পার্টনার প্রকাশ্যে বলে, জুয়ার বোর্ডের বিষয়ে কেউ মুখ খুললেই বিভিন্ন ধরনের অবৈধ জিনিষ দিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দেবো। তারা আরো বলেন, এই জুয়ার আসরটি একটু উন্নত ও ব্যতিক্রম।

তারা জুয়াড়িদের ধরে রাখতে সেখানে সকল প্রকার ব্যবস্থা রাখে। যেমন, চাহিদা মতো যার যে রকম নেশা প্রয়োজন জুয়ার আসরে অর্ডার করলেই তা দ্রুত পেয়ে যায়। যেন মিনি ক্যাসিনো স্টাইল।
জানা যায়, শাহমখদুম থানা পুলিশ এর আগে অভিযান পরিচালনা করলেও কাউকে ধরতে পারেনি।

পারবে বা কিভাবে,মোবাইল হাতে মিলন ও রমজান দৈনিক মুজুরিতে পাহারাদার ও মোটরসাইকেল টিম রাখে জুয়ার আসর ঘিরে চারপাশে। পুলিশ খিরশিনটিকর মোড়ে পা রাখতেই খবর চলে যায়,জুয়ার আসরের সর্দারদের কাছে। সাথে সাথে তারা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। তবে ঘটনা যাইহোক এই জুয়ার আসর বন্ধের দাবি স্থানীয়দের। শতশত পরিবার রক্ষায় এই অপকর্ম বন্ধোর দাবি এখন স্থানীয়দের মুখে মুখে।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরের সরিজমিনে গিয়ে এর সত্যতা মিলেছে।
জুয়ার আসরের বিষয়ে পরিচালনাকারী নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা সবাইকে ম্যানেজ করেই জুয়ার আসর চালাচ্ছি আপনাকে আসার অনুমতি এখানে কে দিয়েছে সাংবাদিক পরিচয় দিলে তিনি বলেন এর আগে কত সাংবাদিক এসেছে আমি তাদেরকে জেল খাটিয়ে ছেড়েছি।
ভালো চানতো এখান থেকে চলে যান বলে হুমকি প্রদান করেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আরএমপি’র মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার(সদর) মোঃ গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, বিষয়টি আমরা অবগত নই। তবে অভিযান পরিচালনার জন্য সংশ্লিষ্ট থানায় বলেছি। শিঘ্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ