আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

মনিরামপুরে শতশত কৃষকের নেয়া উদ্যোগ কি ভেস্তে যাবে

 

রিপন হোসেন সাজু, মনিরামপুর প্রতিনিধি :

পানি নিষ্কাশনের অভাবে বিল কপালিয়ার ১২’শ হেক্টর ফসলি জমি আবারও অনাবাদী পড়ে থাকার আশংকা
মনিরামপুরে ভবদহ অঞ্চলের জলাবদ্ধ বিল কপালিয়ার পানি নিষ্কাশনের উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় কৃষকরা। গত বছর ওই বিল জলাবদ্ধ থাকায় প্রায় দেড় হাজার হেক্টর ফসলী জমি অনাবাদী পড়ে ছিলো। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয় বিল পাড়ের কয়েক হাজার কৃষক পরিবার। আর এ কারনে চলতি বছর বোরো মৌসুমের শুরুতে বিল পাড়ের সকল কৃষক মিলে নিজেদের অর্থায়নে একটি পাম্প মেশিন বসানোর উদ্যোগ নেয়। আর তাই কপালিয়া খালের উপর অবস্থিত পাউবো’র ৩-ভেন্ট সামনে একটি ঘর নির্মান করে অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য সংশ্লিষ্ট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে আবেদন করা হয়। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে পাউবো কর্তৃপক্ষ তাদের অনুমতি ছাড়া ঘর নির্মান করার অভিযোগ তুলে এক পত্রের মাধ্যমে যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২(মনিরামপুর) অফিসকে ওই স্থানে বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। আর এ কারনে প্রায় ভেস্তে যেতে শুরু করেছে শতশত কৃষকের নেয়া এই উদ্যোগ। এ ঘটনায় কপালিয়া বিল পাড়ের জন-সাধারনের মাঝে এক মিশ্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে।

জানাযায়, ২০০২ সাল থেকে উপজেলার বিল কপালিয়ায় টিআরএম(টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট) বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। কিন্তু অপরিকল্পিতভাবে টিআরএম বাস্তবায়নের চেষ্টা করায় এর বিরোধিতা করে বিল পাড়ের সকল কৃষকদের সমন্বয়ে গঠিত ভবদহ জলাবদ্ধতা নিরাশন সংগ্রাম কমিটি। তাদের বাঁধার মুখে পিছু হাটতে বাধ্য হয় পাউব কর্তৃপক্ষ। ২০১২ সালের ২জুন তৎকালীন যশোর-৪ সংসদিয় আসনের সদস্য ও হুইপ আব্দুল ওহাবের উপস্থিতে পাউবো কর্তৃপক্ষ প্রশাসনের লোকজন নিয়ে স্থানীয় কৃষকদের দাবি-দাওয়া উপেক্ষা করে এক প্রকার জোর করে কপালিয়া খালের ভেঁড়ী কেটে টিআরএম বাস্তবায়নের চেষ্টা করে। এতে প্রশাসন ও স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সংর্ঘষ বাঁধে। এতে হুইপ আব্দুল ওহাবসহ প্রশাসন ও স্থানীয় কৃষকদের প্রায় শতাধিক লোক আহত হয়। ওই ঘটনায় প্রশাসন ৩টি মামলা দায়ের করেন। যে মামলায় এখনও হাজিরা দিতে হয় বিল পাড়ের কৃষকদের। ২০১২ সালের ওই ঘটনার পর থেকে ভবদহ ও বিল কপালিয়া নিয়ে শুরু হয় রাজনিতির নতুন খেলা। কেউ টিআরএম বাস্তবায়নের পক্ষে আবার কেউ তার বিপক্ষে। এই দোলাচালে পড়ে বিল কপালিয়া স্থায়ী জলাবদ্ধতার শিকার হতে চলেছে। জলাবদ্ধতার কারনে গত বছর বিলে কোন ফসল চাষ হয়নি বলে জানান কপালিয়া গ্রামের একাধিক কৃষক। সরকারী হিসাবে গত বছর বিল কপালিয়ার প্রায় ১২’শ হেক্টর জমিতে কোন ফসল ফলেনি। উপজেলা কৃষি অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আর এ কারনে কারোর অপেক্ষায় বসে না থেকে বিল পাড়ের সকল কৃষক একত্রিত হয়ে কপালিয়া খালের উপর অবস্থিত পাউবো’র ৩-ভেন্ট ¯øুইসের সামনে একটি পাম্প ঘর তৈরি করে। ওই ঘরে অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য স্থানীয় কৃষকরা সংশ্লিষ্ট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে একটি আবেদন করে। পাম্প ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ পেলে এবারের বোরো মৌসুমে কৃষকরা জমি চাষ করে ঘরে ফসল উঠাতে পারবে বলে আশা। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে পাউবো কর্তৃপক্ষ তাদের অনুমতি ছাড়া ঘর নির্মান করার অভিযোগ তুলে এক পত্রের মাধ্যমে যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২(মনিরামপুর) অফিসকে ওই স্থানে বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন। যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর এজিএম(এমএস) ইয়াহিয়া ছিদ্দিকী জানান, পাউবো’র অভিযোগ সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আমরা সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে পারছিনা। প্যাম্প বসানোর কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা ও বিল কপালিয়ার কৃষক শাহিনুর রহমান বলেন, টিআরএম নিয়ে এলাকায় দুটি গ্রæপ তৈরি হয়েছে। এক পক্ষ চাইছে টিআরএম হোক, আর অন্য একটি পক্ষ তার বিরোধিতা করছে। এই করে গত বছর আমাদের বিলে কোন ফসল হয়নি। আমরা যারা সাধারণ কৃষক, কৃষি কাজ করে আমাদের সংসার চলে। আমরা কারোর পক্ষ না নিয়ে নিজেরাই নিজেদের জমি কি ভাবে চাষ করে খেয়ে পরে বাঁচতে পারি সেই চেষ্টা করছি। কপালিয়া রাজবংশী পাড়ার পরিতোষ কুমার বলেন, আমরা পাউবোর কোন জমিতে ঘর তৈরি করিনি। মেশিনটি যাতে চুরি না হয় সে কারনে বাংলাদেশ সরকারের খাস খতিয়ান ভূক্ত ৬৬৫৮ দাগের জমির উপর একটি ছোট্ট ঘর তৈরি করেছি। এখানে পাউবো কর্তৃপক্ষ কেন বাঁধা দিচ্ছে তা বুঝলাম না। মনোহরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান বলেন, এটি টিআরএম বিরোধী কোন প্রকল্প নয়। কিন্তু একটি মহল এটাকে ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্টা করছে। সাধারণ কৃষকরা স্ব-উদ্যোগে বাচার তাগিদে এই পাম্প বসানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু পাউবো’র এক চিঠির কারনে সব কিছু ভেস্তে যেতে শুরু করেছে। আমরাও হাল ছেড়ে দেবোনা। প্রয়োজনে নিজের জমি বিক্রি করে হলেও কৃষকদের পাশে থেকে পানি নিষ্কাশনের চেষ্টা করবো। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী তাওহীদুল ইসলাম অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিৎ করে বলেন, তারা কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই পাউবোর জমিতে ঘর তৈরি করায় বিদ্যুৎ সংযোগ না দিতে পল্লী বিদ্যুতকে অনুরোধ করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসান বলেন, বিষয়টি আমার আও বাইরে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সহকারী কমিশনার ভূমি তদন্ত করে না আসা পর্যন্ত বলা যাচ্ছেনা যে জমির উপরে ঘর তৈরি করেছে সেটি সরকারী খাস খতিয়ান ভূক্ত না পাউবোর।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ