আজ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ ইং

আজ ১৭ সেপ্টেম্বর, ঐতিহাসিক ‘শিক্ষা দিবস

মতিউর রহমানঃ পিরোজপুর প্রতিনিধি:
১৯৬২ সালের এই দিনে তৎকালীন পাকিস্তানি শাসন শোষণ ও পূর্ব পাকিস্তান এর জন্য গৃহীত ‘শিক্ষা সংকোচন নীতি’র বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে শহীদ হন ওয়াজিউল্লাহ, গোলাম মোস্তফা, বাবুলসহ বাংলা মায়ের অনেক সাহসী সূর্যসন্তান। সবার জন্য শিক্ষার অধিকার সমুন্নত রাখতে তাঁদের এই মহান আত্মত্যাগ স্মরণে প্রতিবছর ১৭ সেপ্টেম্বরের এই দিনটিকে ‘শিক্ষা দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়।
স্বৈরশাসক আইয়ুব খান তৎকালীন পাকিস্তানের ক্ষমতা দখলের মাত্র ২ মাস পর ১৯৫৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর তৎকালিন শিক্ষা সচিবের নেতৃত্বে ‘শরীফ কমিশন’ নামে একটি শিক্ষা কমিশন গঠন করে।
এই কমিশন প্রণীত, চরম পক্ষপাতদুষ্ট তথাকথিত শিক্ষানীতিতে যে সকল বিষয়ে সুপারিশ করা হয়েছিল তার মাঝে ছিল:-
— শিক্ষাকে ব্যয়বহুল পণ্যের মতো শুধু উচ্চবিত্তের সন্তানদের স্বার্থে উচ্চ শিক্ষাকে সীমিত করা।
— সাধারণের জন্য উচ্চ শিক্ষার সুযোগ একেবারেই সঙ্কুচিত করা।
— শিক্ষা ব্যয়কে পুঁজি বিনিয়োগ হিসেবে দেখা ও শিক্ষার্থীদের ওপর তা চাপিয়ে দেয়া।
— যে অভিভাবক বেশি বিনিয়োগ করবেন তিনি বেশি লাভবান হবেন, এরূপ ধারণা পেশ করা।
— অবৈতনিক শিক্ষার ধারণাকে- ‘অবাস্তব কল্পনা’ বলে উল্লেখ করা।
— ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে ডিগ্রী পর্যন্ত ইংরেজী পাঠ বাধ্যতামূলক।
— উর্দুকে জনগণের ভাষায় পরিণত করার অপচেষ্টা।
— সাম্প্রদায়িকতাকে কৌশলে জিঁইয়ে রাখার অপচেষ্টা।
— ডিগ্রী কোর্সকে তিন বছর মেয়াদী করা ইত্যাদি।
১৯৬২ সালে পাকিস্তানের সামরিক শাসক জেনারেল আইয়ুব খানের ‘গোদের উপর বিষফোঁড়া’র মত চাপিয়ে দেয়া অগণতান্ত্রিক ও ছাত্র স্বার্থবিরোধী এ শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্র সমাজ তীব্র আন্দোলন ও সংগ্রাম গড়ে তোলে।
গণবিরোধী এ শিক্ষানীতি বাতিল করে সকলের জন্য শিক্ষার সমান অধিকার ও সুযোগ প্রতিষ্ঠা এবং একটি গণমুখী, সহজলভ্য, বিজ্ঞানমনস্ক, অসাম্প্রদায়িক, আধুনিক শিক্ষানীতি ও শিক্ষা ব্যবস্থা অর্জনের লক্ষ্যে ছাত্র সমাজ আন্দোলন জোরদার করে।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটসহ বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে ১৭ সেপ্টেম্বরের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। ব্যাপক বিক্ষোভ ও আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে, সাধারণ জনগণের সহানুভূতি ও সমর্থন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। ১৯৬২ সালের এই দিনে ছাত্ররা শিক্ষাকে পণ্য করার ওই শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে হাইকোর্টের সামনে পুলিশ গুলি চালায়। শাহাদাৎ বরণ করেন মোস্তফা, বাবুল, ওয়াজীউল্লাহসহ অনেকে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ