আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা মার্চ, ২০২১ ইং

সেই প্রতারক আলমগীর সহ গ্রেপ্তার ৪

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

 

গত কয়েক বছর আগেও সাভারের একটি হাউজিং কোম্পানিতে মাত্র ৪ হাজার টাকা বেতনে চাকুরি করতো আলমগীর হোসেন। আলমগীর হোসেন সাভার ও সিংগাইরে কোটি কোটি টাকার সম্পদের এর মালিক বনে যায় রাতারাতি। মানিকগঞ্জ জেলার সিংগাইর থানার শায়েস্তা ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের মৃত আরজ খার ছেলে আলমগীর হোসেন। আদালতের ভূয়া গ্রেপ্তারী পরোয়ানা ও আদালতের সই জালিয়াতি চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি পুলিশ।

সাভার থেকে আদালতের সই জাল ও ভূয়া গ্রেপ্তারী পরোয়ানা চক্র গড়ে তুলেন আলমগীর ও তার প্রবাসী গুরু দানেশ ডালি।
সাভারের ওই চক্রের অন্যতম প্রতারক আলমগীর কে সাভার বাজার রোড জনতা ব্যাংক ভবন থেকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি পুলিশ। আলমগীর হোসেন এর গুরু সৌদি প্রবাসী দানেশ ডালি বিদেশে বসে দিকনির্দেশনা দেয় আর শিষ্য আলমগীর সেই নির্দেশ পালন করে। ভূয়া মামলার গ্রেপ্তারী পরোয়ানা দিয়ে দিনের পর দিন জেল খাটান আওলাদ হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে। গত কয়েক মাস আগে আশুলিয়া থানা পুলিশ নয়ারহাট থেকে আওলাদ হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে কক্সবাজারের জেলজাহতে প্রেরণ করে একটি নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায়। ওই মামলায় কক্সবাজার জেলহাজতে থাকা কালীন অন্য একটি আদালত থেকে আওলাদ হোসেন একটি কাগজ আসে তাকে খুলনা আদালতে পাঠানোর জন্য। এভাবে আওলাদ কে ৬৬ দিন বিভিন্ন মামলায় দেশের বিভিন্ন জেলহাজতে থাকতে হয়েছে। আওলাদ এর স্ত্রী হাইকোটে একটি রীট করলে আদালত শুনানী শেষে আওলাদ হোসেন কে জামিন দিয়ে নির্দেশ প্রদান করে সিআইডিকে এই ভূয়া গ্রেপ্তারী পরোয়নার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।
গত মাসে আওলাদ হোসেন জেল থেকে মুক্তি পায়। এবং জানা যায় সাভারের সৌদি প্রবাসী দানেশ ডালি নামের এক ব্যক্তির সাথে আওলাদ হোসেনের সাথে নয়ারহাট এলাকায় জমি নিয়ে দুই পক্ষের কয়েকটি মামলা আদালতে চলমান রয়েছে। আওলাদ হোসেন বলেন মিথ্যা ও আদালতের সই জাল করে জেল কাটানোর চক্রের সদস্য দানেশ ডালি ও আলমগীর। তিনি দানেশ ডালি ও আলমগীর কে আসামী করে মামলা করেন। মামলার হওয়ার পরে সিআইডি পুলিশ সাভার বাজার রোড জনতা ব্যাংক ভবন থেকে আলমগীর কে গ্রেপ্তার করার পরই বেড়িয়ে আসে থলের বিড়াল। জানা যায় দানেশ ডালি সৌদি আরব থেকে ঢাকার এক মুহুরীর সাথে বিপুল পরিমান টাকায় চুক্তি করেন আওলাদ হোসেন কে চরম শিক্ষা দেওয়ার । তারই ধারাবাহিকতায় আলমগীর ওই মুহুরীর সাথে যোগাযোগ করে টাকা দেয় এবং মুহুরী ও তার সহযোগীরা আওলাদ হোসেন এর নামে আদালতের সই জাল করে একের পর এক ভূয়া মিথ্যা মামলা দিয়ে জেলখাটান আওলাদ হোসেন কে। পুলিশের সিআইডির একটি দল প্রথমে সাভার থেকে আলমগীর (৩৫) পিতা মৃত আরজ খা কে গ্রেপ্তার করে। আলমগীর এর স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গেন্ডা থেকে সুমন নামে এক এডভোকেটকে গ্রেপ্তার করে। সুমন ও আলমগীর এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ঢাকা থেকে মুহুরী ও তার এক সহযোগীসহ মোট ৪জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়ে দেয় আদালত তাদের কে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়। আওলাদ হোসেন এর কাছে এই ভূয়া মামলার বিষয়ে  জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি মামলা করেছি যারা আমাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি ও জেলখাটান তাদের কঠিন শাস্তি দাবী করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ