আজ ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই মে, ২০২১ ইং

ভাষা আন্দোলনের অপরাধে মমতাজ বেগমকে তালাক দিয়ে ছিলেন তার স্বামী

ডেক্স, সংবাদ

 

ভালোবাসার জন্য হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে হয়েছিলেন মুসলমান। ভালোবাসার টানে কলকাতা থেকে তিনি চলে এসেছিলেন বাংলাদেশে।

সময়টা ১৯৪৬ সাল। তখন পুরো ভারত জুড়ে চলছে দাঙ্গা। তারা হাওড়া থেকে চলে এলেন গোয়ালন্দে সেখান থেকে নারায়ণগঞ্জ। সেখানেই থেকে গেলেন স্বামী-স্ত্রী। দুজনে মিলে বানিয়ে নিলেন সুখের সংসার। এর মধ্যে কোল জুড়ে চলে এলো একটি শিশুকন্যা। নাম রাখেন খুকু। মমতাজ বেগম চাকরি করেন মর্গান গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে। সেখানেও বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি।

এরপরে চলে এলো ১৯৫২। ঢাকা থেকে খবর এলো ২১ ফেব্রুয়ারি তে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ছাত্ররা মিছিলে যাবে। ছাত্রদের ওপর পুলিশের বর্বর গুলিবর্ষণের প্রতিবাদে কর্তৃপক্ষের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে মর্গান হাইস্কুলের ৩০০ ছাত্রী নিয়ে পথে বেরিয়ে পড়লেন স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা মমতাজ বেগম। ২৭ তারিখে প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয় মমতাজ বেগমকে গ্রেফতার করার। তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেয়া হয় বলা হয় স্কুলের তহবিল আত্মসাৎ করেছেন তিনি। ২৯ তারিখ গ্রেফতার করা হলো মমতাজ বেগমকে। তার কন্যাটি তখন চার বছরের শিশু। বিভিন্ন মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগে তাকে চাকুরিচ্যুত করা হলো।

মর্গ্যান হাইস্কুলের শিক্ষক এবং ছাত্রীরা স্কুল বয়কট করলো। মিছিল করে তারা কোর্টে হাজির হলো। হাজার হাজার মানুষ একত্রে ঘিরে ফেললো নারায়ণগঞ্জ থানা। মানুষের ভীড়ে বন্ধ হয়ে যায় রাস্তাঘাট। তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর হলে ক্ষোভে ফেঁটে পড়ে মানুষ। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের পথে বড় বড় ১৬০টি গাছ কেটে ব্যারিকেড তৈরি করে ছাত্রছাত্রীরা। ট্রাকের পর ট্রাক পুলিশ এসে ঢাকার কারাগারে নিয়ে যায় মমতাজ বেগমকে।

এরপর মমতাজকে সরকার ক্ষমাপ্রার্থণা এবং মুচলেকার মাধ্যমে মুক্তির প্রস্তাব দেয়। মমতাজ বেগম তা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেন। তার স্বামী ঢাকার খাদ্য পরিদর্শক আবদুল মান্নাফ তাকে মুচলেকা দিয়ে বেরিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানালে তিনি তাতেও অস্বীকৃতি জানান। একপর্যায়ে স্বামী আবদুল মান্নাফ মমতাজ এর সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক ছিন্ন করবেন বলে হুমকি দেন। কিন্তু সেই হুমকিও ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেন অসীম সাহসী মমতাজ বেগম। যে মানুষটির জন্য একদিন নিজের ঘর, নিজের পরিবার, নিজের সবকিছু বিসর্জন দিয়েছিলেন ভাষার প্রতি মমতার জন্য নিজের আত্মসম্মান রক্ষার জন্য সেটুকুও বিলিয়ে দেন মমতাজ বেগম। স্বামী আবদুল মান্নাফ তখন সব সম্পর্ক ছিন্ন করে তালাক দেন মমতাজ বেগমকে। ১৯৫৩ সালের শেষদিকে দেড় বছর কারাভোগের পর মুক্তি পান মমতাজ বেগম।

এরপর ঢাকাতেই আনন্দময়ী গার্লস স্কুল ও আহমেদ বাওয়ানী একাডেমিতে শিক্ষকতা শুরু করলেন। প্রচণ্ড অর্থকষ্টে আর রোগশোকে ভুগতে লাগলেন। এক সময় তার স্থান হলো ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে। ১৯৬৭ সালের ৩০ মার্চ সেখানেই মৃত্যু হয় তার। তাকে কবর দেয়া হলো আজিমপুর কবরস্থানে। কেউ জানলো না কোন কবরটি তার। হারিয়ে গেলেন মমতাজ বেগম কোনো চিহ্ন না রেখেই।

দীর্ঘ ৬০ বছর পর ২০১২ সালে ভাষা আন্দোলনে স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ সরকার তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জের মর্গান হাইস্কুলের সামনের সড়কটি তার নামানুসারে ‘ভাষাসৈনিক মমতাজ বেগম সড়ক’ নামে নামকরণ করা হয়।

আসাদুজ্জামান ভাই এর ফেসবুক থেকে,,
(তথ্য ও ছবি সংগ্রহীত) 🇧🇩🇧🇩🇧🇩
২১.২.২০২০

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ