আজ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ ইং

করোনার বর্তমান পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা না নেওয়ার যৌক্তিকতা

আশরাফুল কবির ফাহাদ,ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি :
এইচএসসি পরিক্ষার্থী  ও ‘ করোনায় এইচএসসি নয়’ নামক ফেসবুক গ্রুপে ২৫০০০০+ সদস্যের মধ্যে,ওই গ্রুপের মডারেটর  মিরাজ আল ইমরানের বক্তব্য -::বিভিন্ন গনমাধ্যম,শিক্ষাবিদ এবং শিক্ষাসচিবের ভাষ্যমতে,এই পরিস্থিতিতেও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হতে পারে
করোনার বর্তমান পরিস্থিতিতে পরীক্ষা না নেওয়ার যৌক্তিকতাঃ
১.পরীক্ষা কেন্দ্রের বাহিরে ভিড়ঃ
একজন এইচএসসি পরিক্ষার্থীকে পরীক্ষার সময় তার বাবা কিংবা মা কখনোই একা ছাড়বে না।আর যদি বলা হয় কোন মেয়ে শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে তবে তো প্রশ্নই আসে না একা ছাড়ার।
পরীক্ষা চলাকালীন সময় এবং পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর কেন্দ্রের বাইরে একটা বিশাল জনগোষ্ঠী একত্রিত হবে,যাদের বেশিরভাগেরই স্বাস্থ্য নিরাপত্তার কোন বালাই থাকবে না।দিনশেষে তাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে।
২.গণপরিবহনে ভিড়ঃ
একটি উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার প্রেক্ষিতে আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষই মধ্যবিত্ত হিসেবে পরিলক্ষিত হয়।আর যাদের বেশিরভাগই চলাচলে গণপরিবহন ব্যাবহার করে। এইচএসসি পরীক্ষা চলাকালীন সময়েও এর ব্যত্যয় ঘটবে না।আর গণপরিবহনে যে এতো ব্যাবস্থা নেয়ার পরও কারও স্বাস্থ্য সচেতনতা নেই,তা প্রতিদিন টিভি চ্যানেলে এবং পত্রিকার কাগজে দেখাই যাচ্ছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার সময় কিংবা পরীক্ষা কেন্দ্র হতে ফেরবার সময় তাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা প্রচন্ড ঝুঁকির মধ্যে থাকবে।
৩.শিক্ষার্থীর নিকট ভবিষ্যতঃ
আচ্ছা কোন শিক্ষার্থী যদি দুই-তিনটা পরীক্ষা দেয়ার পর করোনা আক্রান্ত হয়,তবে সে কিভাবে বাকি পরিক্ষাগুলোতে অংশগ্রহণ করবে?আর ধরুন আক্রান্ত হওয়ার পরও যদি কেউ পরীক্ষায় অংশ নেয়,যদি পরীক্ষার হলেই শ্বাসকষ্ট শুরু হয়,তবে কি তারা পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যাবস্থা পাবে?আর যদি সে সবগুলো পরীক্ষা দিতে না পারে,সে কি তবে এবারের জন্য ফেইল?যেই পরীক্ষার হলে সে পরিক্ষা দিচ্ছিল,সেখানকার একজনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়লে,সেই রুমের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা কি করবে?কোয়ারেন্টাইনে থাকবে?
-তাহলে পরীক্ষা কে দিবে?আর যদি আক্রান্ত হয়ে কোন শিক্ষার্থী মারা যায়,তার দায়ভার কে নিবে?-তার বাবা-মা নাকি সরকার?এদের মধ্যে অনেক পরীক্ষার্থী হয়তো থাকবে যে তার পরিবারের একমাত্র কর্মক্ষম ছিল।তার মৃত্যুর পর তার পরিবারের দায়িত্ব কে নিবে?এভাবেও কি একটা দেশের বোর্ডের পরীক্ষা নেয়া এতটাই দরকার?
৪.শিক্ষার্থীর পরিবারের উভয়-সংকটঃ
পরীক্ষা চলাকালীন কোন বাবা-মা পারবে না,তার সন্তান থেকে দূরে থাকতে,তারা সব সময় তাদের প্রানপ্রিয় সন্তানের সর্বোচ্চ যত্ন নেয়ার চেষ্টা করবে।কিন্তু এমনটা যদি হয় কোন আক্রান্ত শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে তবে তাদের বাবা-মা কি করবে?আর যদি সন্তানের মাধ্যমে তাদের বাবা-মা আক্রান্ত হয় তখন?আর পরিবারে যাদের বয়স্ক দাদু-নানু আছে,তাদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তো প্রকট।কোন দূ্র্ঘটনা ঘটতে সময় লাগে না।আল্লাহ না করুক যদি খারাপ কিছু হয় এত দায়ভার কি সন্তানের?সেই সন্তান কি জীবনে কখনো নিজেকে ক্ষমা করতে পারবে?একটা জীবনের চেয়ে কখনোই পরীক্ষা বড় না।
৫.হোস্টেেল কিংবা মেসে সংকটঃ
স্বপ্ন পূরনের তাগিদে অনেক শিক্ষার্থী গ্রাম কিংবা শহর থেকে বিভাগীয় শহরে পড়তে আসে,ভালো একটা কলেজে পড়ে বাবা-মায়ের স্বপ্ন পুরন করতে চায়।এদের বেশিরভাগই হোস্টেল কিংবা মেসে থাকে।যেখানে একটা হোস্টেলে বিপুল পরিমান শিক্ষার্থী একসাথে থাকে যাদের মন-মানসিকতায়ও পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়।এই পরিস্থিতিতে পরীক্ষা নিলে তারা পরিক্ষা দেয়ার অনুকূল পরিবেশ পাবে না আর তাদের স্বাস্থ্যঝুঁকিও সর্বোচ্চ।আর অনেক শিক্ষার্থী এই ৫ মাসে তাদের হোস্টেল কিংবা মেস ছেড়ে দিয়েছে।১৫ দিনের নোটিশে যদি পরীক্ষা নেয়া হলে,তারা কিভাবে তাদের থাকার জায়গার ব্যাবস্থা করবে?
৬.দুর্বিষহ বন্যাঃ
এবার দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় দেশের প্রায় ৩১ টি জেলার অংশবিশেষ এখনো পানির নিচে। সেসব অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা এই পরিস্থিতিতে কয়েকমাস ধরে ঠিকমত প্রস্তুতি নিতে পারছে না। হঠাৎ করে তাদের পরীক্ষা নেয়া হলে,ভালো রেজাল্ট করার স্বপ্ন তো দূরের কথা,অনেকে পাশও করতে পারবে না।কথায় আছে আগুনে হাত দিলে ইচ্ছায়ও পুড়ে,অনিচ্ছায়ও পুড়ে।তবে কেন একুশ শতকের এই ক্রান্তিলগ্নে বিপুল সংখ্যক মানুষের জীবন স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ফেলা হচ্ছে?
বাংলাদেশ সরকার,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এবং মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা দিপু মনি’র কাছে আজ আমাদের ১৩ লক্ষ পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের প্রাণের দাবি-
১) করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর পরীক্ষার নোটিশ দিতে হবে।
২)রুটিন দেয়ার পর কমপক্ষে ৩০-৪৫ দিন পরীক্ষার্থীদের সময় দিয়ে তারপরে পরীক্ষা নিতে হবে।
৩)আমাদের ১৩ টি পরীক্ষা নেয়ার সময় পরীক্ষার মাঝে পর্যাপ্ত সময় দিতে হবে।পরীক্ষা কখনোই ১৫ দিনের মধ্যে শেষ করা যাবে না।
৪)স্বাভাবিক হওয়া বলতে যখন দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা দুইয়ের ঘরে এবং মৃত্যুর সংখ্যা নগন্য থাকবে- এমন পরিস্থিতি হওয়ার পরে আমাদের পরীক্ষার নোটিশ দিতে হবে।
৫)সরকার যদি মনে করে আমরা এতদিন শিক্ষাব্যবস্থা কে থামিয়ে রাখব না,জীবন থেকে শিক্ষার্থীদের এক বছর নষ্ট করব না,তবে এই পরিস্থিতিতে পরীক্ষা না নিয়ে বিকল্প ব্যাবস্থার কথা চিন্তা করতে হবে।
আমরা চাই পরীক্ষা দিতে,কিন্তু পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর,জীবন বাজি রেখে নয়।১৩ লাখ শিক্ষার্থীর সাথে রয়েছে তাদের বাবা-মা,বয়স্ক দাদু-নানু এবং পুরো সমাজের স্বাস্থ্যঝুঁকি।আর জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষ “করোনার মধ্যে এইচএসসি নয়” গ্রুপের মাধ্যমে আমাদেরকে সমর্থন করছে।আমরা সকলের সমর্থন কামনা করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ